সাজের মধ্যে থাকতে হবে আরাম আর স্বাচ্ছন্দ্য, এই ভাবনাই এখন জনপ্রিয়। জমকালো সাজের মধ্যেও থাকতে হবে সহজতা। অতিরিক্ত মেকআপ যেমন চেহারার ভারসাম্য নষ্ট করে, তেমনি ঘণ্টার পর ঘণ্টা হিল পরে থাকলেও চেহারায় তার কষ্টকর ছাপ পড়ে। এ কারণেই বিয়ের অনেক কনেই এখন হিলের বদলে বেছে নিচ্ছেন কেডস। অনেকে আবার সাজে ফিউশন ধারা ফুটিয়ে তুলতে চান। তাঁরা সবাই হিলের বদলে কেডসকেই বলছেন হ্যাঁ।

সম্প্রতি গায়ক, অভিনেতা, সংগীত পরিচালক প্রীতম হাসান ও মডেল, অভিনেত্রী শেহতাজ মনিরা হাশেম বিয়ে করেছেন। শ্রীমঙ্গলের একটি হোটেলে বিয়ের অনুষ্ঠানে ভারী কাজের লেহেঙ্গার সঙ্গে কনে পায়ে পরেছিলেন কেডস। তবে আগে থেকে কোনো পরিকল্পনা করে এটা করেননি তিনি। বিয়ের দিন হিল পরে হাঁটতে কষ্ট হচ্ছিল দেখে চটজলদি কেডস পরে নেন শেহতাজ। জানালেন, বিয়ের জুতাজোড়া সেদিন আর কোনো কাজেই লাগেনি।

জমকালো গাউন, শাড়ি কিংবা কামিজের সঙ্গেও মানিয়ে যায় কেডস। দাওয়াতেও অনায়াসে কেডস পরে যেতে পারেন আপনি। তবে কেডসগুলো হতে হবে পরিষ্কার, ঝকঝকে। বাড়তি নকশা হিসেবে থাকতে পারে গ্লিটার, হাতের পেইন্ট, ফিতার, একটু বেশি হিল ইত্যাদি।

কেডসের জন্য সাজের কোনো পরিবর্তন করতে হবে না; বরং আপনি যেকোনো সাজের সঙ্গেই কেডস পরতে পারবেন। এটাই আপনার সাজে নিয়ে আসবে ভিন্নতা। আপনার পোশাক থেকে কোনো একটা নির্দিষ্ট রং বেছে নিতে পারেন, যেটা পায়ের কেডসে থাকবে। আবার পোশাক আর কেডসের রং একই হতে পারে। পোশাক যেমনই হোক, আত্মবিশ্বাস নিয়ে পরলে আপনার কেডসের সাজই হবে আলোচনার বিষয়।