বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সম্মেলনে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা ২৫ থেকে ৩০ হাজার হবে বলা হলেও পরে জানানো হয়েছে গ্লাসগো শহরে প্রায় ৫০ হাজার অতিথির পদচারণ ঘটেছে। শহরটিতে সবার আবাসনের ব্যবস্থা সম্ভব না হওয়ায় আমাদের অনেককেই প্রতিদিনই ঘণ্টাখানেকের দূরত্ব অতিক্রম করতে হয়েছে। তবে বিপুল উপস্থিতি মানেই যে সবচেয়ে বিপন্ন বোধ করা জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিরা তাঁদের কথা তুলে ধরতে পেরেছেন, তা নয়। সম্মেলনের বাইরে বিক্ষোভে অংশ নেওয়া হাজার হাজার শিশু, তরুণ, নারী, আদিবাসী, শিক্ষাবিদ, কৃষক ও শ্রমিক প্রতিনিধি সে রকম অভিযোগই করেছেন। এমনকি সম্মেলনে গৃহীত চূড়ান্ত ঘোষণার তৃতীয় খসড়া প্রকাশের পর বিভিন্ন নাগরিক গোষ্ঠী বা এনজিওর প্রতিনিধিরা মিছিল করে সম্মেলনকেন্দ্র থেকে বেরিয়ে গেছেন।

তাঁরা এবং রাস্তার বিক্ষোভকারীরা একটি গুরুতর অভিযোগও করেছেন। তাঁদের অভিযোগ, শতকোটিপতি ব্যবসায়ীদের সম্মেলনের মঞ্চে সুযোগ দেওয়া হয়েছে পরিবেশবান্ধব পরিচয় ধারণের, যাকে বলা হয় গ্রিনওয়াশিং। এ ছাড়া অংশগ্রহণকারীদের পরিচয় যাচাই করে দেখা গেছে, জীবাশ্ম জ্বালানি খাতের প্রতিনিধি ছিলেন ৫০০ জনের বেশি। তাঁরা যে তেল-গ্যাস-কয়লায় বিনিয়োগকারীদের পক্ষে তদবির করবেন, সেই অনুমান নাকচ করা সহজ নয়। পরিবেশবাদী বিক্ষোভকারীদের অনেকের দাবি, কপ ২৬–এ বহুল উচ্চারিত নেট জিরো কথিত নয়া উপনিবেশবাদী কৌশল। কার্বন উদ্‌গিরণ যতটা হবে, ঠিক ততটাই বায়ুমণ্ডল থেকে অপসারণের মাধ্যমে ভারসাম্য বজায় রাখাই হচ্ছে নেট জিরো। নেট জিরো অর্জনের জন্য বড় দূষণকারী শিল্প, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ও সরকারগুলো যেসব পদ্ধতি অনুসরণ করে, তার মধ্যে সবচেয়ে সহজ সমাধান জমির সদ্ব্যবহার ও গাছ লাগানো। কেননা, গাছ কার্বন শুষে নেয়।

গ্লাসগো সম্মেলনের আগে থেকেই বলা হচ্ছিল সময় নষ্ট করার সময় আর নেই। কিন্তু সেই সময় নষ্ট এড়ানো যায়নি। ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর ঝুঁকি শিগগির না কাটলেও ন্যায্যতার লড়াই চালিয়ে যাওয়ার বিকল্প নেই, সে লড়াইকে নয়া উপনিবেশবাদবিরোধী বলা হোক, আর না হোক।

এ কৌশলকে বন ও জমিকে পণ্যে রূপান্তরের প্রক্রিয়া অভিহিত করে অনেকে বলছেন, বৃহৎ করপোরেশনগুলোকে এর মাধ্যমে উন্নয়নশীল দেশের সম্পদ শোষণের সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রের উইলিয়ামস কলেজের পরিবেশবিজ্ঞানের সহযোগী অধ্যাপক লরা জে মার্টিন উদাহরণ দিয়ে দেখিয়েছেন বিদেশি কোম্পানি কীভাবে উন্নয়নশীল দেশগুলোয় বিপুল পরিমাণে জমির মালিক হয়ে যাচ্ছে এবং আদিবাসীসহ স্থানীয় জনগোষ্ঠী কীভাবে বাস্তুচ্যুত হচ্ছে (অ্যাভয়ডিং কার্বন কলোনিয়ালিজম: ডেভেলপিং নেশনস কান্ট পে দ্য প্রাইস ফর পলুশন, দ্য হিল)। কার্বনের দায় বিক্রির শীর্ষে আছে যে দেশগুলো, সেগুলো হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, জার্মানি ও সুইজারল্যান্ড। আর যেসব দেশ দায় নিরসনে লেনদেনে এগিয়ে আছে, সেগুলো হলো পেরু, ব্রাজিল, কেনিয়া, জিম্বাবুয়ে, বলিভিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও কম্বোডিয়া।

ধনী দেশগুলো এ জন্য উন্নয়নশীল দেশগুলোয় গাছ লাগাতে এবং কম দূষণকারী জ্বালানি ব্যবহারের জন্য অর্থ দিয়ে নিজেদের কার্বনের দায় স্থানান্তর (অফসেটিং) করতে পারে। এই সুবিধাকেও পরিবেশবাদীরা গ্রিনওয়াশিং বলে থাকেন। পজিটিভ মানি নামের একটি পরিবেশবাদী গোষ্ঠীর জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ ডেভিড বার্মস বিবিসিকে বলেন, কার্বনের দায় স্থানান্তর গ্রিনওয়াশিংয়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় পদ্ধতি। এটি জালিয়াতিতে ভরা এবং এতে করে কোম্পানিগুলো বায়ুমণ্ডলে গ্যাস উদ্‌গিরণ অব্যাহত রেখেও গ্যাস নির্গমনের লক্ষ্য পূরণের দাবি করতে পারছে। এই কার্বন লেনদেনের ব্যাপারটি বড় বড় করপোরেশনকে গ্যাস নির্গমন সত্ত্বেও দায়মুক্তি ভোগ করে যাচ্ছে এবং ধনী দেশগুলোও লক্ষ্যপূরণের দাবি করতে পারছে। বিজ্ঞানীদের অনেকেই বলছেন, এ ব্যবস্থায় অনেক ধনী দেশই কার্বন নিঃসরণ বন্ধের পথে এগোবে না। তাঁরা যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ায় তেল ও কয়লা উত্তোলনের নতুন প্রকল্প বাতিল না করাকেও এর আলামত হিসেবে উল্লেখ করেন। গ্লাসগোর সম্মেলন কেন্দ্রটি ছিল দুটি অংশে বিভাজিত—ক্লাইড নদীর এক পারে ব্লু জোনে সভা-সেমিনার-সিম্পোজিয়াম ও দর-কষাকষির রুদ্ধদ্বার বৈঠক; আর অপর তীরে গ্রিন জোনে প্রযুক্তিগত সমাধানের নানা বাণিজ্যিক উদ্যোগের প্রদর্শনী। প্রদর্শনীতে দূষণমুক্ত যানবাহন, পণ্যবাহী ডুবোজাহাজ, হালকা বিমান থেকে শুরু করে এমনকি বন ব্যবস্থাপনার প্রযুক্তিও ছিল, অর্থাৎ বাণিজ্যিক আকাঙ্ক্ষাও সেখানে গুরুত্ব পেয়েছে।

কপ ২৬–এ আরেকটি বহুলশ্রুত কথা ছিল জলবায়ুবিষয়ক ন্যায়বিচার (ক্লাইমেট জাস্টিস)। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব সব দেশে, সব জনগোষ্ঠী এবং বিভিন্ন প্রজন্মের ওপর সমান হয় না। ফলে ন্যায্যতার প্রশ্ন অবশ্যম্ভাবী। আন্তর্জাতিক পরিসরে এই অন্যায্য বৈষম্যের ঐতিহাসিক দায়ও অনস্বীকার্য। গ্লাসগো চুক্তি যেদিন গৃহীত হয়, সেদিনের নিউইয়র্ক টাইমস পত্রিকার যুক্তরাষ্ট্র সংস্করণের প্রথম পাতার এক বিরাট অংশজুড়ে ছাপা গ্রাফ বলছে, ১৭০ বছরের হিসাবে দেখা যাচ্ছে, বিশ্বের ১২ শতাংশ মানুষের বসতি যে ২২টি শিল্পোন্নত দেশ, তারা গ্রিনহাউস গ্যাসের ৫২ শতাংশের জন্য দায়ী; আর বাকি দেশগুলোর জনগোষ্ঠী বিশ্বের ৮৮ শতাংশ হলেও তাদের গ্যাস উদ্‌গিরণ হচ্ছে ৪৮ শতাংশ। ধনী দেশগুলোর মধ্যেও যুক্তরাষ্ট্র একাই দায়ী ২৪ দশমিক ৬ শতাংশের জন্য। বিপরীতে ঝুঁকির দিকে থেকে শীর্ষে আছে ক্ষুদ্র দ্বীপরাষ্ট্রসহ বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলো। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা ১ মিটার বৃদ্ধি পেলে অনেক দ্বীপরাষ্ট্রই তলিয়ে যাবে। যে কারণে মালদ্বীপের মন্ত্রী তাঁর সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ মিত্র ভারতের কয়লার অবসানবিষয়ক সংশোধনীতেও হতাশা প্রকাশ করে বলেন, ‘মালদ্বীপের জন্য এতে খুব দেরি হয়ে যাবে।’

শিল্পায়নের সিংহভাগ সুফল ভোগকারী ধনী দেশগুলোর ঐতিহাসিক দায় ঘিরেই অপূরণীয় ক্ষতি ও লোকসানের ক্ষতিপূরণের দাবি উঠেছে, যার ন্যায্যতা নিয়ে তেমন একটা প্রশ্নের অবকাশ নেই। কিন্তু ধনী দেশগুলোর আশঙ্কা, ক্ষতিপূরণের দাবি মেনে নেওয়া হলে তা হবে সীমাহীন মাত্রার। এই ক্ষতিপূরণের ভিত্তি ও পদ্ধতি ঠিক করার প্রশ্ন দীর্ঘদিন ধরে ঝুলে আছে। তবে এবার কাজ শুরুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। দুর্ভোগের শিকার দেশগুলোর হতাশার আরও একটা বড় কারণ দূষণমুক্ত জ্বালানি ও প্রযুক্তিতে উত্তরণ, ক্ষয়ক্ষতি কমানো এবং ঝুঁকি মোকাবিলার জন্য ধনী দেশগুলো যে পরিমাণে সহায়তার অঙ্গীকার করেছিল, তা ২০২০ সালের মধ্যে পূরণের কথা থাকলেও সেই প্রতিশ্রুতি পালিত হয়নি।

এসব কারণে ক্ষুব্ধ উন্নয়নশীল দেশগুলোর আকুতি সবচেয়ে স্পষ্টভাবে তুলে ধরেছেন বার্বাডোজের প্রধানমন্ত্রী মিয়া মোটলি। তাঁর কথায়, ক্ষয়ক্ষতি পূরণে অর্থায়নের ব্যবস্থা বাদ দিয়ে কোনো ভালো সমাধান মিলবে না। উন্নয়নশীল দেশগুলোর ক্ষতির পরিমাণ বিপুল উল্লেখ করে তিনি বলেন, চলতি বছরে জার্মানিতে যে বন্যা হয়েছে, তাতে ক্ষতির পরিমাণ দেশটির জিডিপির ১ শতাংশের কম। আর বার্বাডোজে মাত্র চার ঘণ্টার ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতির পরিমাণ তাদের জিডিপির আড়াই গুণ বা ২৫০ শতাংশের বেশি। এই অসম ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে যে সহমর্মিতা ও সংহতি ধনী দেশগুলোর কাছে আশা করা হয়েছিল, তা পূরণ তো হয়ইনি, উপরন্তু ২০৩০ সালের মধ্যে ৪৫ শতাংশ গ্যাস নির্গমন কমানো, আর ২০৫০ সালের মধ্যে নেট জিরো অর্জনে সব দেশের কাছে সমমাত্রার অঙ্গীকার দাবি করা হয়েছে। অর্থায়নের জন্য বেসরকারি সূত্রের শরণাপন্ন হতেই উৎসাহ দেওয়া হয়েছে।

গ্লাসগো সম্মেলনের আগে থেকেই বলা হচ্ছিল সময় নষ্ট করার সময় আর নেই। কিন্তু সেই সময় নষ্ট এড়ানো যায়নি। ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোর ঝুঁকি শিগগির না কাটলেও ন্যায্যতার লড়াই চালিয়ে যাওয়ার বিকল্প নেই, সে লড়াইকে নয়া উপনিবেশবাদবিরোধী বলা হোক, আর না হোক।

কামাল আহমেদ সাংবাদিক

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন