বিজ্ঞাপন

মাস্ক এখন অনেকটা মোটরসাইকেলের হেলমেটের মতো। হেলমেট না পরলে যেমন আক্কেল সেলামি গুনতে হয়, একইভাবে মাস্ক না পরলে পুলিশের খপ্পরে পড়তে হয়। এ জন‍্য ঢাকা শহরের রাইড শেয়ারিং বাইকাররা নাকি সব সময় সঙ্গে কিছু মাস্ক রাখেন। ৪–৫টা মাস্ক হলে নাকি ৫০–৬০ জনকে নিয়ে রাইড শেয়ার করা যায়। এখন সিদ্ধান্ত আপনার, নিজের সঙ্গে রাখবেন নাকি বাইকারেরটাই পরবেন।

আবার মাস্ক না পরার জন‍্য কত যে বাহানা, তা–ও আমাদের জানা আছে। পান খেলে করোনা হয় না, তাই মাস্ক পরার দরকার কী! কিছু বকধার্মিকের যুক্তি শুনলে আরও অবাক হতে হয়। ধর্ম পালনের সঙ্গে মাস্ক না পরার যোগসূত্র দিয়ে কেউ কেউ যুক্তি দাঁড় করান। অর্থাৎ নিজেদের সুবিধামতো ধর্মও ব‍্যবহার করা আরকি!

এখানে ব‍্যবসায়ীরাও বাদ যাবেন কেন? এ সুযোগে করোনার শুরুতে মাস্কের দাম বাড়িয়ে ফায়দা লুটে নিতে একটুও ভুল করেননি তাঁরা।

অবশ‍্য বিভিন্ন সময় মাস্ক নিয়ে কর্তাব্যক্তিদের নানা রকম বাণীতেও আমরা বিভ্রান্ত হয়েছি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা শুরুতে বলেছিল, সুস্থ মানুষের মাস্ক পরার প্রয়োজন আছে, এ সম্পর্কে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। সংস্থাটির পরিচালক বলেন, ‘শুধু মাস্ক কখনো আপনাকে কোভিড-১৯ থেকে সুরক্ষিত রাখবে না।’ কিছুদিন পর সংস্থাটি আবার বলছে, মাস্ক পরলে জীবাণু বহণকারী ড্রপলেট থেকে সুরক্ষা পাওয়া সম্ভব বলে তাদের গবেষণায় পাওয়া গেছে।

এরপর বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব এল যে করোনা বাতাসে ছড়ায়। ঘরে বসে থাকলেও করোনা হতে পারে! এসব নানাবিধ বাণী আমাদের মতো আমজনতাকে মাস্কের বিষয়ে আরও সন্ধিগ্ধ করে তুলেছে।

মাস্ক নিয়ে যেমন অনেক রসাল কথা শুনতে পাই, তেমনি এটাও সত‍্য যে মাস্ক মানুষের অনুভূতিগুলো নিয়ন্ত্রণ করার এক দারুণ অস্ত্র, যা লুকিয়ে রেখেছে লাখো মানুষের দুঃসহ অনুভূতি।

অকিঞ্চিৎকর এই লেখা শেষ করছি কবি জসিমউদ্‌দীনের বিখ‍্যাত ‘আসমানী’ কবিতার প্রথম কয়েকটি লাইনের প‍্যারোডি দিয়ে:
করোনা থেকে বাঁচতে যদি তোমরা সবে চাও,
ঘরের বাইরে সব সময়ই মাস্ক পরে যাও।
হেলা নয় নিয়ম করে মাস্ক পরো জানি,
একটুখানি অসাবধানতায় করোনার হাতছানি।
স্বাস্থ্যবিধি মানলে পরে করোনা যাবে সরে,
ধরিত্রী হবে করোনামুক্ত শুধু তারই তরে।

মুক্ত গদ্য থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন