এখন বাজারে তিন ধরনের আলোর দেখা মেলে—উজ্জ্বল সাদা, সাদা ও হলুদের মিশ্রণ এবং হলদে আলো। প্রয়োজন বুঝে ঘরে এই আলোর সমন্বয় করা যেতে পারে।

প্রাকৃতিক আলোর ক্ষেত্রেও লক্ষ করলে দেখা যায়, দিনের প্রথম অংশের আলো উজ্জ্বল সাদা হয় এবং বিকেলের পর থেকে হলুদাভ হতে শুরু করে। আর তাই প্রকৃতিগতভাবেই উজ্জ্বল সাদা আলো আমাদের উজ্জীবিত করে এবং কর্মক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। উষ্ণ বা হলুদ আলো আমাদের বিশ্রামের সময় প্রশান্তি দেয়। তাই পড়ার টেবিল, রান্নাঘর প্রভৃতি কাজের জায়গায় সাদা আলো ব্যবহার করা ভালো। খেয়াল রাখা উচিত টেবিলের বা রান্নাঘরের কাউন্টারের ওপর যাতে আলো যথাযথভাবে পড়ে।

default-image

আবার খাবার ঘর বা বসার ঘরে দুই ধরনের আলোই রাখতে পারেন। বসার ঘরে দেয়ালের আলোর পাশাপাশি সিলিং থেকেও ঝাড়বাতি ঝোলানো যায়, আবার এককোণে ফ্লোর ল্যাম্প রাখা যায়। সোফার পাশের টেবিলে দিতে পারেন টেবিল ল্যাম্প। তাহলে প্রয়োজন বুঝে নানা রকম আলোর ব্যবহারে আনতে পারবেন ভিন্নমাত্রা, যা আপনার অতিথি আপ্যায়নকে করবে আরও আকর্ষণীয়। খাবার টেবিলের ওপর ঝোলাতে পারেন সুদৃশ্য কোনো ঝুলবাতি যা হতে পারে কাপড়, বাঁশ, বেত বা অন্য কোনো প্রাকৃতিক উপাদানের তৈরি।

default-image

শোবার ঘর যদি শুধু বিশ্রামের কাজেই লাগান, তাহলে সেখানে হলদে আলো ব্যবহার করা যায়। হলদে বা উষ্ণ আলো আমাদের স্নায়ুকে প্রশমিত করে, তাই শোবার ঘরে এই আলো ব্যবহার করলে ঘুম ভালো হয়। চাইলে দেয়ালে রাখতে পারেন উজ্জ্বল আলো আর বিছানার পাশের টেবিলে ল্যাম্প।

একই ঘরে কয়েক রকম আলোর উৎস এবং কয়েক ধরনের আলোর ব্যবস্থা রাখলে প্রয়োজন বুঝে বিভিন্ন সময় নানা রকম আলোর প্রয়োগ করা যায়।

default-image

লেখক: স্থপতি ও চেয়ারম্যান, প্রাচ্য সলিউশন্স লিমিটেড।

গৃহসজ্জা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন