default-image
বিজ্ঞাপন

সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কা লেগেছে। করোনায় সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা গাণিতিক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ মহামারিতেও জীবন থেমে থাকছে না। চলছে অফিস-আদালত। করোনার মধ্যেও অফিসের প্রয়োজনে প্রতিদিন বাইরে যেতে হচ্ছে নীলুফার ইয়াসমিনকে।

default-image

করোনা অতিমারির দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে গৃহকর্মী আকলিমা বেগম (ছদ্মনাম) গ্রামের বাড়ি চলে গেছেন। তাই বাসার সব কাজ সামলাতে হচ্ছে চাকরিজীবী নীলুফার ইয়াসমিনকেই। অফিস আর বাসার কাজে দিন শেষে ক্লান্ত নীলুফার ইয়াসমিন। এর মধ্যে আবার কাপড় ধোয়ার ঝামেলা তো আছেই। করোনাভাইরাসমুক্ত করতে প্রতিদিনই কাপড় পরিষ্কার করতে হয়।

চাহিদা বাড়ছে

বেশির ভাগ মানুষ মনে করে, ওয়াশিং মেশিনের দাম অনেক বেশি। আর ওয়াশিং মেশিন ব্যবহার করলে বিদ্যুৎ বিল অনেক বেশি আসে। কিন্তু এ ধারণা ভুল প্রমাণ করেছে স্যামসাং। তুলনামূলকভাবে ওয়াশিং মেশিনের চাহিদা ক্রেতাদের মধ্যে বেশিই ছিল। করোনা অতিমারিকালে সেটা আরও বেশি বেড়েছে। আর যাঁরা চাকরির করেন, তাঁদের তো কথাই নেই। করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে হলে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে। অফিস থেকে এসে অনেক সময় ধরে আদি পদ্ধতিতে কাপড় ধোয়ার সময় অনেকেই পান না। তাই ভরসার নাম ওয়াশিং মেশিন। কারণ, ওয়াশিং মেশিন অল্প সময়ে অনেক কাপড় পরিষ্কার করা যায়।

default-image

দেখেশুনে কিনছেন ক্রেতারা

স্যামসাংয়ের ওয়াশিং মেশিনের ডিজাইন আকর্ষণীয় আর উন্নত মানের। ফলে এটাই ক্রেতাদের প্রথম পছন্দ। সাশ্রয়ী দাম, উচ্চ মান ও কিস্তি–সুবিধা রয়েছে যে ওয়াশিং মেশিনে, সেগুলো বেশি ভালো চলছে। বাজারের পাওয়া যায় এমন ওয়াশিং মেশিনের প্রচলিত সব সুবিধা দেখে ক্রেতারা ওয়াশিং মেশিন কিনে থাকেন। ওয়াশিং মেশিন রাখার জায়গা ও কাপড় ধোয়ার সময় ভারসাম্য ঠিক আছে কি না বা অ্যালার্ম বেজে ওঠাসহ খুঁটিনাটি বিভিন্ন বিষয় দেখেন ক্রেতারা। ওয়াশিং মেশিনের বিক্রয়োত্তর সেবা কত বছর দেয়, সেটিও তাঁরা দেখে থাকেন। স্যামসাংয়ের ওয়াশিং মেশিনের বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে, যা অন্য কোনো ওয়াশিং মেশিনে নেই। যেমন:

অ্যাড ওয়াশ: মেশিনের সাইকেল রান হচ্ছে। হঠাৎ করে মনে হলো কোনো একটা কাপড় দেওয়া হয়নি! তাহলে কী করবেন? কাপড় ধোয়ার সময় নতুন কাপড় যুক্ত করার সুবিধা নিয়ে এসেছে স্যামসাং ওয়াশিং মেশিন। এ পদ্ধতি বা অ্যাড ওয়াশ সুবিধা ব্যবহার করে আপনি কাপড় ধোয়ার সময় নতুন কাপড় ধোয়ার জন্য দিতে পারবেন। একই সঙ্গে ডিটারজেন্ট অ্যাড করতে পারছেন। এ সুবিধা অন্য কোনো ওয়াশিং মেশিনে পাওয়া যাবে না।

ডায়মন্ড গ্রাম: অনেক সময় কাপড় ওয়াশিং মেশিনে পরিষ্কার করার সময় ছিঁড়ে যাওয়া, ফেঁসে যাওয়া, রং উঠে যাওয়াসহ অনেক সমস্যা হয়। এ নিয়ে অনেকেই চিন্তায় থাকেন। প্রিয় পোশাকটি নষ্ট করতে চায় না কেউ। কিন্তু স্যামসাংয়ের ওয়াশিং মেশিনে ডায়মন্ড গ্রাম প্রযুক্তির ফলে আপনার কাপড় থাকবে নতুনের মতোই এবং কাপড়ের কোনো ক্ষতি হবে না।

স্কিন ওয়াশ: করোনা অতিমারিকালে ঘরের বাইরে গেলে পোশাকে ভাইরাসের ড্রপলেট লেগে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। সাধারণ পদ্ধতিতে কাপড় পরিষ্কার করলে অনেক সময় এ ভাইরাস থেকেই যায়। কিন্তু স্যামসাং ওয়াশিং মেশিনের স্কিন ওয়াশের মাধ্যমে কাপড় পরিষ্কার করলে কোনো ভাইরাস বা জীবাণু থাকে না। এর ফলে কাপড়ে ব্যাকটেরিয়া বা কোভিডের জীবাণু মুক্ত করা যায় নিমেষেই।

বিজ্ঞাপন

কোথায় পাবেন

ফেয়ার ডিস্ট্রিবিউশন লিমিটেড (এফডিএল), ট্রান্সকম ইলেকট্রনিকস লিমিটেড, র‌্যাংগস ইলেকট্রনিক্স, ইলেক্ট্রাতে ওয়াশিং মেশিন পাওয়া যায়। করোনার কারণে আপনি ঘরে বসেও অনলাইনে প্রতিষ্ঠানগুলোর ওয়েবসাইটে গিয়ে অর্ডার করতে পারবেন।

গৃহসজ্জা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন