লালাখাল

রাতারগুল থেকে ফতেহপুর-হরিপুর-তামাবিল সড়ক হয়ে ৩৭ কিলোমিটার দূরত্বে সোয়া এক ঘণ্টায় যাওয়া যাবে লালাখালে। জৈন্তাপুর উপজেলার সারি নদের আরেক নাম লালাখাল। মূলত শীতের সময় লালাখালের প্রকৃত সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়। লালাখাল চা-বাগান, দুই দিকের সুউচ্চ সবুজ পাহাড় আর নদের নীলজলের মায়ায় সময় কাটবে বেশ। তামাবিল সড়কের সারিঘাট থেকে নৌকায় যাওয়া যায় লালাখাল জিরোপয়েন্ট। তবে সময় বাঁচাতে চাইলে সারিঘাট থেকে সরাসরি লালাখাল ঘাটে যেতে পারেন। ঘণ্টাপ্রতি নৌকা ভাড়া ৫৫০ টাকা।

ডিবির হাওর

নীলজলের লালাখাল থেকে সরাসরি যেতে পারেন সিলেটের শাপলার রাজ্য ডিবির হাওরের শাপলা বিলে। ১০ কিলোমিটার দূরত্ব শাপলা বিল স্বাগত জানাবে ৩০ মিনিটের মধ্যে। চাইলে এর আগে জৈন্তাপুর বাজারে জৈন্তা রাজবাড়ির স্থাপনা দেখতে কাটাতে পারেন কিছু সময়। ডিবি, হরফকাটা ও ইয়াম—এ তিনটি বিল মিলেই ডিবির হাওর। পাহাড়ের কোলে অজস্র লাল শাপলার সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারেন নৌকায়। ঘণ্টা দুয়েকের জন্য নৌকা ভাড়া ৪০০ টাকা। তবে শাপলার প্রকৃত রূপ দেখার জুতসই সময় ভোরবেলা। ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত বিলে শাপলা থাকে।

শ্রীপুরের রাংপানি

ডিবির হাওরকে বিদায় জানিয়ে তামাবিল সড়ক হয়ে ৮ কিলোমিটার দূরত্ব জৈন্তাপুরের শ্রীপুর চা-বাগান, হ্রদ ও রাংপানি নদ। তামাবিল সড়কের দুই পাশের চা-বাগান ও এর পাশঘেঁষা খাসিয়া-জৈন্তা পাহাড় মুগ্ধতা দেবে কিছু সময়ের জন্য। শ্রীপুর লেকের উল্টো দিকে পায়ে হেঁটে নামতে পারেন পাথুরে নদ রাংপানিতে। নদের স্বচ্ছ জল আর কাছের সবুজ পাহাড়ের সৌন্দর্য বেশ মনকাড়া। পাশেই রয়েছে সুপারিবাগান ও খাসিয়াপল্লি। তবে নদে নামতে চাইলে বিজিবির অনুমতি নেওয়া উত্তম।

জাফলং

এক দিনের ভ্রমণের শেষটা করতে পারেন জাফলংয়ে। নৌকা না নিয়ে সংগ্রামপুঞ্জির সোনা টিলা হয়ে পায়ে হেঁটে পিয়াইন নদীর স্বচ্ছ পানিতে হরেকরঙা পাথর ও ঝুলন্ত ডাউকি ব্রিজ দেখতে যেতে হবে জিরোপয়েন্ট। হাতে সময় থাকলে সংগ্রামপুঞ্জি ঝরনাও দেখতে পারেন। বলে রাখা ভালো, শুকনো মৌসুমে ঝরনায় পানি থাকে না। ডাউকি নদীর পাশেই রয়েছে খাসিয়াপল্লি ও পানপুঞ্জি। সময় থাকলে যাওয়া যেতে পারে সেখানেও। এর আগে জাফলংয়ে সেরে নিতে পারেন দুপুরের খাবার। খাবারের জন্য জাফলংয়ে বেশ কয়েকটি রেস্তোরাঁ রয়েছে। জনপ্রতি ২৫০ থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে সেরে নিতে পারেন দুপুরের খাবার।