বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

৩. ভেজা চুল বাঁধলে অনেক ক্ষতি। তাই আগে চুল শুকিয়ে নিন। হেয়ার ড্রায়ার দিয়ে হলেও। ফটোশুট বা অন্য কোনো প্রয়োজনে ওয়েট গ্লসি লুকের জন্য ভালো মানের স্প্রে ব্যবহার করুন।

default-image

৪. চুল স্ট্রেইট করা তো এখন রীতিমতো ট্রেন্ডি। হাতে চুল স্ট্রেট করার মতো টাকা জমলেই নারীরা সবার আগে এটিই করেন! কিন্তু স্ট্রেইট করা চুলের চাই আলাদা যত্ন। স্ট্রেইটনারের থার্মাল হিটে অনেক ক্ষেত্রেই বদলে যায় চুলের অভ্যন্তরীণ মলিকিউলের গঠন। এতে চুলের বাইরের লেয়ার ভেঙে যায়। চুল ভঙ্গুর হয়ে পড়ে। এটি চুলের আগা ফাটার অন্যতম কারণ। স্ট্রেট না করে চুলে কেরাটিন ট্রিটমেন্ট করাতে পারেন। তাতে দুধের স্বাদ ঘোলে হলেও মিটবে। চুলগুলো সোজা দেখাবে। আর চুলেরও বিশেষ ক্ষতি হবে না।

৫. মহামারিকাল এসে চুলে রং করায় আগ্রহ কিছুটা কমেছে। তবে ট্রেন্ডে নেই, তা নয়। তবে চুলে রং করা ক্ষতিকর। হালকা রঙে বেশি ক্ষতি। তাই চুল বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেন, যে রঙের চুল, তার কাছাকাছি কোনো রঙে রাঙাতে।

default-image

এতে ক্ষতির আশঙ্কা কমে যায়। অস্থায়ী হেয়ার কালারগুলো কম ক্ষতিকর। এ ছাড়া অনেকে চুল ঘন করতে আলগা চুল লাগান। এতে যে চুলগুলো আছে তার সঙ্গে আরও চুল জুড়ে দেওয়া হয়। ফলে আসল চুলের ওপর চাপ বাড়ে। আর যে স্থানে অন্য চুল জোড়া দেওয়া হয়েছে, সেখান থেকে চুল ভেঙে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

স্টাইল থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন