• শাকসবজি বেশি খাবেন। বিশেষ করে লাউ, ঝিঙা, চিচিংগা, পটোল, ধুন্দল, পেঁপে খাবেন সবজি হিসেবে। এগুলোতে জলীয় অংশ অনেক।

  • এখন পুষ্টিকর প্রচুর মৌসুমি রসালো ফল পাওয়া যাচ্ছে। আম, জাম, পাকা পেঁপে, তরমুজ, তালের শাঁস খেতে পারেন। তবে চার–পাঁচ কোষের বেশি কাঁঠাল খাওয়া ঠিক হবে না। এতে শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়াসহ পেট ফাঁপা, হজমে সমস্যা দেখা দিতে পারে। বিকেলের পর কাঁঠাল না খাওয়াই উত্তম।

  • সকালের নাশতায় রুটি, পরোটা না খেয়ে দই–চিড়া খেতে পারেন। দুপুরে ভাত, মাছ, সবজি, ডাল, সালাদ খেতে পারেন। সালাদ হিসেবে শসা রাখতে ভুলবেন না। কারণ, শসায় প্রচুর পানি থাকে। বিকেলের নাশতায় ফল, লাচ্ছি বা দই খেতে পারেন। রাতের খাবার যতটা সম্ভব হালকা করতে পারলে ভালো। সবজি ও চিকেন দিয়ে স্যুপ খেতে পারেন; সঙ্গে সালাদ বা রায়তা খেলেন। এতে রাতে বেশ ভালো ঘুম হবে। রাতে যত ভারী খাবার খাবেন, এই গরমে তত ঘুমের ব্যাঘাত ঘটবে।

কী খাওয়া যাবে না

  • ভাজাপোড়া, তৈলাক্ত খাবার তীব্র গরমে খাবেন না।

  • মাংস কম, মাছ বেশি খান। সবজি খান।

  • কোমল পানীয় না খেয়ে ঘরে তৈরি ফলের রস, শরবত বা স্মুদি খান।

  • চা, কফি পান করবেন না। করলেও দুইবারের যেন বেশি না হয়। চা, কফি শরীরের পানি শোষণ করে পানিশূন্যতা তৈরি করে।

উম্মে সালমা তামান্না, পুষ্টি বিশেষজ্ঞ, ইবনে সিনা কনসালটেশন সেন্টার, বাড্ডা

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন