বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এখন এই ঢাকা শহরে দরকার আমার দাদিমা, জেঠাইমার মতো মানুষ, যাঁরা আমাদের নাগরিকদের পিঠে দু-চারটা কিল মেরে, কানটা মলে দিয়ে, চুলটা টেনে দিয়ে বলবেন, আগুন নিয়ে খেলো না। আগুন খেলার জিনিস নয়।

এবার ৩১ ডিসেম্বর ২০২১-এর রাতে, ১ জানুয়ারি ২০২২-এর প্রথম প্রহরে ঢাকা শহরের আকাশ আতশবাজির ফুলঝুরিতে ছেয়ে গিয়েছিল, হঠাৎ-আলোর ঝলকানি লেগে ঝলমল করে চিত্ত—তেমনটা মনে হওয়ার অবকাশও জোটেনি। বরং পিলে চমকানো শব্দে কানে লেগে গিয়েছিল তালা। ছাদে উঠে দেখি, প্রায় প্রতিটি বাড়ির ছাদ থেকে হাউই ওড়ানো হচ্ছে, আতশবাজি ছুটে যাচ্ছে আকাশে, আকাশে আলোর বান ডাকছে; আর সমস্ত আকাশ ছেয়ে গেছে ফানুসের আলোয় আলোয়। হুমায়ূন আহমেদের ওই লাইনও মনে পড়েছে, ‘দিতে পার এক শ’ ফানুস এনে, আজন্ম সলজ্জ সাধ, একদিন আকাশে কিছু ফানুস ওড়াই।’

কিন্তু এর পরিণতি কী ভয়াবহ হয়েছে, তা পড়তে গেলে কেবল সলজ্জ হলেই চলছে না, বিষণ্ন, সতর্ক এবং সন্ত্রস্তও হতে হচ্ছে। শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটের আবাসিক চিকিৎসক আহমেদুর রহমান ফেসবুকে লিখেছেন:

‘আপনি যদি এই মুহূর্তে আমাদের দেশের একমাত্র বার্ন ইনস্টিটিউট শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের জরুরি বিভাগে আসেন, আপনার বোধ অন্য রকম হতো।

‘আমি নিজেও একটা দারুণ আতশবাজির ছবি তোলার জন্য ম্যানুয়াল মোডে ক্যামেরা তাক করে বসে থাকি, “আজন্ম সলজ্জ সাধ” মেটাতে ফানুস উড়াই; কিন্তু এর পেছনের কান্না আর কষ্টের গল্পগুলো নতুনভাবে আবিষ্কার করেছি!

‘একটা বাচ্চা এসেছে ফানুস ওড়াতে গিয়ে মোম পড়েছে চোখে-মুখে, একজন তরুণের সরাসরি চোখেই আগুনের হালকা লেগেছে; কর্নিয়া ইনজুরি আছে, একজন পথচারী এসেছেন, তাঁরও মুখ ফানুসের আগুনে পুড়েছে, এক মাদ্রাসাছাত্র ফানুসের আগুনে বৈদ্যুতিক তার পুড়ছে দেখে সেটা নেভাতে গিয়ে নিজের হাত ইলেকট্রিক বার্ন নিয়ে এসেছে (সেই হাতে একটা বড় অপারেশন লাগবে), একজন “বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশু” আতশবাজি কাছ থেকে দেখতে গিয়ে চোখ-মুখ পুড়িয়েছে; বেচারা তার সমস্যার কথা বলতেও পারছে না, বেশ কয়েকজন এসেছে পটকায় এক বা একাধিক আঙুল উড়ে গেছে, এমন আরও অনেকে এসেছে।’

চিকিৎসক আহমেদুর রহমান আরও লিখেছেন, ‘আমাদের মাথাপিছু আয় বাড়ছে কিন্তু আমরা কি সভ্য হচ্ছি? জলের ওপর থাকা জলযানে আগুন লেগে প্রাণ হারাচ্ছি, নতুন বছর উদ্‌যাপন করতে গিয়ে আহত হচ্ছি! আমাদের মনে হয় আরও একটু মানবিক ভাবনা করা দরকার; আমার উৎসব যেন আর কারও কষ্টের কারণ না হয়!’

আমার মনে হয় চিকিৎসক আহমেদুর রহমানের এই এক ফেসবুক স্ট্যাটাসেই আমাদের ঘুমন্ত বিবেকের জাগ্রত হওয়া উচিত। ঘটনার কিন্তু এখানেই শেষ নয়; বৈদ্যুতিক তার, রাসায়নিকের স্তূপ, আবাসিক এলাকায় বারুদ, কেরোসিনের ডিপো, পেট্রলপাম্পে ভরা এই শহরে আমরা ফানুস ওড়াচ্ছি থার্টি ফাস্ট উদ্‌যাপন করব বলে। এই ফানুসগুলো ফুটো হয়ে আগুন নেভার আগেই নিচে নেমে পড়ছে, আর সৃষ্টি করছে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড! সময় নিউজ বলছে, ‘ইংরেজি নববর্ষ উদ্‌যাপনে ওড়ানো ফানুসে রাজধানীর অন্তত ১০টি স্থানে আগুন লাগার ঘটনা ঘটেছে। ফায়ার সার্ভিসের কন্ট্রোল রুমের কর্মকর্তা এরশাদ হোসেন সংবাদমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।’ প্রথম আলো লিখেছে:

‘বারোটা বাজার আগে থেকেই পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা বাড়ির ছাদে আতশবাজি ফোটাতে শুরু করেন, ফানুসও ওড়ান। ধোলাইখাল বড় মসজিদের সামনে একটি পাঁচতলা ভবন থেকে কিছু ফানুস উড়িয়েছিলেন ভবনের বাসিন্দারা। এর একটি ওপরে না উঠে নিচে নেমে যায়। পরে সেটি ভবনের বৈদ্যুতিক তারের সঙ্গে জড়িয়ে গেলে আগুনের সূত্রপাত হয়। সেই আগুন থেকে ভবনটির পাশের গাড়ির টায়ারের কয়েকটি দোকানে ছড়িয়ে পড়ে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে ফায়ার সার্ভিস দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আগুন নিভিয়ে ফেলে।’

অথচ ঢাকায় ফানুস ওড়ানো নিষিদ্ধ করে বিবৃতি এসেছে সেই ২০১৮ সালে। ওই বছরের ৬ জানুয়ারি (শনিবার) তৎকালীন ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়ার সই করা এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে রাজধানী ঢাকায় ফানুস ওড়ানোয় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ফানুসে থাকা কেরোসিন বাতি না নিভেই মহানগরীর বিভিন্ন জায়গায় পড়ছে। এতে আগুন লাগাসহ বিভিন্ন ধরনের নিরাপত্তাজনিত হুমকি তৈরি হচ্ছে। সে কারণে ফানুস ওড়ানো থেকে সবাইকে বিরত থাকার অনুরোধ জানিয়েছে ডিএমপি। এই নিষেধাজ্ঞা না মানলে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছে ডিএমপি।

আতশবাজি ফোটাতে গিয়ে বিপদ হতে পারে, কারণ তাতে থাকে বারুদ, দরকার হয় আগুন। ফানুসও একই রকম বিপজ্জনক। মরুভূমিতে, বিরান প্রান্তরে, সমুদ্রে ধর্মীয় কারণে উন্নত মানের ফানুস ওড়ানো তবু চলতে পারে, থার্টি ফার্স্ট উদ্‌যাপন করতে গিয়ে আমরা বারুদের স্তূপের ওপরে বসে থাকা ঢাকাবাসী আগুন নিয়ে খেলব, এটা হতে পারে না। আমাদের গ্রেগরিয়ান নববর্ষ আবাহনে আরও সৃষ্টিশীল, নিরাপদ, সুন্দর আয়োজন আবিষ্কার ও প্রবর্তন করতে হবে।

আতশবাজির শব্দে চড়ুই পাখি মারা গেছে, বিড়াল-কুকুর ভয় পেয়েছে, সেই খবর দিয়ে আরেকটা মারাত্মক খবর দেব। সমকাল-এ লেখা হয়েছে, রুহি আশরাফ নামের রাজধানীর একজন বাসিন্দা ভিডিও করেছেন, তাতে দেখা যাচ্ছে, ৩১ ডিসেম্বর রাতে ভয়ার্ত চড়ুই পাখি দলে দলে এসে ঘরে ঢুকে পড়েছে!

ইউসুফ রায়হান নামের এক বাবা ৩১ ডিসেম্বর রাতে ফেসবুকে লেখেন:

‘কী ভীষণ শব্দে আতশবাজি! আমার ছোট্ট বাচ্চাটি এমনিতেই হার্টের রোগী। আতশবাজির প্রচণ্ড শব্দে শিশু বাচ্চাটি আমার ক্ষণে ক্ষণে কেঁপে ওঠে। খুব ভয় পাচ্ছে বলে মনে হচ্ছে। খুবই আতঙ্কের মধ্যে সময়টা পার করছি।’

তারপর? কী হলো?

১ জানুয়ারি শিশুটিকে ঢাকার হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতালে নিতে হয়। এবং শিশুটি মারা গেল!

হায় আমার থার্টি ফার্স্ট!

আনিসুল হক প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক ও সাহিত্যিক

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন