default-image

অন্দরসজ্জার এমন আয়োজন সম্পর্কে আসবাব প্রতিষ্ঠান হাতিলের ইন্টেরিয়র আর্কিটেক্ট রায়হান প্রামাণিক বলছিলেন, বাড়িটির পশ্চিমমুখে বিশাল লেক। ঘর থেকেই যাতে এই লেকের সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়, অন্দরসজ্জার সময় এই বিষয়কে বিশেষভাবে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি প্রকৃতির কাছাকাছি আছি, এই বোধটাও যেন পুরো বাসাজুড়েই থাকে, এই বিষয়ও মাথায় রাখা হয়েছে। আলোবাতাস যেন ঘরে খুব সহজেই ঢুকতে পারে, অন্দরসজ্জায় এই বিষয়ের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে বেশি। খুব ভারী আসবাবের ব্যবহার তাই এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে।

default-image

বাসাটির সদর দরজা পার হলেই খাবার ঘর। এই ঘরের খাবার টেবিলটির নকশা একেবারেই সাদামাটা। কাঠের ওপর গ্রানাইটের টপ ব্যবহার করা হয়েছে। চেয়ারের নকশাগুলোও ছিমছাম। খাবার ঘর লাগোয়া ওপেন কিচেনটিতে চাইলে চটজলদি নাশতা সারা যায়। বসার ঘরে সোফা কাম বিছানার মতো বহুমুখী আসবাবের ব্যবহার করা হয়েছে। এই ধরনের আসবাব ব্যবহারের কারণ সম্পর্কে রায়হান বললেন, এই ধরনের বহুমুখী আসবাব জায়গা বাঁচাতে বেশ কার্যকর। যখন আড্ডা দেওয়ার মানুষের সংখ্যা বেড়ে যায়, তখন ডিভানের ওপরের অংশ নামিয়ে বিছানার আদল দেওয়া যায়। একইরকমভাবে ঘরে হালকা নকশার মোড়ার ব্যবহার করা হয়েছে। মোড়ার ওপর কাঠের প্লেটে রাখা হয়েছে অন্দর উপযোগী গাছ। যাতে ঘরজুড়ে খেলা করে প্রকৃতির ছোঁয়া। বারান্দার গ্লাস দরজার সামনে রাখা দুটি চেয়ারের নকশা নজর কাড়বে। এই ঘরের এক অংশে লাল ইটের দেয়াল রাখা হয়েছে। চেয়ারের সিটের কমলা আর ইটের দেওয়ালের লাল ঘরে এনেছে একধরনের মায়াবী আবহ।

গৃহসজ্জা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন