কীভাবে বুঝবেন

  • জিইআরডি হলে বুক জ্বালাপোড়া, বুকে ব্যথা, খাবার গিলতে গলাব্যথা, ওপরের পেটে ব্যথা, বমি ভাব, কাশি, কণ্ঠস্বর পরিবর্তন, শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি হতে পারে।

  • এ রোগের দীর্ঘমেয়াদি জটিলতা হিসেবে খাদ্যনালির নিচের অংশ সরু হয়ে যাওয়া ও খাদ্যনালির ক্যানসার হতে পারে।

  • এ ছাড়া ঘন ঘন নিউমোনিয়া ও দীর্ঘমেয়াদি কাশি হতে পারে।

চিকিৎসা

জীবনযাত্রা ও খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তনসহ অ্যাসিড নিয়ন্ত্রণ করে, এমন কিছু ওষুধের মাধ্যমে জিইআরডি নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

  • একবারে পেট ভরে বেশি করে খাবেন না।

  • খাবারের সঙ্গে বেশি পানি পান না করাই উচিত।

  • খাবারের পরপরই শুয়ে পড়বেন না।

  • রাতে ঘুমানোর অন্তত ২ থেকে ৩ ঘণ্টা আগে খাবার শেষ করতে হবে।

  • অতিরিক্ত আঁটসাঁট জামাকাপড় পরা এড়িয়ে চলুন।

  • ধূমপান, অ্যালকোহল পরিহার করতে হবে।

  • কফি ও চকলেটও এড়িয়ে চলতে হবে।

  • রাতে শোবার সময় বিছানার মাথার দিক একটু উঁচু করে রাখতে হবে।

ডা. মোহাম্মদ জাকির হোসেন, সহযোগী অধ্যাপক, পরিপাকতন্ত্র, লিভার ও প্যানক্রিয়াস রোগ বিভাগ, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতাল