দাদাবাড়ি বা নানাবাড়ির আরেকটি মোহন মুহূর্ত রাতে ঘুমানোর সময়টা। ভাইবোনদের মধ্যে চলে খুনসুটি, প্রতিযোগিতা—কে জড়িয়ে ধরবে দাদি বা নানিকে। তারপর সবাই মিলে গাদাগাদি করে তেরো নদী সাত সমুদ্দুর, রাক্ষস-খোক্কস, রাজা–রানির গল্প শোনা। এভাবে আমাদের শৈশব-কৈশোরজুড়েই থাকেন দাদি–নানিরা।

তারপর আমরা একসময় বড় হয়ে যাই। নিজেদের হারিয়ে ফেলি, সেই সঙ্গে হারিয়ে ফেলি দাদি-নানির শরীরের গন্ধ, চুলের ঘ্রাণ, কোলের ওম।

আজ ২১ জানুয়ারি, দাদি-নানি দিবস—গ্র্যান্ডমা’স ডে। পোল্যান্ডের একটি ম্যাগাজিনের উদ্যোগে ১৯৬৪ সালে দিবসটির উদ্‌যাপন শুরু হয়। এরপর এটি অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ইতালি, এস্তোনিয়া, পাকিস্তানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ে। এসব দেশে বেশ আড়ম্বরের সঙ্গেই দিনটি পালিত হয়।

দাদি বা নানির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে চাইলে আপনিও দিবসটি পালন করতে পারেন। যাঁদের দাদি-নানি দূরে থাকেন, তাঁরা আজ একটু সময় করে দাদি-নানির সঙ্গে দেখা করে আসতে পারেন। নিদেন একটা ফোন কিংবা কোনো উপহার! দাদি বা নানি সঙ্গে থাকলে পরিবারে বিশেষ আয়োজন করা যায়।

ন্যাশনাল টুডে ডটকম অবলম্বনে