৩. বাক্সে লুকিয়ে পড়া
বিড়াল বাক্স বা ছোট কোনো জায়গায় ঢুকে থাকতে পছন্দ করে। বাসায় কোনো নতুন বাক্স আনলে বা বাক্স পড়ে থাকলে বিড়ালকে সেটির ভেতরে খুঁজে পাবেন। এ ছাড়া বাসায় নতুন কারও আনাগোনা দেখলে নিজেদের তারা নিরাপদ মনে করে না। তাই ঘরের কোনায় বা ছোট জায়গায় লুকিয়ে থাকতে চায়।

default-image

৪. ঝাঁকুনি দেওয়া
ঘুম থেকে ওঠার কিছুক্ষণ পর রেশ কাটানোর জন্য অনেক বিড়াল ঝাঁকুনি দেয়। আমরা যেমন আড়মোড়া ভাঙি আর কি! তবে যখন ভয় পায় কিংবা অস্বস্তিকর অবস্থায় থাকে, তখনো তারা ঝাঁকুনি দেয়।

৫. একনাগাড়ে তাকিয়ে থাকা
কোনো কিছু দেখে ভয় পেলে বিড়াল সেটার দিকে একনাগাড়ে তাকিয়ে থাকে। মাঝেমধ্যে বাসায় নতুন কাউকে দেখলে তাঁর দিকে শান্তভাবে তাকিয়ে থাকে। আর নতুন মানুষটি হুট করে বিড়ালটিকে আদর করতে চাইলে পালিয়ে যাবে।

৬. ঘুরঘুর করতে থাকলে
আপনার পোষা প্রাণী লেজ নাড়ছে আর আপনার চারপাশে ঘুরছে, এটা দেখে ভালো লাগা স্বাভাবিক। সাধারণত তারা মাঝেমধ্যে এটা করে আপনার সঙ্গে সখ্য বাড়াতে চায়।

৭. মা বিড়ালদের কিছু আচরণ
যখন মা বিড়াল বাচ্চা দেয় তখন সেই বাচ্চার আশপাশে কাউকে সে যেতে দেয় না। এ সময় তারা কামড় দেয় বা অসামঞ্জস্যপূর্ণ আচরণ করে।

default-image

৮. চোখ দেখে মুড বুঝুন
বিড়ালের আরও একটি ইতিবাচক আচরণ হলো, ধীরে ধীরে চোখের পলক ফেলা। খোলা চোখ, ধীরে পলক ফেলা একটি বিড়াল মানেই সে সুখী। মানসিকভাবে প্রশান্তিতে আছে। অথচ পলক না ফেলে সরাসরি তাকিয়ে থাকা বিড়াল ভয় পান অনেকে।

৯. ঘ্রাণ নেওয়া
ঘ্রাণ নিলে অথবা বিড়াল আপনার শরীরে বা কোনো বস্তুর ওপর মাথা ঘষলে বুঝে নিন এটি তাদের ভালোবাসার প্রকাশ। বিড়াল এভাবে গন্ধ ছড়িয়ে নিজের প্রিয় অঞ্চল চিহ্নিত করে থাকে। বিড়াল চেটে বা বিভিন্ন জায়গায় আঁচড় কেটেও নিজের এলাকা চিহ্নিত করে।

সম্পর্ক থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন