default-image
বিজ্ঞাপন

মহামারি করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে নিজেকে রাখতে হবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। এ জন্য প্রতিদিনই নিজেকে ও কাপড় ভালোভাবে পরিষ্কার করতে হবে। কিন্তু কাপড় কাচা, ধোয়া এবং শুকানো অনেকের কাছেই বেশ বিরক্তিকর। সময়সাপেক্ষও বটে। করোনা মহামারিতে ঝামেলাহীন ঝটপট কাপড় ধোয়া ও শুকানোর জন্য চাহিদা বাড়ছে ওয়াশিং মেশিনের।

default-image

বাজারে আছে নানা মাপের, দামের ও ব্র্যান্ডের ওয়াশিং মেশিন। কিন্তু বাজারে নানা ব্র্যান্ডের ওয়াশিং মেশিনের ভিড়ে সবচেয়ে ভালো ওয়াশিং মেশিন কোনটি? কোন ওয়াশিং মেশিনটি আপনার জন্য উপযুক্ত—এ নিয়ে বেশির ভাগ ক্রেতাই চিন্তায় থাকেন। যাঁরা নতুন ওয়াশিং মেশিন কিনবেন বা কী কী সুবিধা থাকলে ওয়াশিং মেশিন কিনবেন, তা নিয়েই এবারের আলোচনা।

স্যামসাং ওয়াশিং মেশিনের সুবিধা

স্যামসাং ওয়াশিং মেশিনে কাপড় আরও বেশি পরিষ্কার ও করোনাভাইরাসমুক্ত রাখতে বিভিন্ন প্রযুক্তিগত সুবিধা রয়েছে, যা অন্য কোনো ওয়াশিং মেশিনে ব্যবহার করা হয়নি। এর মধ্যে অন্যতম হলো অ্যাড ওয়াশ। এ প্রযুক্তিগত সুবিধার মাধ্যমে মেশিন যখন কাপড় ধোয়া শুরু করে, তখন আপনার হঠাৎ মনে হলো কোনো একটা কাপড় পরিষ্কার করতে দেওয়া হয়নি। স্যামসাং ওয়াশিং মেশিনে কাপড় ধোয়ার সময় নতুন কাপড় যুক্ত করার সুবিধা রয়েছে। এ পদ্ধতি বা অ্যাড ওয়াশ সুবিধা ব্যবহার করে আপনি কাপড় ধোয়ার সময় নতুন কাপড় যুক্ত করতে পারবেন। একই সঙ্গে ডিটারজেন্ট অ্যাড করতে পারছেন। এ সুবিধা অন্য কোনো ওয়াশিং মেশিনে পাওয়া যাবে না।

default-image

অনেক সময় কাপড় ওয়াশিং মেশিনের পরিষ্কার করতে গেলে ছিঁড়ে যায়, ফসকে যায়। এ নিয়ে চিন্তা থাকে অনেকের। প্রিয় পোশাকটি নষ্ট করতে চান না কেউই। এ থেকে সমাধান হতে স্যামসাংয়ের ওয়াশিং মেশিনে ব্যবহার করা হয়েছে ডায়মন্ড গ্রাম প্রযুক্তি। ফলে কাপড়ের কোনো ক্ষতি হবে না।

default-image

স্যামসাং ওয়াশিং মেশিনের আরও একটি যুগান্তকারী সুবিধা হলো স্টিম ওয়াশ। করোনা মহামারির মধ্যে ঘরের বাইরে গেলে পোশাকে ভাইরাস সংক্রমিত হয়। কিন্তু সাধারণ পদ্ধতিতে কাপড় পরিষ্কার করলে অনেক সময় ভাইরাস থেকেই যায়। কিন্তু স্যামসাং ওয়াশিং মেশিনের স্টিম ওয়াশের মাধ্যমে কাপড় পরিষ্কার করলে কোনো ভাইরাস বা জীবাণু থাকে না। ফলে কাপড়ে থাকা ৯৯.৯ শতাংশ পর্যন্ত ব্যাকটেরিয়া সহজেই দূর করা সম্ভব হয়।

বিজ্ঞাপন

সেরা মান

হোম অ্যাপ্লায়েন্স ওয়াশিং মেশিন তৈরিতে স্যামসাং বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে থাকে। পুরোনো ধারণা বদলে গিয়ে এখন ওয়াশিং মেশিন হয়ে উঠেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় ইলেকট্রনিক পণ্যে। বাসাবাড়িতে কাপড় ধোয়ার মতো কষ্টের কাজ একনিমেষেই সম্পন্ন করতে ওয়াশিং মেশিনের বিকল্প নেই। এ ক্ষেত্রে স্যামসাংয়ের রয়েছে বিভিন্ন ক্যাটাগরির ওয়াশিং মেশিন, যেগুলো বাংলাদেশের বাজারে প্রশংসনীয় জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। বাজারে তিন ধরনের ওয়াশিং মেশিন রয়েছে। এগুলো হলো অটোমেটিক, সেমি অটোমেটিক ও ম্যানুয়াল। বৈশিষ্ট্যের দিক থেকে সব ওয়াশিং মেশিন আবার দুই ধরনের—টপ লোডিং ও ফ্রন্ট লোডিং। অটোমেটিক মেশিন কাপড় ধোয়ার সময় প্রয়োজন অনুযায়ী পানি নিজেই নিয়ে নেয়। ধোয়া শেষে পানি ঝরিয়ে কাপড় শুকিয়ে দেয়। সেমি অটোমেটিক মেশিনে কাপড় ধোয়ার সময় ব্যবহারকারীকে নির্দিষ্ট পরিমাণ পানি দিতে হয়। এই মেশিনও কাপড় ধোয়ার পর পানি ঝরিয়ে শুকিয়ে দেয়।

default-image

অটোমেটিক মেশিনে কাপড় ধোয়া সহজ। কাপড় দিয়ে স্টার্ট বাটনটি চাপলেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে কাপড়ের পরিমাণ অনুযায়ী পানি নিয়ে ধোয়ার কাজ শুরু করে। কাপড় শুকিয়েও যায়। কাজ শেষ হলে যন্ত্রটি থেমে যায়। অন্যদিকে সেমি অটোমেটিক ও ম্যানুয়াল ওয়াশিং মেশিন ব্যবহারকারীকে নির্দিষ্ট বাটন চেপে নির্দেশনা দিতে হয়। সব ধরনের অটোমেটিক ও সেমি অটোমেটিক ওয়াশিং মেশিনে কাপড় শুকানোর সুবিধা রয়েছে। অটোমেটিক মেশিন সিঙ্গেল টাবের। তাই কাপড় ধোয়ার পর নিজেই শুকিয়ে দেয়। আর সেমি অটোমেটিক মেশিন ডাবল টাবের। এর একটি কাপড় ধোয়ার জন্য। অন্যটি শুকানোর জন্য। বাজারের অন্যান্য ওয়াশিং মেশিনের প্রচলিত সব সুবিধার বাইরেও অটোমেটিক ওয়াশিং মেশিনের বেশ কিছু বিশেষ সুবিধা আছে, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো এর অটো ব্যালান্স ফাংশন, যা অ্যালার্মের মাধ্যমে ভারসাম্য ঠিক করার জন্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্যবহারকারীকে নির্দেশনা দেয়। অটোমেটিক ওয়াশিং মেশিনে আছে ফাজি লজিক সুবিধা। অর্থাৎ কাপড়ের পরিমাণ অনুযায়ী কতটুকু পানি লাগবে, কত সময় ধরে চলতে হবে ইত্যাদি বিষয়গুলো নিজেই সেট করে নেয়। এতে আছে কুইক ওয়াশ ফিচার অপশন। ব্যবহারকারীর সময়স্বল্পতা থাকলে তিনি কুইক ওয়াশ ফিচার ব্যবহার করতে পারেন। এর মাধ্যমে স্বাভাবিকের চেয়ে অর্ধেক সময়ে কাপড় পরিষ্কার হয়।

স্যামসাং ওয়াশিং মেশিনে রয়েছে ইকো বাবল টেকনোলজি। এই প্রযুক্তির মাধ্যমে কাপড়ের গুণগত মান অক্ষুণ্ন রাখা ও বিদ্যুৎসাশ্রয়ী সুবিধা একই সঙ্গে পাওয়া যাবে। আপনার পছন্দরে ডিটারজেন্টকে ফেনায় পরিণত করে ফেব্রিকের কোনো ক্ষতি না করেই খুব সহজেই কাপড়ের কঠিন ময়লা দূর করতে সক্ষম হয়। ফলে আপনার পছন্দের কাপড়ের মান অক্ষুণ্ন থাকবে অনেক দিন।

দরদাম

default-image

অনেকের মধ্যেই একটি ধারণা রয়েছে, ওয়াশিং মেশিনের দাম অনেক বেশি। আপনার বাজেটের মধ্যে এখন ভালো মানের ওয়াশিং মেশিন পাওয়া যাচ্ছে। বর্তমানে স্যামসাং ওয়াশিং মেশিনে অফার চলছে। ২৪ হাজার ৯০০ টাকা থেকে স্যামসাং ওয়াশিং মেশিনের দাম শুরু। স্যামসাং ওয়াশিং মেশিনে রয়েছে ফ্রি ইনস্টলেশন সুবিধা এবং বিশেষ উপলক্ষে থাকে ডিসকাউন্ট অফার। ডাউন পেমেন্ট দিয়ে সব ধরনের ওয়াশিং মেশিন কিস্তিতে কেনার সুযোগ রয়েছ। ওয়াশিং মেশিনের বিভিন্ন মেয়াদে ওয়ারেন্টি দিচ্ছে স্যামসাং। বিক্রয়োত্তর সেবায় নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত হোম সার্ভিস দেওয়া হয়।

কেনাকাটা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন