সাধারণত সৌন্দর্যচর্চাকেন্দ্র বা স্যালনগুলোতে বিশেষ এক ধরনের কৃত্রিম লবণ দিয়ে সল্ট বাথ করানো হয় বলে জানালেন, হার্বস আয়ুর্বেদিক স্কিনকেয়ারের আয়ুর্বেদিক রূপবিশেষজ্ঞ আফরিন মৌসুমি। পাশাপাশি বাজারেও লবণ মেশানো সাবান পাওয়া যায়। তবে ত্বক অনুযায়ী এই সাবানগুলো বেছে নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে জানান, শুষ্ক-স্বাভাবিক ত্বকের জন্য লবণ ও অ্যালোভেরামিশ্রিত সাবান রয়েছে। তৈলাক্ত ত্বকের জন্য লবণ ও টি ট্রি তেলমিশ্রিত সাবান ব্যবহার করা উচিত। এ ছাড়া স্বাভাবিক ত্বকের জন্য ল্যাভেন্ডার ও লবণ মেশানো সাবানও পাওয়া যায়।

সল্ট বাথ অনেকভাবেই করা যায়। হারমনি স্পায়ের কর্ণধার ও আয়ুর্বেদিক রূপবিশেষজ্ঞ রাহিমা সুলতানা জানালেন, বাথটাব বা বালতির ভেতর ঈষদুষ্ণ পানিতে এক টেবিল চামচ গোসলের জন্য ব্যবহৃত লবণ মিশিয়ে নিন। এরপর শরীর ভিজিয়ে রাখতে হবে কিছুক্ষণ। এরপর স্বাভাবিক পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। তবে শরীরে লবণপানি লাগানোর আগে দেহের মৃত কোষ তোলার জন্য স্ক্রাব করা প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে দুই টেবিল চামচ নারকেল তেল বা জলপাই তেলের সঙ্গে এক টেবিল চামচ লবণ মিশিয়ে সম্পূর্ণ শরীরে মালিশ করে নিতে হবে। এ ছাড়া এক টেবিল চামচ হলুদ পেস্ট করে এর মধ্যে দেড় কাপ বেসন, আধা কাপ নারকেল তেল ভালোভাবে মিশিয়ে গরম করে নিতে পারেন। এরপর এই মিশ্রণে ১ টেবিল চামচ লবণ মেশাতে হবে। ঠান্ডা হয়ে গেলে এটি স্ক্রাবার হিসেবে ব্যবহার করুন। এরপর গোসল করে নিন।

এর বাইরেও আরেকটি ধরন আছে। দুই টেবিল চামচ অ্যালোভেরা জেল ফুটন্ত পানিতে ছেঁকে নিতে হবে। শুষ্ক ত্বকের জন্য অ্যালোভেরা জেলের সঙ্গে ১ টেবিল চামচ পিংক সল্ট বা মোটা লবণ মিশিয়ে নিন। এতে আধা টেবিল চামচ এসেনশিয়াল তেল এবং ৪ টেবিল চামচ নারকেল তেল মিশিয়ে নিতে হবে। মালিশ করে গোসল করাতে হবে। তৈলাক্ত ত্বকের ক্ষেত্রে ১ চা-চামচ লেবুর রস, আধা কাপ জলপাই তেল বা নারকেল তেল বা টি ট্রি তেল ও ২ টেবিল চামচ বাথ সল্ট মিশিয়ে নিতে পারেন।

এই মিশ্রণটি মালিশ করে গোসল করতে হয়। ‘আবার যাদের ছত্রাকজনিত সংক্রমণ, র‌্যাশ, সোরিয়াসিস ইত্যাদি ত্বকের সমস্যা রয়েছে, তাদের জন্য রয়েছে ভিন্ন ধরনের সল্ট বাথ। ১ কাপ দারুচিনি পেস্ট, ১ কাপ তেজপাতা পেস্টের সঙ্গে ১ কাপ নারকেল তেল বা জলপাই তেল মিশিয়ে চুলায় ফুটাতে হবে। এরপর ২ টেবিল চামচ লবণ মেশাতে হবে। মিশ্রণটি পুরো শরীরে মালিশ করার পর গোসল করতে পারেন। এটি বেশ কার্যকর’ বলেন আফরিন মৌসুমি। তবে লবণ ব্যবহারে গোসলটি একটু স্পর্শকাতর। লবণের সঙ্গে অনেক উপাদানও ব্যবহার করা হয়। তাই ত্বকের ধরন বুঝে এবং সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে এ ধরনের গোসল করার পরামর্শই দেন বিশেষজ্ঞরা।