কারণ

  • সাধারণত ৪০-৬০ বছর বয়সের মানুষ এ রোগে বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকেন। নারীদের আক্রান্ত হওয়ার হার পুরুষদের তুলনায় বেশি। মেনোপজের পর ইস্ট্রোজেন ও প্রোজেস্টেরন নামক হরমোনের ঘাটতির কারণে নারীরা এ সমস্যায় বেশি আক্রান্ত হন।

  • আরও নানা কারণে ফ্রোজেন শোল্ডার হতে পারে। যেমন অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, স্ট্রোক–পরবর্তী সমস্যা, আঘাতজনিত সমস্যা, ভারী বস্তু বহন করা, কাঁধের অস্ত্রোপচার-পরবর্তী পর্যায়ে, ওপেন হার্ট সার্জারির পর, থাইরয়েডের সমস্যায়, কাঁধের জোড় সরে গেলে ইত্যাদি।

কীভাবে বুঝবেন

ফ্রোজেন শোল্ডার হলে হাত নড়াচড়া করতে কষ্ট হয়। হাত ওপরে ও নিচে নামাতে কাঁধে ব্যথা হয়। ব্যথা ক্রমে কনুই, ঘাড় ও পিঠে যেতে পারে। আক্রান্ত কাঁধে পাশ ফিরে শুতে কষ্ট হয়। আক্রান্ত হাতে জামা পরতে, হাত পেছনে নিয়ে পিঠ চুলকাতে বা চুল আঁচড়াতে কষ্ট হয়। এমনকি মুখ ধুতে ও দাঁত মাজতেও সমস্যা হতে পারে।

চিকিৎসা

  • ব্যথা কমাতে ব্যথানাশক বা এনএসএআইডি গোত্রের ওষুধ, সঙ্গে পেশি শিথিলায়নের জন্য মাসল রিলাক্স্যান্ট দরকার হয়। এর সঙ্গে কার্টিলেজ রিজেনারেটিভ ওষুধ, ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি দেওয়া যায়। কখনো ইন্ট্রা আর্টিকুলার ইনজেকশন দিতে হতে পারে।

  • তবে এ সমস্যার মূল চিকিৎসা হলো ফিজিওথেরাপি। মেকানিক্যাল ও ম্যানুয়াল—দুই ধরনের থেরাপি রয়েছে। একজন অভিজ্ঞ ফিজিওথেরাপিস্ট আপনার সমস্যা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবেন।

অধ্যাপক মো. আবু সালেহ আলমগীর, কনসালট্যান্ট ও বিভাগীয় প্রধান, ডিপার্টমেন্ট অব ফিজিওথেরাপি মেডিসিন অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন, আমেরিকা-বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতাল, ঢাকা

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন