বিজ্ঞাপন

একজন বাঁধনের এই ছবির নিচে ফেসবুকে মন্তব্য করেছেন, ‘কান উৎসবে আপনার পরা সব কটি পোশাকের ভেতর এটা একেবারেই আলাদা ও আধুনিকতম। আমাদের দেশের ফ্যাশন ডিজাইনাররাও যে আন্তর্জাতিক মানের, সেই কথাই বলে এই পোশাক। আপনাকে খুব ভালো মানিয়েছে।’

default-image

এদিকে সর্বশেষ বাঁধনকে কানের লালগালিচায় দেখা গেছে সাদাকালো স্ট্রাইপের কোট আর প্যান্টে। সেটি দেশি ব্র্যান্ড জুরহেম থেকে নেওয়া। ডিজাইন করেছেন মেহরুজ মনির। এই পোশাক পরে কানের লালগালিচা থেকে তোলা কয়েকটি ছবি পোস্ট করে বাঁধন লেখেন, ‘আজকের দিনে পরার জন্য এর চেয়ে ভালো কিছু আমি কল্পনাই করতে পারি না। এই পোশাক যেভাবে আমার শরীরে ফিট করে গেছে, যেভাবে আমার ব্যক্তিত্বকে ফুটিয়ে তুলেছে, আমাকে আমি করে তুলেছে—তাতে আমি দারুণ খুশি। ‘আমি স্পেশাল’ আমাকে এমন অনুভব করিয়েছে এই পোশাক। যাঁরা বানিয়েছেন, তাঁদের আমার আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা।’

default-image

প্রতিটা সাজই ‘মিনিম্যালিস্টিক’ আর ‘ক্ল্যাসি’। পোশাকের সঙ্গে বদলেছে লিপিস্টিক, হেয়ার, জুতা আর সানগ্লাস। তবে চোখে কাজলের ব্যবহারে তিনি শতভাগ বাংলাদেশি নারীর পরিচয় দিয়েছেন। পশ্চিমা গাউনের সঙ্গেও চোখভরে কাজল দিয়েছেন। তাতে বেমানান লাগেনি এতটুকু। বরং পোশাকে যে পূর্ব আর পাশ্চাত্যকে বেঁধে ফেলা হয়েছে এক সুতায়, সেটিকেই সমর্থন করেছে তাঁর সাজ।

স্টাইল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন