প্রশ্ন: আমি নারী, বয়স ৩২ বছর। আমার একটি সন্তান আছে, তার বয়স তিন বছর। আমার একটি নিয়মিত সমস্যা হলো, ডায়েট করলে ওজন কমে, তবে স্থায়ী হয় না। একটু খেলেই আবার ওজন বেড়ে যায়। হয়তো ছয় মাস ধরে ১০ কেজি ওজন কমালাম, পরের ছয় মাসে দেখা যায় আবার ১২ কেজি বেড়ে গেল। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাচ্ছি না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

উত্তর: যাঁদের ওজন বেশি, তাঁদের ওজন কমাতে মূলত তিনটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। তা হলো বাড়তি ওজন কমাতে হবে, ওজন কমানোর পর তা স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করতে হবে ও পুনরায় যেন ওজন না বাড়ে, তার চেষ্টা চলমান রাখতে হবে।

প্রথমত, এখনকার বাড়তি ওজন কমাতে যেসব বিষয় আপনাকে মেনে চলতে হবে—

১. কম ক্যালরিযুক্ত, সুষম খাবার খেতে হবে।

২. একবারে বেশি না খেয়ে বারবার (তিন-চার ঘণ্টা পরপর) খেতে হবে, যাতে শরীরের প্রয়োজনীয় পরিমাণ শক্তি-পুষ্টি পাওয়া যায়। আবার অনেক সময় না খেয়ে থাকা যাবে না, তাহলে পরেরবার বেশি খিদে পাবে। বেশি ক্ষুধা মেটাতে নিজের অজান্তেই বেশি খাওয়া হয়ে যাবে।

৩. খাবারের ক্যালরি কমাতে হবে। সেটার জন্য রান্নায় তেল ব্যবহার করতে হবে। ডুবোতেলে ভাজা, বাইরের খাবার, কোমল পানীয়, মিষ্টিজাতীয় খাবার ইত্যাদি কিছুদিনের জন্য বাদ দিতে হবে।

৪. সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন, আপনার যে বাড়তি ওজন আছে, তা ঝরিয়ে ফেলা। ওজন কমাতে প্রতিদিন অন্তত ৪০-৬০ মিনিট দ্রুত হাঁটুন বা পছন্দমতো ব্যায়াম করুন।

৫. রাতে কমপক্ষে ছয় ঘণ্টা (যেমন রাত ১২টা-সকাল ৬টা) ঘুমাবেন। বেশি রাত জাগবেন না, দিনে ঘুমাবেন না। যদি সম্ভব হয়, একজন পুষ্টিবিদের পরামর্শে সারা দিনের ডায়েট চার্ট তৈরি করে নেবেন।

দ্বিতীয়ত, বাড়তি ওজন কমানোর পর তা ধরে রাখতে হবে। এ জন্য প্রতিদিনের খাবার যা খাবেন, তার আনুপাতিক হারে পরিশ্রম/ব্যায়াম করবেন। এতে ওজন ধরে রাখা সহজ হবে।

তৃতীয়ত, পুনরায় যেন ওজন না বাড়ে, তার জন্য না খেয়ে থেকে বা খুব কম খেয়ে বা অস্বাস্থ্যকর ডায়েট করে ওজন কমানোর চেষ্টা করবেন না। এতে করে যখন আগের মতো স্বাভাবিক জীবনযাপন ও খাবার খেতে শুরু করবেন, তখন আবার খুব তাড়াতাড়ি ওজন বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকি তৈরি হবে।

সব সময় মনে রাখবেন, আপনার ওজন বাড়ার কারণের ওপর কমানোর উপায় নির্ভর করবে। কখনোই খুব দ্রুত (ম্যাজিকের মতো) ওজন কমানোর চেষ্টা করবেন না। এতে খুব দ্রুত আবার ওজন বাড়তে শুরু করবে।

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন