কারণ 

  • জিনগত বা বংশগত কারণে এ রোগ হতে পারে।

  • স্থূলতা প্রভাব ফেলতে পারে।

  • যেকোনো ধরনের দুর্ঘটনায় ত্বক ছিলে গেলে, পুড়লে বা ব্যথা পেলে এটা বাড়ে।

  • রোদে ত্বক পুড়েও এমনটা হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

  • খুব বেশি মানসিক চাপে থাকলেও এ রোগ বাড়ে।

  • ধূমপান, মদ্যপান সোরিয়াসিস বাড়ায়।

  • অনেক ধরনের ওষুধ খাওয়ার ফলেও সোরিয়াসিস বাড়তে পারে। যেমন উচ্চ রক্তচাপের ওষুধ, ম্যালেরিয়ার ওষুধ, লিথিয়াম, কর্টিকোস্টেরোইড ইত্যাদি।

  • কারও কারও ট্যাটু বা ভ্যাকসিনের কারণেও সোরিয়াসিস বাড়তে পারে। 

সংক্রমণ

  • কেবল ত্বক নয়, সোরিয়াসিস সন্ধিসহ অন্য অঙ্গপ্রত্যঙ্গকে আক্রমণ করতে পারে। সাধারণত কনুই, হাঁটু, মাথা, হাত ও পায়ের নখ আক্রান্ত হয়।

  • কোনো কোনো ক্ষেত্রে মাথার ত্বক আক্রান্ত হতে পারে। হাতের নখের রং নষ্ট হয়ে যায় ও গর্ত হয়ে যায়।

  • সোরিয়াসিস থাকা ব্যক্তিদের ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস বা ছত্রাকজনিত সংক্রমণ (ইনফেকশন), টনসিলাইটিস বা মুখগহ্বরের সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি।

চিকিৎসা

  • সোরিয়াসিস পুরোপুরি ভালো হয় না, তবে নিয়ন্ত্রণে রেখে স্বাভাবিক জীবন যাপন করা যায়।

  • আক্রান্ত স্থানের ওপর বিভিন্ন ধরনের মলম ও ক্রিম লাগাতে হয়।

  • মুখে খাওয়ার কিছু ওষুধও প্রয়োজনে খেতে হতে পারে। তবে অবশ্যই এসব ওষুধ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে খেতে হবে।

  • সোরিয়াসিস যাতে না বাড়ে, সে জন্য বেশি গোসল, সাবান ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে হবে।

  • তৈলাক্ত জিনিস ঘন ঘন ব্যবহার করতে পারেন। যেমন নারকেল তেল, অলিভ অয়েল বা ভ্যাসলিন।

  • আলট্রাভায়োলেট রশ্মি দিয়েও চিকিৎসা করা হয়।

  • অনেক রোগী মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। তাই তাঁদের ক্ষেত্রে কাউন্সেলিংয়েরও দরকার হতে পারে।

ডা. জাহেদ পারভেজ, সহকারী অধ্যাপক, চর্ম, যৌন ও ট্রান্সপ্ল্যান্ট সার্জারি বিভাগ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ ও হাসপাতাল