default-image

ক্রিকেট বিশ্বকাপের বাকি আছে আর তিন দিন। এখন সব জায়গায় বিশ্বকাপ বিশ্বকাপ গন্ধ থাকার কথা। চায়ের কাপে প্রিয় দলের হার-জিত নিয়ে ঝড় ওঠার কথা। কিন্তু সে অবকাশ আমাদের নেই। বিশ্বকাপের জায়গায় অবরোধ, পেট্রলবোমা আর বন্দুকযুদ্ধ।
এর মধ্যেই আমাদের ক্রিকেটের সূর্যসন্তানেরা অস্ট্রেলিয়া অবস্থান করছে। যখন দেশে হানাহানি, বোমাবাজিতে, বন্দুকযুদ্ধে পর্যুদস্ত, তখন এই ক্রিকেটই আমাদের দেয় অনাবিল আনন্দ। ক্রিকেটে বাংলাদেশ এক বিন্দুতে মিলিত হয়। সেখানে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ভেদাভেদ নেই।
আমাদের এবারের দলটি অভিজ্ঞ ও তারুণ্যের সমন্বয়ে গঠিত। দলটির ভালো করার সম্ভাবনা অত্যন্ত প্রবল। যখন রাজনীতিবিদদের তিক্ত কথা শুনতে শুনতে আমরা হতাশ, তখন মাশরাফি, মুশফিক, মুমিনুলদের দেশপ্রেমের দৃপ্ত ঘোষণায় আমরা আশার আলো দেখতে পাই।
যদিও প্র্যাকটিস ম্যাচে বাংলাদেশ হেরেছে, আমরা আশাবাদী যে মূল পর্বে বাংলাদেশ তার সামর্থ্য অনুযায়ী খেলবে। অন্তত দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠবে।
এই ক্রিকেটই হয়তো বিভক্ত বাঙালিকে এক করবে। স্বপ্ন দেখি, আমাদের দল হয়তোবা ফাইনালেই উঠে যাবে, সেখানে ফাইনাল ম্যাচ দেখতে গিয়েই সাক্ষাৎ হবে দুই নেত্রীর। দুয়ার খুলবে সংলাপের।
জানি, এটা অতি কষ্টকল্পনা। কিন্তু পাঠক, বাস্তব কখনো কখনো কল্পনাকেও হার মানাতে পারে। এই অন্ধকার সময়ে আশা ছাড়া আর কোনো ভেলা নেই। চলুন, আমরা আশার ভেলা ভাসাই। সে ভেলায় সওয়ার হোক তামিম, সাকিব, মাশরাফিরা, যে ভেলার বইঠা চালাবে ক্রিকেট। তাঁরা আমাদের নিরাশ করবেন না। শুভকামনা রইল ক্রিকেটারদের প্রতি। দীর্ঘ অন্ধকার পথের শেষ প্রান্তে আলোর ঝলক দেখাক ক্রিকেট, সে প্রত্যাশায় রইলাম।
লেখক: শিক্ষার্থী, রাজশাহী।

বিজ্ঞাপন
কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন