২. ওয়াইড ভোল্টেজ ডিজাইন

ওয়ালটন ফ্রিজে ব্যবহৃত হচ্ছে ওয়াইড ভোল্টেজ ডিজাইন, যা বিদ্যুতের ভোল্টেজ ওঠানামার কারণে যেকোনো প্রতিকূল পরিস্থিতি থেকে ফ্রিজকে রক্ষা করে। তাই আলাদা করে ভোল্টেজ স্ট্যাবিলাইজার ব্যবহারের প্রয়োজন পড়ে না।

৩. এআই এবং স্মার্ট কন্ট্রোল

প্রযুক্তি নিয়ে নিরন্তর গবেষণায় ওয়ালটন ফ্রিজে যুক্ত হয়েছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। রয়েছে স্মার্ট কন্ট্রোলযুক্ত ডিজিটাল ডিসপ্লে। ফলে ইন্টারনেটের মাধ্যমে সহজেই ওয়ালটন ফ্রিজ নিয়ন্ত্রণ করা যায়। গৃহস্থালি পণ্যে প্রযুক্তির এক অত্যাধুনিক সংযোজন এটি।

৪. স্বাস্থ্যকর খাবার সংরক্ষণের নিশ্চয়তা

ওয়ালটন ফ্রিজে সংরক্ষিত খাবার থাকে দীর্ঘদিন সতেজ ও স্বাস্থ্যকর। ওয়ালটন ফ্রিজে ব্যবহৃত হচ্ছে ফুড অ্যান্ড ড্রাগস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) অনুমোদিত ভারজিন ম্যাটেরিয়াল। যা খাবারের মান অধিক সময় পর্যন্ত ঠিক রাখে। এর পাশাপাশি সিলভার ক্লিন++ ও ন্যানো হেলথ কেয়ার প্রযুক্তি এবং থ্যালেট ফ্রিজ ডোর গ্যাসকেট ব্যবহার করায় ফ্রিজের ভেতর থাকে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়ামুক্ত। অত্যধিক দ্রুতগতিসম্পন্ন ফাইভ ডিরেকশনাল কুলিং প্রযুক্তি থাকায় ওয়ালটন ফ্রিজ খাবার দ্রুত ঠান্ডা করে।

৫. দুই শতাধিক মডেল ও সাশ্রয়ী দাম

ওয়ালটনের রয়েছে দুই শতাধিক মডেলের রেফ্রিজারেটর, ফ্রিজার ও বেভারেজ কুলার। নান্দনিক ডিজাইনের ফ্রস্ট ও নন–ফ্রস্ট এসব ফ্রিজের দাম মডেলভেদে ১২ হাজার ৯৯০ টাকা থেকে ৯৯ হাজার ৯৯০ টাকার মধ্যে। ফলে গ্রাহকেরা তাঁদের রুচি অনুযায়ী পছন্দসই ডিজাইন, ফিচার ও দামের ফ্রিজ বেছে নিতে পারছেন। নগদ মূল্যের পাশাপাশি ওয়ালটন ফ্রিজ কেনায় রয়েছে সহজ কিস্তি ও ইএমআই সুবিধা।

৬. সর্বোচ্চ গ্যারান্টি-ওয়ারেন্টি

ওয়ালটন ফ্রিজে এক বছরের রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টি রয়েছে। আর কমপ্রেসরের গ্যারান্টির মেয়াদ ১২ বছর। পাশাপাশি পাঁচ বছরের ফ্রি বিক্রয়োত্তর সেবা পাচ্ছেন গ্রাহক। দ্রুত ও সর্বোচ্চ মানের বিক্রয়োত্তর সেবা দিতে সারা দেশে ওয়ালটনের রয়েছে ৭৯টি সার্ভিস পয়েন্ট। পাশাপাশি ২০ হাজারের বেশি সেলস আউটলেট এবং অনলাইন ও কল সেন্টারের মাধ্যমে ক্রেতাদের বিভিন্ন সেবা দিয়ে আসছে ওয়ালটন।

৭. ডিজিটাল ক্যাম্পেইনে দেয়া ক্রেতাসুবিধা

অনলাইন অটোমেশনের মাধ্যমে গ্রাহকদের আরও দ্রুত ও সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবা দিতে দীর্ঘদিন ধরেই সারা দেশে ডিজিটাল ক্যাম্পেইন চালাচ্ছে ওয়ালটন। ডিজিটাল রেজিস্ট্রেশন পদ্ধতিতে ক্রেতার নাম, মুঠোফোন নম্বর, বিক্রি করা পণ্যের মডেল নম্বরসহ বিস্তারিত তথ্য ওয়ালটনের সার্ভারে সংরক্ষণ করা হচ্ছে। ফলে ওয়ারেন্টি কার্ড হারিয়ে গেলেও দেশের যেকোনো ওয়ালটন সার্ভিস সেন্টার থেকে দ্রুততম সময়ে সেবা পাচ্ছেন গ্রাহক। অন্যদিকে গ্রাহকের ফিডব্যাক ও পণ্য সম্পর্কে তথ্য ডিজিটালি সংরক্ষিত হচ্ছে। এ কার্যক্রমে ক্রেতাদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে উদ্বুদ্ধ করতে ক্যাম্পেইনের আওতায় নানা সুবিধা দেওয়া হচ্ছে।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে চলছে ওয়ালটনের ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-১৫। এর আওতায় ঈদ উৎসবে দেশের যেকোনো ওয়ালটন প্লাজা, পরিবেশক শোরুম কিংবা অনলাইনের ই-প্লাজা এবং ওয়ালকার্ট থেকে ফ্রিজ কিনে ক্রেতারা পাচ্ছেন ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত নিশ্চিত ক্যাশব্যাক। রয়েছে কোটি কোটি টাকার ওয়ালটন পণ্য ফ্রি।

ইতিমধ্যে ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে বেশ কয়েকজন ক্রেতার প্রত্যেকে ২০ লাখ টাকা পেয়েছেন। এর আগে নতুন গাড়িসহ বিভিন্ন অঙ্কের টাকা, ফ্রি পণ্য ইত্যাদি পেয়েছেন। এ বিষয়গুলো ওয়ালটন ফ্রিজের বিক্রি বৃদ্ধিতে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছে।

কেনাকাটা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন