উত্তর: আপনি যে সমস্যার উল্লেখ করেছেন, অনেক কারণেই তা হতে পারে, তবে ওজন বেশি একটা বড় কারণ। ওজন বেশি থাকলে ছেলেদের টেস্টোস্টেরন নামে একটা হরমোনের মাত্রা কমে যায়, ফলে ‘ইরেক্টাইল ডিজফাংশান’ হয়ে এই শারীরিক সম্পর্কজনিত সমস্যা তৈরি হতে থাকে।

আবার ওজন বেশির সঙ্গে যদি কারও ভুঁড়ি বা পেটে মেদ বেশি থাকে, অর্থাৎ পেটের মাপ ৪০ ইঞ্চির বেশি থাকে, তাঁদেরও শরীরের মাংসপেশি রিলাক্সকারী ‘নাইট্রিক অক্সাইড’ তৈরি বাধাগ্রস্ত হয়ে এই রকম হতে থাকে।

তাই আপনার ওজন কমাতে হবে, যার জন্য আপনার দিনের কাজগুলোকে একটু গুছিয়ে করতে হবে, যেমন—

১. আপনি আপনার খাবারটা প্রতিদিন একই সময়ে খাবেন, তাতে আপনার বিপাকক্রিয়া (মেটাবলিজম) খুব ভালো হবে।

২. খাবারের পরিমাণ একই রাখার চেষ্টা করবেন, যাতে আপনার ওজন স্বাভাবিকে রাখা সহজ হয়।

৩. খাবারের প্লেটে এমনভাবে খাবার নিবেন যেন শাকসবজি, মাছ বা মাংস, ডাল, সালাদ, ভাত বা শর্করা—প্রতিটা উপাদান সমান হয়। অর্থাৎ ‘স্বাস্থ্যকর থালা’ হিসেবে নিবেন, যাতে আপনার খাবার হয় সুষম, পূরণ করে শারীরিক পুষ্টি চাহিদা।

৪. খাওয়ার পরপরই শুয়ে অথবা বসে না পড়ে অন্তত আধঘণ্টা হাঁটাচলা করার চেষ্টা করবেন।

৫. প্রতিদিন কমপক্ষে এক ঘণ্টা দ্রুত হাঁটবেন বা অন্য কোনো ব্যায়াম করবেন, যাতে একদিকে আপনার বাড়তি ক্যালরি খরচ হতে থাকে, পাশাপাশি নতুন করে ক্যালরি জমতে না পারে।

৬. যেসব খাবার ওজন বাড়াতে পারে, সেগুলো খাওয়া বাদ দিন। যেমন ডুবো তেলে ভাজা খাবার, মিষ্টিজাতীয় খাবার, অতিরিক্ত ক্যালরিযুক্ত খাবার ইত্যাদি।

৭. রাতে কমপক্ষে ছয় ঘণ্টা ঘুমাবেন। এতে শরীরের হরমোনের প্রভাব স্বাভাবিক থাকে এবং ওজন কমাতে সাহায্য করে।

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন