default-image

ক্রিকেটার মাশরাফির কাছে বিশ্রামের সময় লুঙ্গি সবচেয়ে আরামদায়ক। তাঁর বিদেশসফরের আগে ব্যাগ গোছানো পর্বে অগ্রাধিকার পায় এই পোশাকটি। শুধু বাংলাদেশ না, ভারত, নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কা, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, জর্ডান, সোমালিয়া বা কেনিয়ার মতো দেশেও লুঙ্গি জনপ্রিয় পোশাক।

default-image

ডিজাইনার ও গবেষক চন্দ্র শেখর সাহা মনে করেন, এই অঞ্চলে মুসলিম বণিকদের আগমনের সঙ্গে লুঙ্গির যোগসূত্র থাকাটাই স্বাভাবিক। কারণ, এ দেশের চেক লুঙ্গির বিশেষত্ব ইন্দোনেশিয়াতে বেশি দেখা যায়। অনেক দেশে যেমন লুঙ্গির প্রচলন রয়েছে, তেমনি পরিচিতিতে বা পরার স্টাইলেও আছে ভিন্নতা। আমাদের চেনা লুঙ্গিই কোনো দেশে সারং, কোথাও আবার মুন্ডা বা কাইলি। লোঙ্গাই নামেও ডাকে কোনো কোনো দেশ।

default-image

কোনো দেশের মানুষ লুঙ্গি পরে গিট্টু দিয়ে, কোনো দেশে লুঙ্গির সঙ্গে বেল্টও পরা হয়। আবার অনেকে লুঙ্গির ভেতরে ওপরের পোশাকটি ঢুকিয়েও (ইন) পরেন। বাংলাদেশে পাঞ্জাবি, শার্ট বা টি-শার্টের সঙ্গে লুঙ্গি পরার চল আছে। গ্রামে আবার লুঙ্গির সঙ্গে শুধু একটা গামছা কাঁধেও বেরিয়ে পড়তে দেখা যায়। শহুরে জীবনে ঘরের পোশাক হিসেবেই লুঙ্গির কদর। তবে ব্যতিক্রমও আছে।

default-image

বাংলাদেশের লুঙ্গির প্রধান বৈশিষ্ট্য চেক। ছোট, বড়, মাঝারি—চেকের রকমফের অনেক! তবে ফ্যাশনের নিয়ম মেনে পরিবর্তন এসেছে লুঙ্গির নকশাতেও। মূলত স্বাধীনতার পর থেকেই অল্পস্বল্প পরিবর্তন হয়েছে। ফ্যাশন হাউস আড়ং থেকে নব্বইয়ের দশকে ডিজাইনার চন্দ্র শেখর সাহা প্রথমবার কালো লুঙ্গিতে নতুন নকশা তৈরি করেছিলেন। চেক ছাড়াও লুঙ্গিতে ছাপা, বাটিক, টাই-ডাই, ব্লক, এমব্রয়ডারিসহ নানা কাজ দেখা যায় বিভিন্ন সময়ে।

default-image

যান্ত্রিক তাঁতের প্রচলন বাড়ায় হাততাঁতে বোনা লুঙ্গি হয়ে পড়েছে কোণঠাসা। এক রকম নিয়ম করেই প্রতিবছর বন্ধ হয়ে যাচ্ছে তাঁত। মেশিনে তৈরি লুঙ্গির উৎপাদন খরচ আর কর্মঘণ্টার সঙ্গে তাঁতের লুঙ্গির পাল্লা অনেকটা খরগোশের সঙ্গে কচ্ছপের দৌড়ের মতো। তবে তাঁতে তৈরি লুঙ্গির কদর সব সময় বেশি। অল্প পরিমাণে হলেও তাঁতে বোনা লুঙ্গি টিকে আছে ঢাকার কেরানীগঞ্জের রুহিতপুর, পাবনা ও সিরাজগঞ্জের মতো কয়েকটি অঞ্চলে।

ফ্যাশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন