বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যেসব নিয়ম মেনে চলতে হবে—

  • চার থেকে ছয় ঘণ্টা পরপর স্যানিটারি প্যাড পরিবর্তন করুন।

  • কাপড়, তুলা বা টিস্যু ব্যবহার করবেন না।

  • স্যানিটারি প্যাড বা মেনস্ট্রুয়াল কাপ ব্যবহার করুন।

  • একসঙ্গে দুটি স্যানিটারি প্যাড পরবেন না।

  • ব্যাকটেরিয়াজনিত সংক্রমণ এড়াতে পরিষ্কার অন্তর্বাস ব্যবহার করুন।

  • প্রতিদিন গোসল করুন। ব্যবহৃত কাপড় পরিষ্কার রাখুন।

  • পিরিয়ডের সময় চুলের গোড়া আলগা হয়ে যায়, ফলে লোমকূপ উন্মুক্ত হয়ে পড়ে। এ সময় চুলে শ্যাম্পু ব্যবহার না করাই ভালো।

default-image
  • প্যাড র‍্যাশ এড়াতে যথাসময়ে প্যাড পরিবর্তন করা এবং যোনিপথের আশপাশের জায়গা শুকনা রাখা জরুরি।

  • ব্যবহৃত কাপড় ও অন্তর্বাস পরিষ্কার করে ভালোভাবে রোদে শুকিয়ে নিন।

  • নিয়মিত ব্যবহারের ক্ষেত্রে সুতির আরামদায়ক অন্তর্বাস ব্যবহার করুন।

  • যোনিপথের আশপাশে সুগন্ধী বা অ্যালকোহলযুক্ত পণ্য ব্যবহার করবেন না।

  • ব্যবহৃত স্যানিটারি প্যাড নির্দিষ্ট স্থানে ফেলুন।

  • এ সময় জরায়ু অত্যন্ত নাজুক অবস্থায় থাকে, সামান্য আঘাতেও মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে। খেয়াল রাখতে হবে যেন এ সময় পেটে কোনো আঘাত না লাগে।

default-image
  • ভারী কাজ, ব্যায়াম, সাঁতার বা সাইকেল চালানো থেকে বিরত থাকুন।

  • এ সময় হরমোনের প্রভাবে মানসিক ও শারীরিক বেশ কিছু পরিবর্তন ঘটে। তাই মানসিক চাপ ও দুশ্চিন্তামুক্ত থাকার চেষ্টা করুন।

  • পিরিয়ড চলাকালীন জরায়ুমুখ উন্মুক্ত থাকে। তাই পুকুর বা নদীতে গোসল করবেন না।

  • পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার পাশাপাশি প্রচুর পানি পান করুন।

  • জটিলতা এড়াতে নিয়মিত জরায়ুমুখ ও স্তন ক্যানসার স্ক্রিনিং করা জরুরি।

  • অনিয়মিত পিরিয়ডসহ যেকোনো সমস্যা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন