বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসের কঙ্গো প্রজাতি ও মধ্য আফ্রিকান প্রজাতি নামক দুই প্রজাতির সন্ধান মিলেছে। এই দুইয়ের মধ্যে কঙ্গো প্রজাতির চেয়ে মধ্য আফ্রিকান প্রজাতির তীব্রতা তুলনামূলক কম। আফ্রিকার বিভিন্ন অঞ্চলে কঙ্গো প্রজাতিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে মৃত্যুর হার ১০ শতাংশের বেশি। তবে বাচ্চাদের মৃত্যুর আশঙ্কা আরও বেশি। অন্যদিকে মধ্য আফ্রিকান প্রজাতিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মৃত্যুর হার ১ শতাংশের মতো। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ঠিক কোন প্রজাতির মাঙ্কিপক্স ভাইরাসের দ্বারা রোগীরা আক্রান্ত হচ্ছেন, তা সঠিকভাবে এখনো চিহ্নিত করা যায়নি। তবে মধ্য আফ্রিকান প্রজাতি শনাক্ত হয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাজ্যের সর্বোচ্চ স্বাস্থ্য সংস্থা।

ইতিমধ্যে ইউরোপ, উত্তর আমেরিকাসহ বেশ কয়েকটি দেশে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার তথ্য পাওয়া গেছে। সর্বশেষ মধ্যপ্রাচ্যেও এই রোগটি শনাক্ত হয়েছে। আফ্রিকার বাইরে ‘মাঙ্কিপক্সের’ এই অস্বাভাবিক বিস্তার বিশেষজ্ঞদের উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সূত্রমতে, এ পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ১১৫ জনের মধ্যে এই ভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে বা সন্দেহভাজন আক্রান্তের খবর পাওয়া গেছে। সন্দেহভাজন আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, জার্মানি, ফ্রান্স, সুইডেন, ইতালি, স্পেন, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের মতো উন্নত দেশও রয়েছে। এ ছাড়া আরও কয়েকটি দেশে শিগগিরই এই ভাইরাস ছড়াতে পারে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে সতর্ক করা হচ্ছে। এই সংস্থাটি ইতিমধ্যে আক্রান্ত ও সন্দেহভাজন আক্রান্ত দেশসহ অন্যান্য দেশের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে কাজ করা শুরু করেছে। জীবনঘাতী এই ভাইরাসের শনাক্তকরণ, নজরদারি ও আক্রান্ত ব্যক্তিদের চিকিৎসাসহ সার্বিক সহযোগিতার জন্য কাজ করছে এই সংস্থাটি।

করোনা মহামারির মতোই বিশ্বজুড়ে এই নতুন ভাইরাস নিয়ে দেখা দিয়েছে আতঙ্ক। বাংলাদেশও এই উদ্বেগের বাইরে নয়, কারণ যেসব দেশে ইতিমধ্যে মাঙ্কিপক্সের সংক্রমণ দেখা গেছে, সেসব দেশ থেকে প্রায় প্রতিদিন লোকজন আসছেন। এ জন্য মাঙ্কিপক্স নিয়ে ঢাকাসহ দেশের সব বিমানবন্দর ও স্থলবন্দরে যত দ্রুত সম্ভব সরকারের বিশেষ সতর্কতা ব্যবস্থা অবলম্বন করতে হবে।

২০০৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রে মাঙ্কিপক্সের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়েছিল। আমদানি করা প্রাণীর দেহ থেকে দেশটিতে এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। সেই সময় দেশটির ছয়টি প্রদেশের ৭১ জনের শরীরে মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়েছিল। ১৯৭০ সালের পর থেকে আফ্রিকার ১১ দেশে মাঙ্কিপক্স সংক্রমণের খবর পাওয়া যায়। ২০১৭ সালের পর নাইজেরিয়ায় এবার সবচেয়ে বেশি এ রোগের প্রকোপ দেখা গেছে। দেশটিতে চলতি বছর এখন পর্যন্ত ৪৬ জনের দেহে উপসর্গ দেখা গেছে এবং ১৫ জনের সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়া গেছে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। চারটি মহাদেশের লোকজন কীভাবে মাঙ্কিপক্সের সংস্পর্শে এসেছেন, তা এখনো পরিষ্কার নয়। তবে বর্তমানে মাঙ্কিপক্সের প্রাদুর্ভাব শনাক্ত হওয়া লোকজনের মধ্যে এমন অনেক পুরুষ আছেন, যাঁরা পুরুষদের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক করেছেন। স্পেনের মাদ্রিদ অঞ্চলে কয়েকটি ঘটনায় এ ধরনের শারীরিক সম্পর্কের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের শরীরে প্রাথমিক উপসর্গের মধ্যে রয়েছে জ্বর, মাথাব্যথা, পিঠ ও গায়ে প্রচণ্ড ব্যথার মতো লক্ষণ। কাঁপুনি ও ক্লান্তি দেখা দিতে পারে। এ ছাড়া দেহের বিভিন্ন লসিকা গ্রন্থি ফুলে ওঠে। সেই সঙ্গে মুখে ছোট ছোট ক্ষতচিহ্ন দেখা দিতে থাকে। ধীরে ধীরে পুরো শরীরে ছড়িয়ে পড়ে সেই ক্ষত। ফাটা বা অমসৃণ খসখসে ত্বক (যদিও তা দেখা যায় না), শ্বাসতন্ত্র অথবা চোখ, নাক ও মুখ, সংক্রমিত প্রাণীর কামড়, আক্রান্ত প্রাণী অথবা মানুষের রক্ত, শরীরের তরল বা পশম স্পর্শ করা, সংক্রমিত প্রাণীর মাংস সঠিকভাবে রান্না ছাড়া খাওয়া হলে, ফুসকুড়ি রয়েছে এমন কারও ব্যবহৃত পোশাক, বিছানা অথবা গামছা স্পর্শ করা, মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত কারও ত্বকের ফোসকা অথবা খোসপাঁচড়া স্পর্শ করা অথবা সংক্রমিত ব্যক্তির কাশি ও হাঁচির খুব কাছাকাছি যাওয়ার মাধ্যমে মাঙ্কিপক্স ভাইরাসটি মানবদেহে প্রবেশ করতে পারে।

এখন পর্যন্ত মাঙ্কিপক্সের নির্দিষ্ট কোনো ওষুধ অথবা টিকা আবিষ্কৃত হয়নি। অতীতে মাঙ্কিপক্সের সংক্রমণ রোধে গুটিবসন্তের টিকা ব্যবহার করা হতো বলে জানা যায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, স্মলপক্স বা গুটিবসন্তের জন্য ব্যবহৃত টিকা মাঙ্কিপক্স প্রতিরোধে শতকরা ৮৫ ভাগ কার্যকর। যুক্তরাজ্যে ইতিমধ্যে স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের গুটিবসন্তের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, পুরো দেশের মানুষকে টিকা দেওয়ার জন্য গুটিবসন্তের টিকার যথেষ্ট মজুত আছে। এক বিবৃতিতে মার্কিন সরকারের একজন মুখপাত্র বলেছেন, গুটিবসন্তের জন্য অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ রয়েছে; যা বিশেষ পরিস্থিতিতে মাঙ্কিপক্সের চিকিৎসায় ব্যবহার করা যেতে পারে।

করোনা মহামারির মতোই বিশ্বজুড়ে এই নতুন ভাইরাস নিয়ে দেখা দিয়েছে আতঙ্ক। বাংলাদেশও এই উদ্বেগের বাইরে নয়, কারণ যেসব দেশে ইতিমধ্যে মাঙ্কিপক্সের সংক্রমণ দেখা গেছে, সেসব দেশ থেকে প্রায় প্রতিদিন লোকজন আসছেন। এ জন্য মাঙ্কিপক্স নিয়ে ঢাকাসহ দেশের সব বিমানবন্দর ও স্থলবন্দরে যত দ্রুত সম্ভব সরকারের বিশেষ সতর্কতা ব্যবস্থা অবলম্বন করতে হবে। এ ক্ষেত্রে বিদেশফেরত সব যাত্রীকে স্ক্রিনিংয়ের আওতায় আনতে হবে। এ ছাড়া বিদেশ থেকে আসা কোনো ব্যক্তি মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত কি না কিংবা মাঙ্কিপক্সের কোনো লক্ষণ তাঁর শরীরে আছে কি না এবং তিনি মাঙ্কিপক্স আক্রান্ত কোনো দেশে ভ্রমণ করেছে কি না ইত্যাদি তথ্য জেনে সংশ্লিষ্ট সংস্থাকে তদারকি করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

মাঙ্কিপক্সের উল্লিখিত লক্ষণগুলো দেখা দিলে বা শরীরে ফুসকুড়ি–জাতীয় কিছু হলে তাঁকে সঙ্গে সঙ্গে অতিরিক্ত সতর্কতা হিসেবে আইসোলেশনে রাখা উচিত বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। যেহেতু ‘মাঙ্কিপক্স’ মূলত গুটিবসন্ত বা চিকেনপক্স গোত্রের রোগ, তাই বেশির ভাগ রোগীই সুষম খাবারদাবার গ্রহণসহ পরিমিত বিশ্রাম নিলে চিকিৎসা ছাড়াই দু-এক সপ্তাহের মধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠতে পারেন। যদিও এটি গুটিবসন্তের চেয়ে কম মারাত্মক, তবুও এই রোগটি করোনার মতো মহামারি আকারে ছড়ানোর আগেই আতঙ্কিত না হয়ে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে। তাহলেই কেবল খুব সহজেই এই রোগটি মোকাবিলা করা সম্ভব বলে আশা করা যায়।

ড. এ কে লুৎফুল কবির সহযোগী অধ্যাপক, ওষুধ প্রযুক্তি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। [email protected]

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন