বিজ্ঞাপন
আমাদের এই পোস্ট কতজন দু-এক সপ্তাহ পর মনে রাখছে? মৃত্যুর পরে তো দূরের কথা, দুই দিন পর কে আমাদের মনে রাখবে? তাহলে ঠুনকো এই জীবন কি সস্তা লাইকের কাছে সঁপে দেব? নাকি প্রকৃত মহৎ হওয়ার চেষ্টা করব? আর মহৎ হওয়ার জন্য তো ধনী বা জ্ঞানী হওয়ার প্রয়োজন নেই। আত্মীয়স্বজন, প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক এবং দরিদ্র, অসহায়, এতিম, বৃদ্ধ কিংবা খেটে খাওয়া মানুষদের অসহায়ত্বের কথা চিন্তা করেও তো মহৎ হওয়া যায়। আর মুখের হাসির জন্য তো কোনো অর্থ খরচ করতে হয় না

আসুন একটু থামি। এই বাস্তবতা সম্পর্কে ভাবি, নিজেকে প্রশ্ন করি। কিসের জন্য এই মোহ, এত ব্যস্ততা? দুনিয়া আমাদের অন্ধ করে ফেলেছে। আমরা শুধু ছুটছি আর ছুটছি। কেউ সম্পদ, কেউ প্রভাব-প্রতিপত্তি আর কেউবা খ্যাতির পেছনে। কিন্তু কখনো কি ভাবার সময় পাই, যেভাবে প্রিয় দলের খেলার টিকিট ক্রয়ের জন্য লাইনে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে থাকি, সেভাবেই আসলে আমরা মৃত্যুর জন্য সবাই লাইনে আছি। চাই আর না চাই, এই লাইন থেকে বের হওয়ার সুযোগ নেই। এই লাইনে অগ্রজরাই যে সর্বদা প্রাধান্য পাবে, তা–ও কিন্তু নয়। অনেক অনুজও লাইনের সামনে আছে।

একটু ভাবুন তো আজ আমরা যে ৭০০ কোটি মানুষ পৃথিবীতে পদচারণ করছি, আগামী ৬০, ৭০, ৮০ কিংবা ১০০ বছরের মধ্যে কেউ জীবিত থাকব না। এটা জেনে-বুঝেই আমাদের ক্ষণস্থায়ী ঠুনকো জীবনকে পৃথিবীতে সার্থক করে যেতে চাই। তার জন্যই নিরন্তর ছুটে চলা। আর এই ছুটে চলা কবরের মাটি কিংবা শ্মশানের চিতায় ঠাঁই হওয়ার এক মুহূর্ত আগ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে। দেশের প্রায় অর্ধেক মানুষের তিন বেলা খাদ্যের নিশ্চয়তা নেই। তিন বেলা খাবার জোগাড়ের মধ্যেই তারা জীবনের সার্থকতা খুঁজে পায়। তাদের মহৎ হওয়ার সুযোগ কোথায়? কিন্তু কেউ তাদের মহৎ না বললেও তারাই প্রকৃত মহৎ। তাদের ঘাম ঝরানো পরিশ্রমের ফসলেই দেশের বর্তমান অগ্রগতি। বাকি অর্ধেকেরই আছে মহৎ হওয়ার নানা স্বপ্ন, যার বেশির ভাগই তাদের সাধ্যাতীত। আর এক-চতুর্থাংশ মানুষ, বিশেষত আয় অনুযায়ী ওপরের ৫-১০ ভাগের সাধ্য ও সুযোগ থাকলেও সবার মহৎ হওয়ার স্বপ্ন আছে কি না, পরিষ্কার নয়। তবে এটা পরিষ্কার যে দেশে প্রায় তিন-চতুর্থাংশ মানুষের ধনে, মানে ও প্রভাব-প্রতিপত্তিতে বড় হওয়ার স্বপ্ন আছে। এই বড় হওয়ার নিরন্তর চেষ্টাতেই আমরা সবাই ব্যস্ত। এই ব্যস্ততার একটা বড় অংশজুড়ে আছে ক্রীড়া প্রতিযোগিতার মতো অন্যকে টপকে নিজেকে জয়ী করার সর্বাত্মক চেষ্টা। অর্থাৎ স্বার্থপরভাবে অন্যকে ছাড়িয়ে যাওয়া। আর সেটা করতে গিয়ে আমরা হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলছি। নিজেকে ধনী, জ্ঞানী কিংবা প্রভাবশালী হিসেবে প্রতিষ্ঠা ও জাহিরের চেষ্টায় সর্বক্ষণ ব্যস্ত আছি।

সোশ্যাল মিডিয়ার এই যুগে নিজেকে জাহির করার সুযোগ তো অনেক বেশি। যে যেভাবে পারছি, নিজেকে উপস্থাপন করছি। হোক তা মৃত ব্যক্তির কফিনের সঙ্গে ছবি তুলে কিংবা দুর্ঘটনায় পতিত মুমূর্ষু ব্যক্তিকে সহায়তার পরিবর্তে তার সঙ্গে সেলফি তুলে। অথবা দান-সহায়তার প্রামাণ্যচিত্র ধারণ করে। আর রাজনৈতিক বচন তো আছেই। অন্য কিছু পোস্ট দেওয়ার না থাকলে প্রোফাইল ফটো পরিবর্তন করি। এসব বিষয়ের সাফল্য নির্ভর করে লাইক বা শেয়ারের ওপর। আর পোস্টটি ভাইরাল হলে তো মনে হয় স্বর্গ হাতে পাওয়া গেল। বেশি বেশি লাইকেই আমরা জীবনের সার্থকতা খুঁজে পাই। তাই তো সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট দিয়ে সারাক্ষণ খেয়াল রাখছি—কে লাইক বা শেয়ার দিল। কমেন্টেই বা কী লিখল।

একটু ভাবুন তো, এই আনন্দটাও কত ঠুনকো? আমাদের এই পোস্ট কতজন দু-এক সপ্তাহ পর মনে রাখছে? মৃত্যুর পরে তো দূরের কথা, দুই দিন পর কে আমাদের মনে রাখবে? তাহলে ঠুনকো এই জীবন কি সস্তা লাইকের কাছে সঁপে দেব? নাকি প্রকৃত মহৎ হওয়ার চেষ্টা করব? আর মহৎ হওয়ার জন্য তো ধনী বা জ্ঞানী হওয়ার প্রয়োজন নেই। আত্মীয়স্বজন, প্রতিবেশীর সঙ্গে সুসম্পর্ক এবং দরিদ্র, অসহায়, এতিম, বৃদ্ধ কিংবা খেটে খাওয়া মানুষের অসহায়ত্বের কথা চিন্তা করেও তো মহৎ হওয়া যায়। আর মুখের হাসির জন্য তো কোনো অর্থ খরচ করতে হয় না।

তাই আসুন সোশ্যাল মিডিয়ার সস্তা ও তুচ্ছ লাইকের বদলে প্রকৃত মহৎ হওয়ার চেষ্টা করি। সময় থাকতে এই অনুভূতির জাগরণ না হলে শেষ বয়সে হয়তো কবি কায়কোবাদের মতো আমাদেরও আক্ষেপ করে বলতে হবে ‘হীরা ফেলে কাচ তুলে। ভিখারি সেজেছি আমি।’

সৈয়দ আব্দুল হামিদ অধ্যাপক, স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন