কীভাবে বুঝবেন

হঠাৎ শরীরের কোনো অংশে খিঁচুনি শুরু হওয়া ও পর্যায়ক্রমে তা সারা শরীরে ছড়িয়ে পড়া, হঠাৎ নমনীয়ভাবে ঢলে পড়া, শরীর শক্ত হয়ে গিয়ে হঠাৎ পড়ে যাওয়া, জ্ঞান হারানো, ঘন ঘন কাজে অমনোযোগী হয়ে পড়া।

শিশুদের শরীর হঠাৎ ঝাঁকি খাওয়া, হঠাৎ মাথা বা পিঠ কিংবা পুরো শরীর সামনে ঝুঁকে পড়া, হাত থেকে হঠাৎ কিছু ছিটকে পড়া, হঠাৎ অস্বাভাবিক আচরণ শুরু করা এবং হাত, পা ও মুখের অস্বাভাবিক নাড়াচাড়া শুরু হওয়া, হঠাৎ শরীরের কোনো অংশে ভিন্ন ধরনের অনুভূতি সৃষ্টি হওয়া ইত্যাদি।

করণীয়

  • আক্রান্ত ব্যক্তিকে নিরাপদ জায়গায় রাখতে হবে। কাপড়চোপড় ঢিলেঢালা করে দিতে হবে।

  • কাছাকাছি আগুন, গরম পানি বা ধারালো কিছু থাকলে সরিয়ে নিতে হবে।

  • আরামদায়ক অবস্থায় কাত করে শুইয়ে দিতে হবে, যাতে মুখের লালা বাইরে পড়ে যেতে পারে।

  • অনেক সময় রোগীকে চেপে ধরা হয়, নাকে জুতা ধরা হয়; এগুলো করা যাবে না।

  • যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের কাছে নিতে হবে।

রোগনির্ণয়

  • রোগীর ইতিহাস রোগনির্ণয়ের ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

  • ইলেকট্রোইনসেফালোগ্রাম, সিটি স্ক্যান বা এমআরআই—মস্তিষ্কের এ রকম কয়েকটি পরীক্ষা করতে হয়।

  • বিশেষ ক্ষেত্রে আরও কিছু পরীক্ষার প্রয়োজন হতে পারে। যেমন রক্তের ইলেকট্রোলাইট, শর্করা, মেরুদণ্ডের রস পরীক্ষা ইত্যাদি।

চিকিৎসা

  • বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই খিঁচুনির কারণ নির্মূল হলে রোগ ভালো হয়ে যায়।

  • তবে প্রাইমারি এপিলেপসির চিকিৎসা দীর্ঘমেয়াদি, এমনকি সারা জীবনও প্রয়োজন হতে পারে।

অধ্যাপক ডা. হারাধন দেবনাথ, নিউরোসার্জারি বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন