বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অ্যান্ডি নরম্যানের চিঠির উত্তরে ইউভাল নোয়াহ হারারি

প্রিয় অ্যান্ডি,
সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুর ওপরই আমি প্রথমত ফোকাস করতে চাই। আমরা আমাদের ছায়া নিয়ে কী করব? যেসব মানুষ আধুনিকতা উদযাপন করে, সভ্যতার আলো উপভোগ করে এবং ধর্মনিরপেক্ষতা লালন করে, তারা প্রায়ই বুঝতে পারে না যে কমিউনিজম ও ফ্যাসিবাদের ব্যাপারে তারা কী করবে। তারাও কি আধুনিকতার অংশ?

তারাও কী ধর্মনিরপেক্ষ আলো থেকে উৎসারিত পণ্য? আমার বক্তব্য হচ্ছে, হ্যাঁ, তারাও অংশ। তবে তারা ধর্মনিরপেক্ষতার আলো ও আধুনিকতার অবদানকে স্বীকার করে না। এর মানে হচ্ছে, আমাদের সতর্ক থাকা উচিত এবং ছায়াকে স্বীকার করা উচিত। একই সঙ্গে ‘আমাদের সঙ্গে এমনটা ঘটতে পারে না’ এই ধারণা প্রত্যাখ্যান করা উচিত।

আমি মনে করি, চিরাচরিত ধর্মের বিরুদ্ধে মানবতাবাদের সবচেয়ে বড় অর্জন হচ্ছে, জ্ঞানকে ধারণ করা এবং ভুলকে স্বীকার করার সাহস। আপনার সঙ্গে আমি একমত যে মানবতাবাদ গত কয়েক শতাব্দীতে যেকোনো ধর্মের তুলনায় মানুষের পক্ষে অনেক বেশি ভালো কাজ করেছে।

একুশ শতকের এই সময় সবচেয়ে কঠিন বাস্তবতা হচ্ছে, আমরা একটি উত্তর-মানবতাবাদী (পোস্ট হিউম্যানিস্ট) যুগে প্রবেশ করছি। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা আর জৈব প্রযুক্তি সবকিছু ওলট–পালট করে দিচ্ছে। ফলে মানবতার অর্থও বদলে যাচ্ছে। গত তিন শতাব্দীজুড়ে যে মানবতা সাফল্যের সঙ্গে কাজ করে গেছে, সেই মানবতা নিয়ে এখন আমাদের পুনরায় চিন্তা করা প্রয়োজন।

আমি একটা তথ্যের ওপর জোর দিতে চাই। সেটা হচ্ছে, নাৎসি ও স্ট্যালিনবাদীরাও মানবতায় বিশ্বাস করত এবং তারা মনে করত যে তারাও মানুষের জন্য ভালো কাজ করছে।

আপনি লিখেছেন মানবতার প্রকৃত ধারণা হচ্ছে, সব মানুষ মর্যাদা পাওয়ার যোগ্য। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, আমরা কারা? আমরা যখন ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে মর্যাদাপূর্ণ আচরণ করি না, তখন সেটা সম্ভবত ইহুদিদের জন্য সুনাম বয়ে আনে? আমরা যখন গরুর সঙ্গে মর্যাদাপূর্ণ আচরণ করি না, তখন সেটা সম্ভবত মানব সম্প্রদায়ের জন্য সুনাম বয়ে আনে? এরপর আজ থেকে বহু বহুকাল পর ২১০০ সালে যখন আমরা হোমো স্যাপিয়েন্সদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করব, তখনো সম্ভবত সেটা অতিমানবদের জন্য সুনাম বয়ে আনবে? যেকোনো উপায়ে নিজের পক্ষে এসব যুক্তি দাঁড় করানো সবচেয়ে বিপজ্জনক।

আমি মানবতাকে দেখি একটি পবিত্র দৃষ্টিকোণ থেকে। আমি মানবতাকে দেখি কর্তৃত্বের উৎস হিসেবে, যেমন ধর্মতত্ত্ব মনে করে, কর্তৃত্ব আসে ঈশ্বরের কাছ থেকে। একইভাবে জাতীয়তাবাদীরা মনে করে কর্তৃত্ব আসে জাতি থেকে। সুতরাং মানবতাবাদীরাও মনে করে কর্তৃত্ব আসে মানবতা থেকে।

জগতে অনেক ধরনের মানবতাবাদ আছে, যেমন আছে অনেক ধরনের ঈশ্বরবাদ। আসলে ঈশ্বর যেমন অস্পষ্ট, তেমনি মানবতাবাদও অস্পষ্ট।

মানবতাসংক্রান্ত লেখাজোখা ও বক্তৃতায় আমি উদার মানবতাবাদ, সামাজিক মানবতাবাদ ও বিবর্তনবাদী মানবতাবাদকে ফোকাস করেছি। আপনি ধর্মনিরপেক্ষ মানবতাবাদ সম্পর্কে যা বলেছেন, আমি সেখানে একটু দৃষ্টি দিতে চাই। আমি মনে করি, ধর্মনিরপেক্ষ মানবতাবাদ মোটেও মানবতাকে পবিত্র করে না। তবে পৃথিবীতে যেসব মানবতাবাদী আন্দোলন হয়েছে, তা প্রকৃত অর্থেই মানবতাকে পবিত্র করেছে। এসব মানবতাবাদী নৈতিক আন্দোলন ইতিহাসের ওপর গভীর প্রভাব ফেলেছিল। কিন্তু বৈজ্ঞানিক গবেষণায় তা খুঁজে পাওয়া যাবে না। ১৭৭৬ সালে ‘সব মানুষ সমান’ এবং ‘সবার অধিকার রয়েছে’ মর্মে যে আন্দোলন হয়েছিল, তার কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি ছিল না।

ধর্মনিরপেক্ষ মানবতাবাদ সম্পর্কে আপনি যা বলেছেন, সেটা নৈতিক ও দার্শনিকভাবে খুব উচ্চবোধসম্পন্ন একটা বিষয় হতে পারে, কিন্তু উদারতাবাদ ও সমাজতন্ত্রের তুলনায় তা কম গুরুত্বপূর্ণ বলে আমি মনে করি।

সত্য ও ক্ষমতা একসঙ্গে চলতে পারে না। সস্তা গল্প কোটি কোটি মানুষকে বোঝানো সম্ভব কিন্তু সত্য সব সময়ই কম মানুষ বুঝবে। তাই প্রশ্ন হচ্ছে, আপনি ক্ষমতা খুঁজবেন, নাকি সত্য খুঁজবেন?

ইতি
ইউভাল


অন্যআলো ডটকমে লেখা পাঠানোর ঠিকানা: [email protected]

অন্যান্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন