দেশহীন মানুষের কথা

দয়া করে খাসিয়াদের পাশে দাঁড়ান

বিজ্ঞাপন

খাসি হিলস বা খাসিয়াদের পাহাড়ে এসে মেনাবেদনায় ভারাক্রান্ত হয় ওদের অসহায়ত্ব দেখে। প্রকৃতির কোলে কী মায়াভরা ছোট ছোট ছেলেমেয়ে গান গায়, ‘খুবলে সিবুন’ বলে হাত বাড়িয়ে দেয়। ৪৪ বছরের স্বাধীন রাষ্ট্র কি ওদের সংবেদনশীলতা নিয়ে দেখে? দুর্ভাগ্য, আমাদের প্রিয় রাষ্ট্র তারই নাগরিক খাসিয়া আদিবাসীদের বেদনা বোঝার চেষ্টা করে না। জেমস ক্যামেরনের অ্যাভাটার ছবির ওই উক্তিই এখানে সত্য হয়, ‘দ্য স্কাই পিপল ডু নট সি, দে ডু নট লার্ন।’
আমি গত ২৮ এপ্রিল দুপুরের পর যখন রেহানা চা-বাগান হয়ে ঝিমাই চা-বাগানে পৌঁছাই, কিছুদূর গিয়ে দেখি রাস্তা লোহার গেট দিয়ে বন্ধ। তিনজন পাহারাদার পাশে বসে লুডু খেলছেন। আমি তাঁদের জিজ্ঞেস করলাম, ‘আমাদের জন্য কি গেট একটু খুলে দেবেন?’ তাঁরা বললেন, গেট খোলা নিষেধ আছে। আমরা তাঁদের অনুরোধ করলাম, ‘তাহলে আমরা কি গেটের বাইরে গাড়ি (জিপ) রেখে যেতে পারব?’ পাহারাদার বললেন, কোনো অসুবিধা হবে না, গাড়ি রেখে যান।
আমরা গাড়ি রেখে বেশ দূরের পথ, কিছুটা উঁচু-নিচু, আঁকাবাঁকা হেঁটে খাসিয়াপুঞ্জিতে গেলাম। আমার হাঁটতে কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু খাসিয়া-গারোরা যখন তাদের দৈনন্দিন প্রয়োজনে মালামাল নিয়ে আসে, চাল, ডাল, খাবারের বোঝা ইত্যাদি তাদের টানতে হয়। বৃদ্ধ বা অসুস্থ মানুষ যখন বাইরে যায় বা কেউ বাইরে থেকে আসে, তখন খুব অসুবিধায় পড়তে হয়। ১১ এপ্রিল ঝিমাই চা-বাগান কর্তৃপক্ষ খাসিয়া গ্রামের জমি দখল করতে গিয়েছিল। সঙ্গে ছিলেন মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)। তার পর থেকে রাস্তা তালাবদ্ধ। যারা দখল করতে গিয়েছিল, তাদের কাছে খাসিয়াদের উচ্ছেদের কোনো কাগজপত্রও ছিল না। আমি জীবনে প্রথম শুনলাম একজন ইউএনও দখলদারদের সঙ্গে নিয়ে খাসিয়াদের ঐতিহ্যগত ভূমিতে খুঁটি লাগাতে গেছেন। সরকারি কোন বিধিতে এটি আছে? কেউ হয়তো বলতে পারেন, খাসিয়াদের তো জমির কাগজ বা দলিল নেই। এ রকম দলিল তো পৃথিবীর অধিকাংশ বা ৩০ কোটি আদিবাসী মানুষের নেই। পার্বত্য চট্টগ্রামে, যা দেশের এক-দশমাংশ অঞ্চল, সেখানে লাখ লাখ একর জমি বা আদিবাসীদের দলিল নেই। মধুপুরের বনে প্রায় ২০ হাজার গারো আদিবাসীর কাগজের দলিল নেই। এমনকি এই খাসিয়া অঞ্চলেও ৫০টির অধিক আদিবাসী গ্রাম বা পুঞ্জির মানুষের দলিল নেই। কিন্তু বুঝতে হবে, আদিবাসী মানুষের রয়েছে ভূমির ওপর প্রথাগত ও ঐতিহ্যগত অধিকার, যা আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত।
এসব জেনেই আওয়ামী লীগ সরকারও ২০০৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে আদিবাসীদের ভূমি মালিকানার প্রথাগত সংস্কৃতিকে স্বীকৃতি দিয়ে অঙ্গীকার করেছিল, ‘আদিবাসীদের জমি, জলাধার ও বন এলাকায় সনাতনী অধিকার সংরক্ষণের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণসহ ভূমি কমিশন গঠন করা হবে।’ কুলাউড়ার ইউএনওকে বুঝতে হবে যে, খাসিয়াদের জমি দখল করে অন্যকে দেওয়া তাঁর কর্তব্য নয়; বরং সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে এই অসহায় খাসিয়াদের পাশে থাকতে হবে তাঁকে। ২০০৭ সালে সাধারণ পরিষদে জাতিসংঘ আদিবাসী অধিকার ঘোষণাপত্র গৃহীত হয়। এই ঘোষণাপত্রের ১০ নম্বর অনুচ্ছেদে আছে, ‘আদিবাসী জনগোষ্ঠীকে তাদের ভূমি থেকে জবরদস্তিমূলকভাবে উৎখাত করা যাবে না।’ অনুচ্ছেদ ২৫ বলছে, ‘আদিবাসীদের ঐতিহ্যগতভাবে মালিকানাধীন কিংবা অন্যথায় দখলীয় ও ব্যবহার্য ভূমি, ভূখণ্ড, জল, সমুদ্র উপকূল ও অন্যান্য সম্পদের সঙ্গে তাদের স্বতন্ত্র আধ্যাত্মিক সম্পর্ক বজায় রাখা ও সুদৃঢ়করণের অধিকার এবং এ ক্ষেত্রে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের নিকট তাদের এসবের দায়িত্বসমূহ সমুন্নত রাখার অধিকার রয়েছে।’ অনুচ্ছেদ ২৬-এ বলা হয়েছে, ‘রাষ্ট্র এসব জমি, ভূখণ্ড ও সম্পদের আইনগত স্বীকৃতি ও রক্ষার বিধান প্রণয়ন করবে। সংশ্লিষ্ট আদিবাসী জনগোষ্ঠীর প্রথা, ঐতিহ্য এবং ভূমিস্বত্ব ব্যবস্থার যথাযথ মর্যাদা দিয়ে স্বীকৃতি প্রদান করবে।’
আইএলও কনভেনশন নম্বর ১০৭ বাংলাদেশ সরকার র্যা টিফাই করেছে। সেখানে আদিবাসী ও ট্রাইবাল জনগণের ঐতিহ্যগত ভূমি মালিকানার স্বীকৃতি আছে। অর্থাৎ ঝিমাই চা-বাগান কর্তৃপক্ষ সরকারের কাছ থেকে ২০১২ সালে লিজ নিয়ে খাসিয়াদের সরাসরি বেআইনিভাবে উচ্ছেদের যে চেষ্টা করছে, তা সরাসরি মানবাধিকার লঙ্ঘন। আদিবাসী নাগরিকদের প্রথাগত ও ঐতিহ্যগত ভূমি থেকে উচ্ছেদের কোনো অধিকার চা-বাগান কর্তৃপক্ষের নেই। এমনকি ২০১১ সাল থেকে খাসিয়াদের স্বত্ব মামলা থাকা সত্ত্বেও নতুন করে তাদের ওপর অত্যাচার ও অমানবিক আচরণ করে চলেছে।
আমরা নয়টি মানবাধিকারকামী ও পরিবেশবাদী সংগঠন—বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা), আইন ও সালিশ কেন্দ্র, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম, বেলা, গ্রিন ভয়েস, নিজেরা করি, এএলআরডি, কাপেং ফাউন্ডেশন ও খাসি স্টুডেন্ট ইউনিয়ন—এই অন্যায়ের প্রতিবাদ জানিয়ে মানববন্ধন করেছি ঢাকায়। কুলাউড়া উপজেলার ঝিমাইপুঞ্জির ৭২টি খাসিয়া পরিবারকে তাদের প্রথাগত ও ঐতিহ্যগত ভূমি থেকে উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র ও অপচেষ্টার বিরুদ্ধে জনগণকে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়েছি।
আমি ঝিমাইপুঞ্জি গেলাম ২৮ এপ্রিল দুপুরে। তখনো রাস্তা বন্ধ। খাসিয়াদের ৭২টি পরিবার, ধর্মীয় উপাসনার তিনটি গির্জাঘর, স্কুলঘর, একটি মাতৃভাষা শিক্ষাকেন্দ্র, পবিত্র সমাধিক্ষেত্র, আর রয়েছে সারি সারি গাছের পানজুম। সুদীর্ঘকাল ধরে এখানে খাসিয়ারা বসবাস করে এলেও কী করে ২০১২ সালে সরকার ঝিমাই চা-বাগান কর্তৃপক্ষকে এই জমি লিজ দেয়? খাসিয়ারা লিজের কাগজ দেখতে চেয়েছিল। চা-বাগান কর্তৃপক্ষ সেটি দেয়নি। এই ভূমিতে বসবাস ও অস্তিত্বের কথা, পবিত্র সমাধিভূমি, স্কুল, গির্জাঘর ও জীবন–জীবিকার কথা গোপন রেখে প্রতারণামূলকভাবে লিজ নেওয়া হয়েছে। সরকার কীভাবে আদিবাসীদের ঐতিহ্যগত অধিকারকে অস্বীকার করে চা-বাগানকে এই জমি লিজ দেয়? আমাদের দাবি, অবিলম্বে ভূমি কমিশন গঠন করে আদিবাসীদের ভূমি সমস্যার সমাধানের অঙ্গীকার সরকার পূরণ করুক।
গত ২৮ জানুয়ারি ঝিমাই চা-বাগান কর্তৃপক্ষ খাসিয়াপুঞ্জির পান জুমে ঢুকে শতাধিক গাছ মার্কিং করে এবং এই সময় পুঞ্জির পানের লতা কেটে ফেলে। শোনা যায়, গাছচোরদের কাছে চড়া মূল্যে অবৈধভাবে গাছ বিক্রির চেষ্টা চলছে। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি বিভাগীয় বন কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন একটি পত্রের মাধ্যমে কুলাউড়ার ঝিমাই চা-বাগানের গাছ কর্তন ও অপসারণের বিষয়ে আপত্তি করেন, যেখানে বলা হয়েছে: ‘উপর্যুক্ত বিষয় ও সূত্রোক্ত পত্রের পরিপ্রেক্ষিতে ঝিমাই চা-বাগানের গাছ মার্ককালে বিরোধপূর্ণ ও পুঞ্জির কোনো গাছ মার্ক না করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হইল।’ যার স্মারক নম্বর ২২.০১.০০০০.৬৭২.০০৮.০৯৮.১৪.১০০৫। এ চিঠিকে খাসিয়ারা স্বাগত জানিয়েছে। এর আগে ১৬ এপ্রিল নেদারল্যান্ডসের দুই বিদেশি অতিথি পুঞ্জিতে বেড়াতে যেতে চেয়েছিলেন। তাঁদের গাড়ি রাস্তায় দুই ঘণ্টার অধিক সময় বসিয়ে রাখা হয়। বিদেশিরা পরে হেঁটে পুঞ্জিতে গেছেন। এতে বিদেশিদের কাছে দেশের ভাবমূর্তি ভূলুণ্ঠিত হয়েছে।
ঝিমাইপুঞ্জি থেকে যখন ফিরে আসি, তখন বেলা ডোবার সময় হয়েছে। ইস্পাহানি কোম্পানির সারি সারি ঢেউখেলানো সবুজ গাজীপুর চা-বাগান। দূরে পাহাড়ের কোলে সূর্য ডুবে যেতে থাকে। কী মায়াভরা প্রকৃতির রূপ! প্রকৃতির এই মায়ায় থেকেও মানুষ কীভাবে নিষ্ঠুর হয়, দয়ামায়াহীন হয়, আমি ভেবে পাই না।
সঞ্জীব দ্রং: কলাম লেখক ও সংস্কৃতিকর্মী।
sanjeebdrong@gmail.com

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন