উল্টিয়ে আঁচড়ানো হয়েছিল লাবণ্যর চুল, আঁটসাঁট করে বাঁধা হয়েছিল খোঁপা। রবীন্দ্রনাথের উপন্যাস থেকে ধারণা নিয়ে লম্বা বেণিও করা হয়েছিল। মাঝখানে সিঁথি। কপালে টিপ। চোখে হালকা কাজল আর লিপস্টিক। কানে ছোট দুল। হাতে সোনার দুগাছি সরু চুরি। পরনে ঘিয়ে জামদানি শাড়ি, তাতে লাল-নীল সুতার কাজ। লাবণ্যর ব্যক্তিত্বে সাদামাটা ভাবের সঙ্গে আভিজাত্যের সমন্বয় ফুটিয়ে তোলার জন্য বেছে নেওয়া হয়েছিল সুতির ছাপা শাড়িও। সাদা হাফ সিল্কের মধ্যে ছিল নীল সুতার কাজ। হাফ হাতা ব্লাউজ।

default-image

রূপবিশেষজ্ঞ কানিজ আলমাস খান লিখেছিলেন, ‘এই দুই নারীর জীবনধারা, তখনকার সৌন্দর্যবোধ, উভয়ের সামাজিক ও স্থানিক পরিচয় ইত্যাদি মনে রেখে তাঁদের সাজানোর চেষ্টা করেছি।’

default-image

কানিজ আলমাস খান আরও বলেন ‘তবে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর শেষের কবিতায় কী রূপে কেতকী আর লাবণ্যকে দেখেছেন, তাতে জোর দিতে চেয়েছি বেশি। কারণ, এই দুই বাঙালি নারী তো তাঁরই সৃষ্টি। আমরা তাঁদের আবিষ্কারের চেষ্টাই কেবল করতে পারি!’

default-image
ফ্যাশন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন