এরপর থেকে তিনি এক মাসের বেশি আমার ক্যাম্পে থাকলেন। তখনকার দিনে ভারত ছাড়াও নানা দেশের মানুষ সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশ দেখতে আসত। কাজলের নিয়মিত কাজ ছিল ঢাকার পুরোনো বিমানবন্দরে গিয়ে কলকাতার সেলিব্রিটিদের সঙ্গে দেখা করা। যেদিনের কথা বলছি, সেদিন সে দেখে বিমানবন্দরের সিঁড়িতে ঋত্বিক ঘটক বসে আছেন। একই ফ্লাইটে সত্যজিৎ রায়ও এসেছেন। তাঁকে সবাই ফুলের মালা পরিয়ে নিয়ে গেছে। ঋত্বিকদাকেও নিতে চেয়েছিল। তিনি বলেছেন, তোমরা সত্যজিৎকে নিয়ে যাও। আমি এসেছি আমার জন্মভূমি দেখতে।

কাজল জিজ্ঞেস করল, দাদা, আমার সঙ্গে থাকবেন?

default-image

তিনি বললেন, চল।

এখানে বলে রাখি, এই ঢাকা শহরেরই জিন্দাবাহার লেনে ঋত্বিক ঘটকের জন্ম। বাবা ছিলেন ইন্ডিয়ান সিভিল সার্ভিসের ডাকসাইটে আমলা। তাঁরা নাটোরের মহারানির বংশধর। দেশ বিভাগের পর প্রায় নিঃস্ব অবস্থায় কলকাতায় চলে যান। তখন থেকেই তাঁর এক দীর্ঘ সংগ্রামী জীবনের শুরু। এসব কথা আমি শুনেছিলাম ঋত্বিকদারই জবানিতে। আমি জানতাম, দেশ বিভাগ ঋত্বিকদার বুকের একটি স্থায়ী ক্ষত।

ক্যাম্পের বেডরুমে আমি আর ঋত্বিকদা পাশাপাশি বিছানায় শুতাম।

এক রাতে জিজ্ঞেস করলেন, তুই কী করিস?

আমি আমতা-আমতা করে বললাম, গান লিখি।

default-image

তিনি জোরে হেসে উঠে বললেন, গান লেখো হারামজাদা। গান যা লেখার সে তো লিখে চলে গেছে ওই দেড়ে ঠাকুর (রবীন্দ্রনাথকে উনি দেড়ে অর্থাৎ দাড়িওয়ালা ঠাকুর বলতেন), নজরুল, লালন, মির্জা গালিব—এঁরা। তলায় যেটুকুন পড়েছিল, সেটা কুড়িয়ে নিয়ে গেছে প্রণব রায়, গৌরীপ্রসন্ন, পুলক বন্দ্যোপাধ্যায়, শ্যামল গুপ্ত—এঁরা। তুই আর গান লিখে কী করবি? তা ছাড়া গান কোনো কমপ্লিট আর্ট নয়। ফিল্মটা হচ্ছে বিজ্ঞান ও শিল্পের সংমিশ্রণে গড়ে ওঠা কমপ্লিট আর্ট।

মুখ কাঁচুমাচু করে বললাম, আসলে দাদা, ফিল্মটাই হচ্ছে আমার জীবনের প্রথম আকর্ষণ। ভয়ে আপনাকে বলতে পারিনি।

তিনি বললেন, এ নিয়ে পড়াশোনা কিছু করেছিস?

আমি বললাম, খুব সামান্য কিছু পড়েছি। ভালো বইটই এখানে তেমন পাওয়া যায় না।

তিনি প্রশ্রয়ের সুরে বললেন, আগে দেখি তোর জ্ঞান কোন স্তরে আছে। তারপর দেখব কী করা যায়।

সবাই জানে ঋত্বিক ঘটক প্রায়ই অপ্রকৃতিস্থ থাকতেন। ওই অবস্থায়ও তাঁকে জিজ্ঞেস করেছি, দাদা, বলুন তো ভারতবর্ষে শ্রেষ্ঠতম চিত্রনির্মাতা কে?

ঋত্বিকদা উত্তর দিতেন, সত্যজিৎ রায়। ও হচ্ছে চুলের আগা থেকে নখের ডগা পর্যন্ত কমপ্লিট আর্টিস্ট। তবে একটু দরজি টাইপ আরকি। খুব মেপে মেপে কাটে।

মাঝেমধ্যে বলতেন, আমার জন্মস্থান জিন্দাবাহার লেনে নিয়ে চল।

আমার হেফাজতে অনেক গাড়ি ছিল। তারই একটা রেডি করে বলতাম, আসুন দাদা।

কোমরে তোয়ালে প্যাঁচানো অবস্থায় বাইরে এসে গাড়িতে একটা লাথি দিয়ে বলতেন, এটা কে আনতে বলেছে! ঘোড়ার গাড়ি আন!

কিন্তু ঘোড়ার গাড়ি আমি কোথায় পাব? এভাবে কোনো দিনই আর তাঁকে ঘোড়ার গাড়িতে জিন্দাবাহার লেনে নিয়ে যাওয়া হয়নি।

নানান ছোট ছোট ঘটনার মধ্য দিয়ে এক মাস পার হয়ে গেল। সময় হয়ে এল ঋত্বিকদার কলকাতা ফিরে যাওয়ার। আমার নিজের একটা ফক্সওয়াগন ছিল। ওটাতে ঋত্বিকদাকে নিয়ে তাঁর তারুণ্যের রাজশাহী হয়ে ফারাক্কা বাঁধ পার হয়ে সাড়ে চার শ মাইল ঘুরে আমরা কলকাতায় গেলাম। সহযাত্রী ছিল মুক্তিযোদ্ধা সেবক।

ওখানে গিয়ে কাটল আরও এক মাস। ওখানকার চলচ্চিত্র জগতের অনেক কিছু দেখালেন ঋত্বিকদা। তিনি চেয়েছিলেন আমাকে ভারতের পুনে ফিল্ম ইনস্টিটিউটে ভর্তি করতে। চেয়েছিলেন আমি যেন তাঁর যুক্তি তক্কো আর গপ্পো ছবিতে অভিনয় করি। সেসব কিছুই আর হয়নি। আসলে ঋত্বিকদার সঙ্গে আমার জীবনটা এমনভাবে জড়িয়ে গিয়েছিল যে এক পর্বে সে কাহিনি শেষ হওয়ার নয়। ঋত্বিক প্রসঙ্গ তবে আজ এই পর্যন্তই থাক।

রাশি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন