বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যা যা লাগবে

৩০০ গ্রাম লাউশাক, আধা চা–চামচ কালিজিরা, লবণ পরিমাণমতো, দুই টেবিল চামচ সয়াবিন তেল (দেবযানী ঘোষ অবশ্য সূর্যমুখী তেলে রান্নাটা করেছিলেন। তাঁদের বাড়িতে সূর্যমুখী তেলে রান্না হয়), চারটি শুকনা মরিচ, দুই পোয়া দুধ, আধা কাপ দুধের সর, আধা কাপ চালের গুঁড়া, পাঁচ-সাতটি ডালের বড়ি ও দুই চা–চামচ চিনি।

default-image

যেভাবে রান্না করবেন

প্রথমে হালকা আঁচে বড়িগুলো লাল করে ভেজে নিন। আমি বড়িগুলো ভেজে পাটার ওপর রেখে নোড়া দিয়ে আলতো আঘাতে ভেঙে নিয়েছি। এমনভাবে ভেঙেছি, যাতে একটা বড়ি তিন থেকে চার খণ্ড হয়। এরপর কড়াইয়ে তেল নিয়ে তেল গরম হলে তাতে আধা চা–চামচ পরিমাণ কালিজিরা আর চারটা শুকনা মরিচ ছেড়ে দিন। আগে বেছে কেটে ধুয়ে রাখা শাক ও শাকের নরম ডাঁটা দিন। পরিমাণমতো লবণ ছিটিয়ে দিন।

default-image

শাক পানি ছাড়বে। সেটা শুকিয়ে এলে দুধ, বড়ি দিয়ে ঢেকে দিন। আমি তিন পোয়া দুধ কমিয়ে দুই পোয়া করে রেখেছিলাম। দুধ ঢেলে আঁচ কমিয়ে দিন। ঝোলটা কমে এলে এক কাপ দুধ, আধা কাপ পানি আর আধা কাপ চালের গুঁড়ার মিশ্রণ ঢেলে দিন। সর যোগ করুন। ঝোলটা মাখো মাখো হয়ে এলে দুই চা–চামচ চিনি ছিটিয়ে দিন। আরও পাঁচ মিনিট দমে রাখুন। নামিয়ে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন। মরিচ কম খেলে চারটার জায়গায় দুটি শুকনা মরিচ ব্যবহার করুন। কেননা, নাড়াচাড়ায় আস্ত শুকনা মরিচ ভেঙে ঝালটা বেরিয়ে পড়ে। তখন মুখে একটু ঝালঝাল লাগতে পারে।

default-image

দেবযানী ঘোষ জানিয়েছিলেন, এ রেসিপিতে গাজর, শিম, ফুলকপিও ছোট ছোট করে কেটে দেওয়া যেতে পারে। আর কেউ যদি দুধের সর না খায় বা সর পাওয়া না যায়, সে ক্ষেত্রে এ রান্নায় ক্রিম ব্যবহার করা যেতে পারে। ক্রিম বাজারে কিনতে পাওয়া যাবে।

রসনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন