দাদ চেনার উপায়

প্রথমে একটি ছোট লাল গোটা বা ফুসকুড়ির সৃষ্টি হয় ও চুলকাতে থাকে। এটি অতি দ্রুত বৃত্তাকারে ছড়াতে থাকে ও অনেকটা চাকা বা রিংয়ের আকার ধারণ করে, যার কিনারাগুলো কিছুটা উঁচু ও লাল রঙের হয়ে থাকে। কখনো কখনো আঁশ দেখা যায় আবার ছোট ছোট পানিযুক্ত ফুসকুড়িও দেখা যায়। সময়ের সঙ্গে চাকার পরিধি ক্রমাগত বাড়তে থাকে এবং অতিরিক্ত চুলকানোর কারণে জ্বালাপোড়ার সৃষ্টি হয়। মাথায় আক্রান্ত হলে চুল উঠে যায়। নখ ভঙ্গুর হয়ে যায়।

করণীয়

দাদ হয়েছে ধারণা করা হলে যত দ্রুত সম্ভব চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা নেওয়া প্রয়োজন। এটি একটি ছোঁয়াচে রোগ। তাই পরিবারের সবার একত্রে চিকিৎসা নেওয়া প্রয়োজন। দাদের চিকিৎসা কিছুটা দীর্ঘমেয়াদি। তাই মাঝপথে কিংবা রোগ কিছুটা উপশম হলে চিকিৎসা বন্ধ করে দেওয়া উচিত নয়।

লক্ষণীয়

দাদ হলে অনেকে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই মলম ব‍্যবহার করা বা ওষুধ সেবনের প্রবণতা দেখা যায়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই রোগীরা স্টেরয়েড–জাতীয় মলম ব‍্যবহার করে থাকেন। যার ফলে প্রাথমিকভাবে লাল ভাব ও চুলকানি কিছুটা কমে যায়। কিন্তু এতে ছত্রাক আরও শক্তিশালী হয়ে ওঠে, ছত্রাকনাশক ওষুধের কার্যকারিতা হ্রাস পায়। যথেচ্ছ ওষুধ সেবনে হতে পারে নানা ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। ত্বক পুড়ে যাওয়ার মতো ঘটনাও ঘটে থাকে।

প্রতিরোধের উপায়

  • পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন সুতি কাপড় পরিধান ও অতিরিক্ত ঘামের হাত থেকে রক্ষা পেতে ঠান্ডা বা বাতাসের চলাচল ভালো এমন পরিবেশে থাকার চেষ্টা করা এবং শরীর ঘেমে গেলে তা ধুয়েমুছে শুকানো।

  • পরিধানের কাপড় ও অন্য ব‍্যবহার্য দ্রব‍্যাদি অন্যের সঙ্গে ভাগাভাগি না করা।

  • ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা।

ডা. আনজিরুন নাহার আসমা, সহযোগী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান, চর্ম ও যৌনরোগ বিভাগ, পপুলার মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ঢাকা

সুস্থতা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন