সমাধান: ঠিক কী কারণে আপনার সমস্যাটি হচ্ছে, তা নির্ণয় করতে হবে। অনেক সময় পেটে হেলিকোব্যাক্টার পাইলোরির অস্বাভাবিক মাত্রার জন্য এমন হতে পারে। এ জন্য এইচ পাইলোরি টেস্ট করিয়ে এর মাত্রা জানতে হবে। আবার কিডনি বা লিভারের সমস্যা হলেও এমন উপসর্গ দেখা দেয়। সে ক্ষেত্রে কিডনি ও লিভার ফাংশন টেস্ট এবং সিবিসি করানো প্রয়োজন। তবে পরীক্ষা-নিরীক্ষার আগপর্যন্ত আপনি ফ্রেনজিট ও বমি প্রতিরোধী ওষুধ খেয়ে দেখতে পারেন। আর অবশ্যই নিয়মিত শরীরচর্চা করবেন।