• অবশ্যই চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।

  • চিকিৎসকের পরামর্শমতো ইনসুলিন ইনজেকশন নিতে হবে।

  • অবশ্যই অভিজ্ঞ পুষ্টিবিদের পরামর্শে খাদ্যব্যবস্থা মানতে হবে।

  • সন্তানের জন্ম বা ডেলিভারি অবশ্যই হাসপাতালে করাতে হবে।        

যেসব ভ্রান্ত ধারণা এড়িয়ে চলতে হবে

  • এটা খাওয়া যাবে না, ওটা খেলে সন্তানের সমস্যা হবে—এ ধরনের ভুল তথ্যে কান দেওয়া যাবে না।

  • টানা অনেকক্ষণ না খেয়ে থাকা যাবে না।

  • একবারে বেশি করে খাওয়া যাবে না।

  • প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন, মিনারেল ও পানি পুষ্টিবিদের পরামর্শ মেনে খেতে হবে।

  • দিনের খাবার ৫-৬ বেলায় ভাগ করে খেতে হবে।

প্রসব–পরবর্তী সচেতনতা

  • চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চেকআপ করা জরুরি।

  • সন্তানকে ছয় মাস পর্যন্ত শুধু বুকের দুধ খাওয়াতে হবে। এ সময় এক ফোঁটা পানিরও প্রয়োজন নেই।

  • সন্তান জন্মের পরপরই মায়ের হলুদ রঙের আঠালো যে দুধ (কলোস্ট্রাম বা শালদুধ) বের হয়, তা অবশ্যই শিশুকে খাওয়াতে হবে। এটি শিশুর প্রথম ভ্যাকসিন হিসেবে খ্যাত।

হাসিনা আকতার, ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশনিস্ট ও কনসালট্যান্ট, ল্যাবএইড হসপিটাল লিমিটেড