সেই মতো হাজীগঞ্জ বাজার থেকে ভেড়ার লোম কুড়িয়ে এনে রাত্রি বেলায় হুজুরের বালিশের নিচে রেখে দিলাম। ভাবলাম, দেখা যাক এবার কী হয়। কিন্তু ভোররাতে আবার দেখি বুকের পাঁজরে হুজুরের লাঠির খোঁচা আর ভর্ৎসনা। এ থেকে বুঝলাম—ওসব ব্ল্যাক ম্যাজিক ফ্যাজিক বলে কিছুই নেই।

বাড়িতে বাবার কাছে, ভাইবোন বন্ধুদের কাছে চিঠিপত্র লেখার অভ্যাসটা তখনই রপ্ত করেছিলাম। ভাবের এই আদান-প্রদান আমাকে প্রচুর আনন্দ দিত। যা-ই হোক, এভাবে এরপর তো একসময় ফিরে এলাম সিলেটে বাবার সংসারে।

বাবা কার সঙ্গে যেন গল্প করছিলেন, মহাত্মা গান্ধী খুব অল্প বয়স থেকে ডায়েরি লিখতেন। আমিও ডায়েরি লিখতে শুরু করলাম, যখন আমি ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র, বয়স ১১। আমার ওই বয়সে বড় ভাই অর্থাৎ কলি ভাই ইংল্যান্ডে চলে যান। তাঁর বড় দুটি বইয়ের আলমারির মালিকানা দিয়ে যান আমাকে। তিনি জানতেন, ওসব বইয়ের ওপর আমার লোভ আছে, কেননা সুযোগ পেলেই ওখান থেকে আমি রিডার্স ডাইজেস্ট, টাইম, নিউজ উইক ইত্যাদি ম্যাগাজিন পড়তাম। ওই বইয়ের মধ্যে এক সেট বই আমি পাই, যেগুলোর প্রচ্ছদে হাতের ছবি আঁকা। আমি আমার পাঁচ বছরের বড় বোনকে জিজ্ঞেস করি: বুবু, এগুলো কী ডাক্তারি বই? বুবু হেসে জবাব দেন: না, এগুলো ভাগ্য গণনার বই। ভবিষ্যৎ জানার বই।

এইভাবে তীব্র একটা কৌতূহল থেকে আমার জ্যোতিষশাস্ত্র শেখার শুরু। একদিকে বই পড়তাম, অন্যদিকে মানুষের হাত দেখে সেগুলো মিলিয়ে দেখতাম। সংখ্যার ব্যাপারটাও বুঝতে চেষ্টা করতাম। আমার এক বয়সে বড় বন্ধু ছিল, সম্পর্কে ভাগনে, নাম সাদ গাজী। ডাকনাম বাচ্চু। চিন্তাচেতনায় ও আমার চেয়ে অনেক অগ্রগামী ছিল। বইগুলো যেহেতু ইংরেজি, ও আমাকে অনেক কিছু বুঝিয়ে দিত। ১৪ বছর বয়সে আমি ও বাচ্চু মিলে বইপত্র ঘেঁটে মেডিটেশন বা ধ্যান সম্পর্কে ধারণা নিই।

আমি জ্যোতিষশাস্ত্র শেখার শুরুতে, মাঝখানে এবং পরেও অনেক ইন্টারেস্টিং ঘটনার সম্মুখীন হই। এখানে তা সবিস্তারে বলার অবকাশ নেই। পরবর্তী সুযোগে বলব। তবে, এটুকু বলে রাখি, গোড়াতেই আমি বুঝতে পেরেছিলাম—জ্যোতিষশাস্ত্রের সঙ্গে বিজ্ঞানের কোনো যোগ নেই। জ্যোতিষশাস্ত্রটা নেহাতই একটা হাইপোথিসিস বা অনুমানসিদ্ধ শাস্ত্র। ছোটবেলায় এক জ্যোতিষী আমার হাত দেখে বলেছিলেন: তোর লেখাপড়া হবে না। তুই জীবনে কিছুই করতে পারবি না। কথাটা শুনে আমার প্রচণ্ড রাগ হয়েছিল। মনে হয়েছিল, ওই অর্ধশিক্ষিত ভদ্রলোককে সুযোগ পেলে আমি বুঝিয়ে দেব—কেবল ইচ্ছাশক্তি থাকলেই মানুষ সব কাজ করতে পারে। এর জন্য অন্য কিছুরই দরকার হয় না।

জ্যোতিষী যার সাফল্যের ভবিষ্যদ্বাণী করেননি, তিনিও কি কখনো সফল হোন না বা হতে পারেন না? জ্যোতিষী যার ব্যর্থতার কথা বলেন, তিনি কি ব্যর্থ হন?

প্রিয় পাঠক, প্রতি শনিবারে আমি আপনার সাপ্তাহিক রাশিফলে যা-ই লিখি না কেন, ওটাকে আপনি সব সময়ই পজিটিভ অর্থে ধরবেন। দুঃখ–কষ্টকে জয় করবেন। সাফল্যের পথে এগিয়ে যাবেন। আপনার এগিয়ে যাওয়ার পথে সব সময়ই আমি পাশে থাকব। জয় হোক আপনার।

রাশি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন