বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

চুলের যত্নে আমলকী

  • রুক্ষ-শুষ্ক চুলকে মসৃণ ও ঝরঝরে করতে প্রাকৃতিক কন্ডিশনার হিসেবে আমলকীচূর্ণ ব্যবহার করতে পারেন।

  • আমলকীতে থাকা ফাইটো-নিউট্রিয়েন্ট, ভিটামিন ও খনিজ প্রয়োজনীয় কোলাজেন প্রোটিন তৈরি করে। কোলাজেন চুলের ফলিকলের মৃত কোষকে নতুন কোষে প্রতিস্থাপন করে।

  • আমলকীর অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ও অ্যান্টি–ব্যাকটেরিয়াল উপাদান মাথার ত্বক পরিষ্কার রাখে। ত্বকে পুষ্টি জোগায় এবং খুশকি দূর করে।

default-image
  • আমলকীর রস চুলের ফলিকলগুলো শক্তিশালী করে চুলকে মজবুত করে। দ্রুত চুল বাড়তে সাহায্য করে। এটি মাথার ত্বক ও চুলের টনিক হিসেবেও দারুণ কাজ করে।

  • নিয়মিত আমলকীর রস পান করলে এতে থাকা ভিটামিন সি ও অ্যান্টি-অক্সাইড বয়সের আগে চুল পাকা রোধ করবে।

  • সপ্তাহে দু-তিন দিন আমলকীর রস দিয়ে চুল পরিষ্কার করলে চুলের পাকা ভাব কমে। চুল পড়া কমে যায়।

  • আমলকী মাথার ত্বকের রক্তসঞ্চালন বাড়াতে ও ত্বক সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এটি ব্যবহারে চুলের গোড়া শক্ত হয় এবং চুল দেখতে মসৃণ হয়।

চুলের যত্নে যেভাবে আমলকী ব্যবহার করবেন

  • আমলকীর হেয়ারপ্যাক: আমলকী রোদে শুকিয়ে মিহি গুঁড়া করে নিন। নারকেল তেল বা অন্যান্য ভেষজ উপাদান, যেমন মেহেদি বা মেথির গুঁড়ার সঙ্গে মিশিয়ে হেয়ারপ্যাক তৈরি করে চুলে ব্যবহার করতে পারেন।

default-image
  • আমলকীর তেল: আমলকী কেটে সেদ্ধ করে রোদে শুকিয়ে নিন। নারকেল তেলের সঙ্গে শুকনো টুকরাগুলো ২০ মিনিট ধরে গরম করুন। ঠান্ডা হলে বয়ামে সংরক্ষণ করুন। সপ্তাহে এক-দুবার এটি ব্যবহার করতে পারেন।

default-image
  • আমলকীর রস: এটি বেশ সহজ প্রক্রিয়া। আমলকী কেটে পানি যোগ করে ব্লেন্ড করে নিন। আমলকী ও লেবুর রস মিশিয়ে চুলের গোড়ায় দিয়ে ৩০ মিনিটের মতো রেখে দিন। হালকা গরম পানি দিয়ে চুল পরিষ্কার করে নিন। নিয়মিত আমলকীর রস ব্যবহারে চুলের গোড়া শক্ত হয়।

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন