চকলেট কেকের গল্প

চকলেট কেক খেতে ভালোবাসে না, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। আমেরিকাসহ পশ্চিমা দেশগুলোতে চকলেট কেক সর্বাধিক জনপ্রিয় ডেজার্ট। সেখানে ছেলে–বুড়ো সবাই সকাল, বিকেল, রাত বা দিনের যেকোনো সময়ে চকলেট কেকের স্বাদ উপভোগ করতে সদা প্রস্তুত। মজার ব্যাপার হলো আমাদের দেশেও কিন্তু বর্তমান সময়ে পিঠাপুলি–পায়েসের সঙ্গে পায়ে পা মিলিয়ে জোরকদমে এগিয়ে গেছে কেকের প্রতি মানুষের অসীম আগ্রহ আর ভালোবাসা। আর এখানেও কেকের জগতে শীর্ষ অবস্থানটি কিন্তু বিভিন্ন রকমের চকলেট কেকেরই।

default-image

সেই ষাটের দশক থেকেই বাংলাদেশের অনেক ঘরে ঘরোয়া একধরনের ওভেনে কেক বিস্কুট বানানো হতো। তবে দেশে চকলেট কেক বানানোর কোকো পাউডার বা চকলেট এত সহজে পাওয়া যেত না সে সময়। তখনকার ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলসহ বড় বড় হোটেলে অবশ্য অত্যন্ত উপাদেয় ক্রিম কেক তৈরি হতো, যা এখনো হয়। কিন্তু তা সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে ছিল। সত্তর-আশির দশকে ইউসুফ বেকারি, আনন্দ কনফেকশনারির প্লেন চকলেট পাউন্ড কেক আর চকলেট ফ্রুট কেক সবার কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠল। এরপরে হোটেল গোল্ডেন গেট (জিজি), মেমোরি কনফেকশনারি, সুইস বেকারিসহ ঢাকার আরও কিছু স্থানে চকলেট ফ্লেভারের ক্রিম কেক ও পেস্ট্রি কেক সবার মন জয় করে নিল।

বিজ্ঞাপন

এরপর সুমিষ্ট হটকেকের হাত ধরে সেই যে আন্তর্জাতিক মানের বিভিন্ন চকলেট কেক, বিশেষত ব্ল্যাক ফরেস্ট কেক সর্বজনীন হয়ে উঠল। এরপর আমাদের দেশে শৌখিন বেকিং শিল্প আর পিছু ফিরে তাকায়নি। এখন তো সব জায়গাতেই ছোট–বড় কনফেকশনারিতে চকলেট কেক পাওয়া যায়। কত কি বাহারি নাম সেগুলোর! বিভিন্ন বিখ্যাত আন্তর্জাতিক রেসিপির সাহায্যে ঘরেই এখন অনেকে চকলেট কেক বানান, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেসবের ছবিও শেয়ার করেন সবার সঙ্গে। অনেকে তো স্বল্প বা বৃহৎ পরিসরে ঘরে বসেই বেকিংয়ের ব্যবসায়িক উদ্যোগ গড়ে তুলেছেন। তবে সবখানেই এত ধরনের কেকের ভিড়ে চকলেট কেকই সবচেয়ে আকর্ষণীয় সবার কাছে।

default-image

এই চকলেট কেকের ইতিহাস কিন্তু কম লম্বা নয়। সে–ও ১৮৪৭ সালে এলিজা লেজলি নামের একজন মার্কিন নারী তাঁর রান্নার বইতে ঠিকঠাক রকমের একটি চকলেট কেকের রেসিপি দেন। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে, তিনি এই কেকে কোকো পাউডারের বদলে চকলেটের টুকরা ব্যবহার করেছিলেন। পরবর্তী সময়ে চকলেট কেক নিয়ে বেকিং এক্সপার্টরা অনেক পরীক্ষা–নিরীক্ষা করতে লাগলেন। ১৯২০ সালের দিকে এখনকার মতো ক্ল্যাসিক চকলেট কেক সবার কাছে সুপরিচিত হয়ে উঠল। বলা হয়, আমেরিকাতেই চকলেট কেক প্রথম সবার ঘরে ঘরে ছেলে–বুড়ো সবার প্রিয় হয়েছিল। কিন্তু এখন সম্ভবত বিশ্বের এমন কোনো দেশ নেই যেখানে চকলেট কেক খাওয়া হয় না!

পৃথিবীতে এত ধরনের চকলেট কেক আছে যে বলে শেষ করা যাবে না। প্রথমেই বলতে হয় ট্র্যাডিশনাল ক্ল্যাসিক চকলেট কেকের কথা। এতে কোকো পাউডার বা গলানো চকলেট; দুই–ই ব্যবহার করা যায়। পাউন্ড কেক আকারের, গোল বড় আকৃতির বা ছোট মাফিনের সাইজে, যেকোনোভাবে এই কেক সমান সুস্বাদু। চকলেট কেককে মাঝবরাবর কয়েক স্লাইস করে বা কয়েকটি কেক ব্যবহার করে চকলেট স্বাদেরই ক্রিম বা গানাশ, চকলেট সিরাপ, চকলেটের কুচি বা অন্য যেকোনো ফ্লেভারের মাখনের ক্রিম ও অন্যান্য উপাদানসহ পুর দিয়ে স্তরের পর স্তর তৈরি করে অনন্য সব ক্রিম কেক তৈরি করা যায়। এ ধরনের কেকের মধ্যে ফ্রেঞ্চ চকলেট গেচো, অপেরা চকলেট কেক ইত্যাদি খুবই জনপ্রিয়।

default-image

আরেক রকমের চকলেট কেকের কথা না বললেই নয়। সেটি খুব করে ঠেসে চকলেট দিয়ে ভরা ডেভিলস ফুড কেক। তবে তুমুল লোকপ্রিয় আর বহুল প্রচলিত এই বিলাসী চকলেট কেকের নামকরণ নিয়ে আজকাল বেশ বিতর্ক হচ্ছে। কারণ, একই রকম ধবধবে সাদা কেককে বলা হয় অ্যাঞ্জেলস ফুড কেক। ব্ল্যাক ফরেস্ট নামের চকলেট কেকে একটু কড়া ডার্ক চকলেট ব্যবহার করা হয়, আর সেই সঙ্গে দিতে হবে চেরি ফিলিং ও সাজাতেও চেরি ব্যবহৃত হয় এতে। এখন ফ্লাওয়ার লেস বা ময়দা ছাড়া চকলেট কেক খুব জনপ্রিয় হচ্ছে, যাতে চকলেটের স্বাদ একেবারে সর্বোচ্চ রকমের অনুভব করা যায়।

বিজ্ঞাপন

এ ছাড়া চকলেট লাভা কেকও খুব জনপ্রিয় বর্তমান সময়ে। এই কেক কাটলেই মাঝের তরল, গলানো চকলেট বেরিয়ে আসে লাভারই মতো। ব্রাউনি কেকের কথা না বললে চকলেট কেকের গল্প অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। চকলেট ব্রাউনিতে সাধারণ চকলেট কেকের চেয়ে বেশি চকলেট ব্যবহার করা হয়। ফুলে ওঠার উপাদান বা লিভেনিং এজেন্ট ব্যবহার হয় না বলে ব্রাউনি সাধারণ কেকের মতো তুলতুলে পেঁজা ভাবের না হয়ে এর ঘনত্ব একটু বেশি হয়। আর এমনিতে চকলেট কেকের সঙ্গে বিভিন্ন তাজা ফল, বাদাম, নারকেল, শুকনো ফলের মিশেলে পুরো পৃথিবীতে অসংখ্য রকমের চকলেট কেক বানানো হয়ে থাকে।

default-image

আমাদের দেশে এখন কেকের সংস্কৃতি খুবই জোরদার, এ কথা অস্বীকার করার কোনোই উপায় নেই। জন্মদিন, বিবাহবার্ষিকী, নতুন বছর, চাকরির খবর, প্রমোশন, সন্তান আসার সুসংবাদ, পরীক্ষায় ভালো ফল—সব ধরনের খুশি আর আনন্দের সময় এখন আমরা কেক কেটে উদযাপন করতে ভালোবাসি। আর কেক বলতে বেশির ভাগ মানুষের কাছেই প্রথম পছন্দ চকলেট কেক। এখন কেক বানানোর ওভেন, প্রয়োজনীয় উপকরণ, কেক সাজানোর সরঞ্জাম অনেকটাই সহজলভ্য আর তুলনামূলকভাবে সুলভ আমাদের দেশে। তাই দোকান থেকে না কিনে বাড়িতেই এখন তৈরি করে নেওয়া যায় সবার প্রিয় বিভিন্ন ধরনের চকলেট কেক।

রসনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন