উপকরণ: লাউপাতা, ছয়টি কই মাছ, পেঁয়াজকুচি, আধা কাপ শর্ষের তেল, আধা চা–চামচ করে আদা ও রসুনবাটা, হলুদ, ধনে ও জিরাগুঁড়া (আধা চা চামচ), মরিচের গুঁড়া (এক চা–চামচ), কাঁচা মরিচ ফালি (৭-৮টি), লবণ ও এক টেবিল চামচ শর্ষেবাটা।
‘সবকিছু তো সাধ্যের মধ্যেই ছিল। শর্ষেবাটার কথা বলেই তো ঝামেলায় ফেললেন।’

default-image


ঢাকা থেকে রোজিনা বলেন, ‘শর্ষেবাটা তৈরি করা খুবই সহজ। শর্ষে ও একটু পানি দিয়ে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে ফেলবেন। কাজটা আমার স্বামী করে দেবে। যত্ন করে রান্না করবেন। একটা ডিমভাজিও যত্ন ছাড়া মজা লাগে না। রান্না শুরু করেন। আমিও রান্না করব আপনাদের সঙ্গে। লাউপাতা ও কই মাছগুলো ভালো করে ধুয়ে একটি পাত্রে রেখে দিন। মসলাগুলো যাতে ভালোভাবে মাছের ভেতর ঢুকতে পারে, তার জন্য মাছের এপিঠ–ওপিঠ—দুই পাশে একটু হালকা চিরে নিতে হবে।’

default-image

‘এখন কি কড়াই গরম করব?’
রোজিনা হেসে বলেন, ‘কড়াই গরম করবেন। তবে আধা ঘণ্টা পর।’
‘এখন কী করব তাহলে?’
‘কাঁচা মরিচ ছাড়া তেল-পেঁয়াজ এবং অন্য যত মসলা আছে, সব ভালো করে হাত দিয়ে মিশিয়ে নিন। মাছগুলো এবার এই মসলা দিয়ে ভালো করে মাখিয়ে আধা ঘণ্টা ঢেকে রাখুন। আধা ঘণ্টা পরে ৬টি আস্ত লাউপাতার ভেতরে মসলাসহ কই মাছ ফালি করে কাটা কাঁচা মরিচসহ সুতা দিয়ে বেঁধে দিতে হবে। তারপর চুলায় কড়াই বসাবেন।’
‘তেল তো সব মসলার সঙ্গে মিশিয়েছি। কড়াইয়ে কি নতুন করে তেল দিতে হবে?’
‘কোনো তেল দিতে হবে না আর। আপনি দুই কাপ পানি দিন। পানি ফুটে উঠলে লাউপাতায় বেঁধে রাখা কই মাছগুলো ফুটন্ত পানির ভেতর ছেড়ে দিন।’

default-image

‘দেশে তেলের দাম বাড়ার কারণে পানি দিয়ে রান্না করছেন নাকি?’
রোজিনা বললেন, ‘আরে না। এটা আমাদের খুলনার ঐতিহ্যবাহী একটি রান্না। এবার মিডিয়াম আঁচে ঢাকনা দিয়ে ২০ থেকে ২৫ মিনিট জ্বাল দিন। পানি শুকানো পর্যন্ত জাল দিতে থাকুন। মাঝে একবার কই মাছগুলো উল্টে দিতে হবে। পানি শুকানো হয়ে গেলে রান্না শেষ! এবার হালকা ঠান্ডা করে গরম ভাতের সঙ্গে খেতে পারেন। সুতা নিজে খুলে পরিবেশন করতে পারেন অথবা যিনি খাবেন, তিনি সুতা খুলেও খেতে পারেন।’
রান্না শেষে রোজিনা আপুকে বলি, ‘এই রান্না তো দেখি অন্য রান্নার চেয়েও সহজ।’
এমন মজার স্বাদ লিখে বর্ণনা করা যাবে না। রেসিপি দিয়ে দিলাম। নিজে রান্নার চেষ্টা করে দেখুন, তখনই বুঝতে পারবেন, এর স্বাদ অনন্য।

default-image
রসনা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন