বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উপসর্গ

পারকিনসনসের প্রধান লক্ষণ তিনটি। হাত–পা কাঁপুনি, হাত–পা স্বাভাবিকের চেয়ে শক্ত হয়ে যাওয়া ও চলাফেরার গতি ধীর হয়ে যাওয়া। এ ছাড়া সামনের দিকে ঝুঁকে হাঁটা, স্বর ক্ষীণ হয়ে যাওয়া, কম কথা বলা, চোখের পাতার নড়াচড়া কমে যাওয়া ও বারবার পড়ে যাওয়াও এর লক্ষণ। এ লক্ষণগুলোকে বলা হয় মোটর সিম্পটম। এর বাইরে কিছু নন মোটর সিম্পটম আছে। সেগুলো হলো ডিপ্রেশন বা বিষণ্নতা, উদ্বিগ্নতা, উদাসীনতা, কোষ্ঠকাঠিন্য, ঘুম কম হওয়া, বারবার প্রস্রাবে চাপ অনুভব করা বা প্রস্রাব আটকে যাওয়া, যৌন ক্ষমতা হ্রাস পাওয়া ইত্যাদি।

চিকিৎসা

সঠিক সময়ে সঠিকভাবে চিকিৎসা নিলে একজন পারকিনসনস রোগী দীর্ঘদিন ভালো থাকেন। এ জন্য আজীবন ওষুধ খেতে হয়। এটি সম্পূর্ণ নিরাময়যোগ্য রোগ নয়।

অস্ত্রোপচারের কোনো ভূমিকা এই রোগের চিকিৎসায় নেই। তবে ডিবিএস (ডিপ ব্রেন স্টিমুলেশন) পদ্ধতিতে অতি ক্ষুদ্র ইলেকট্রোড মস্তিষ্কের গভীরে স্থাপন করা হয়। এতে ওষুধ অনেক কম লাগে। উপসর্গ ৯০ শতাংশ কমে যায়। রোগী দীর্ঘদিন ভালো থাকতে পারেন। কিন্তু এটি অত্যন্ত ব্যয়বহুল। এ পদ্ধতি আমাদের দেশে সীমিত পরিসরে চালু হয়েছে।

‘অ্যাডভান্সড পারকিনসনস ডিজিজ’ রোগীর ক্ষেত্রে লিভোডোপা প্যাচ, অ্যাপোমরফিন ইনফিউশন পাম্প এবং লিভোডোপা-কারভিডোপা ইনটেস্টিনাল জেল (এলসিআইজি) রয়েছে। এগুলোও ব্যয়বহুল। ওষুধের পাশাপাশি ব্যায়াম বা ফিজিওথেরাপির মাধ্যমে পারকিনসনস রোগের উল্লেখযোগ্য উন্নতি হতে পারে।

গড় আয়ু বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে নিউরোডিজেনারেটিভ রোগের হার বৃদ্ধি পাচ্ছে। পারকিনসনস এর মধ্যে অন্যতম। রোগী নিজে ও পরিবারের সদস্যরা সচেতন হলে রোগী সচল থাকা সম্ভব। এ জন্য রোগীকে সব সময়ই ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করে যেতে হবে।

ডা. আহসান হাবীব, সহযোগী অধ্যাপক, নিউরোলজি বিভাগ, পারকিনসনস ও মুভমেন্ট ডিজঅর্ডার বিশেষজ্ঞ, বিএসএমএমইউ

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন