বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
সাংবাদিকদের বৈশ্বিক সংগঠনগুলো এই পুরস্কারে যে দারুণভাবে অনুপ্রাণিত বোধ করছে, সন্দেহ নেই। ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ইনস্টিটিউট (আইপিআই) বলেছে, এ পুরস্কার সাংবাদিকতায় উৎসাহের উৎস।

স্বাধীন সাংবাদিকতা ছাড়াও এই পুরস্কার ঘোষণার সঙ্গে অবধারিতভাবে আরও কিছু বিষয়ের গুরুত্বও ধরা পড়ে। প্রথমত, পুরস্কার পাওয়া উভয় সাংবাদিকের দেশেই কর্তৃত্ববাদী শাসনে মানবাধিকার গুরুতর চ্যালেঞ্জের মুখে। ফিলিপাইনের ক্ষেত্রে কমিটি দেশটির প্রেসিডেন্ট দুতার্তের মাদকবিরোধী অভিযানে অস্বাভাবিক উচ্চ সংখ্যার মৃত্যুর কথা উল্লেখ করে তাকে ‘দেশটির নিজ জনগণের বিরুদ্ধে যুদ্ধের সমতুল্য’ বলে অভিহিত করে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা রক্ষায় রেসার নির্ভয় লড়াইয়ের কথা বলেছে। জনবিতর্ক নিজেদের পক্ষে কাজে লাগাতে এবং বিরোধীদের হেনস্তা করতে ভুয়া খবর ছড়াতে সরকার কীভাবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমকে কাজে লাগিয়েছে, রেসা ও তাঁর প্রতিষ্ঠিত অনুসন্ধানী অনলাইন পোর্টাল ‘র‍্যাপলার’ সে তথ্য তুলে ধরেছে।

একইভাবে রাশিয়ায় দিমিত্রি মুরাতভ তাঁর নভোয়া গাজিয়েতায় তুলে ধরেছেন দুর্নীতি, পুলিশি সহিংসতা, বেআইনি গ্রেপ্তার, নির্বাচনী জালিয়াতি এবং সামাজিক মাধ্যমে প্রতিপক্ষকে হয়রানি ও ভয় দেখাতে রুশ সেনাবাহিনীর ট্রল ফ্যাক্টরির কথা। এ জন্য পত্রিকাটিকে নানা রকম হয়রানি, হুমকি ও সহিংসতার শিকার হতে হয়েছে। সংবাদপত্রটি প্রতিষ্ঠার পর থেকে এ পর্যন্ত তাদের ছয়জন সাংবাদিক খুন হয়েছেন, যাঁদের মধ্যে আছেন চেচনিয়ার যুদ্ধ নিয়ে লেখার জন্য নিহত আনা পলিতকোভস্কজা। এমন পরিস্থিতির মধ্যেও মুরাতভ তাঁর সাংবাদিকদের স্বাধীনভাবে বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা করতে দিয়েছেন।

নোবেল শান্তি পুরস্কারের ইতিহাসে ৮৬ বছর আগে আরেকজন সাংবাদিক এই পুরস্কার পেয়েছিলেন। সেটিও ছিল নাৎসিবাদের উত্থানকালে। তবে ১৯৩৫ সালের পুরস্কারবিজয়ী জার্মান সাংবাদিক কার্ল ফন অসিয়েতস্কি সাংবাদিকতা ছাড়াও শান্তি আন্দোলনের সংগঠক ছিলেন। সাবেক সৈনিক অসিয়েতস্কি জার্মান শান্তি কমিটির প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ছিলেন। সেই অর্থে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ও মুক্ত সাংবাদিকতার জন্য লড়াইয়ের জন্য মারিয়া রেসা এবং দিমিত্রি মুরাতভের পুরস্কারই প্রথম এবং ব্যতিক্রম।

সাংবাদিকদের বৈশ্বিক সংগঠনগুলো এই পুরস্কারে যে দারুণভাবে অনুপ্রাণিত বোধ করছে, সন্দেহ নেই। ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ইনস্টিটিউট (আইপিআই) বলেছে, এ পুরস্কার সাংবাদিকতায় উৎসাহের উৎস। রেসা ও মুরাতভ দুজনকেই এর আগে আইপিআই ফ্রি মিডিয়া পুরস্কারে পুরস্কৃত করেছিল। রিপোর্টার্স স্যঁ ফ্রঁতিয়ে (আরএসএফ) বলেছে, ভুয়া খবর ও বিদ্বেষের প্রসারের কারণে গণতন্ত্র ও সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা যখন খর্ব হচ্ছে, তখন যাঁরা সাহস ও দৃঢ়তার সঙ্গে মুক্ত ও স্বাধীনভাবে নির্ভরযোগ্য খবর ও তথ্য প্রকাশ করে চলেছেন, এঁরা ওই সব সাংবাদিকের প্রতিনিধিত্ব করেন। নিউইয়র্কভিত্তিক সংগঠন, কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্টস (সিপিজে) বলেছে, এমন সময়ে এই পুরস্কার এসেছে, যখন সাংবাদিকেরা নজিরবিহীন হামলার শিকার হচ্ছেন, ডিজিটাল নজরদারি চলছে এবং সাংবাদিকতায় মানুষের আস্থা কমছে। সিপিজের প্রধান নির্বাহী জোয়েল সায়মন বলেন, দিমিত্রি ও মারিয়া সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ও তা কেন দরকার, তার প্রতীক। তাঁরা ব্যক্তিগত হুমকির মুখেও অব্যাহতভাবে সেন্সরশিপ অমান্য ও নিপীড়ন উপেক্ষা করে গেছেন এবং অন্যরাও যাতে তা-ই করেন, সে জন্য নেতৃত্ব দিয়েছেন।

সাংবাদিক হত্যা এবং তার বিচারহীনতায় ফিলিপাইন ও রাশিয়ার অবস্থান বিশ্বে অন্য দেশগুলোর অনেক ওপরে। ১৯৯২ সাল থেকে সংকলিত পরিসংখ্যান বলছে, ফিলিপাইনে এ সময়ে নিহত হয়েছেন ৮৭ জন সাংবাদিক, আর রাশিয়ায় ৫৮ জন। এ সময়ে সারা বিশ্বে নিহত সাংবাদিকের সংখ্যা ১ হাজার ৪১৬ জন। সিপিজের হিসাবে, বাংলাদেশে এই একই সময়ে নিহত হয়েছেন ২৩ জন সাংবাদিক। সংবাদপত্রের স্বাধীনতার সূচকে আমাদের অবস্থান অবশ্য ফিলিপাইন ও রাশিয়ারও নিচে। ১৮০টি দেশের মধ্যে আমাদের অবস্থান ১৫২, রাশিয়া ১৫০ এবং ফিলিপাইন ১৩৮। গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের মান নির্ধারণ করে যেসব প্রতিষ্ঠান, তাদের বিচারে আমাদের অবস্থান যে মোটেও সুখকর নয়, তা স্মরণ করা শুধু মর্মবেদনারই কারণ হবে।

২০১৮ সালে টাইম সাময়িকী পারসন অব দ্য ইয়ার হিসেবে সত্যের লড়াইয়ে অভিভাবক (গার্ডিয়ান) হিসেবে কয়েকজন সাংবাদিকের কথা তুলে ধরেছিল। নিহত সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগি, ফিলিপাইনের মারিয়া রেসা, মিয়ানমারের ওয়া লান ও কো সোয়ে উ–র সঙ্গে বাংলাদেশের আলোকচিত্র সাংবাদিক শহিদুল আলমও ছিলেন। শহিদুল আলমের মতো নিগ্রহ, হয়রানি ও নির্যাতনের শিকার হয়েছেন আরও অনেকে। সাময়িক গুম, বিনা বিচারে বন্দিত্ব, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে হয়রানি—এগুলো বেড়েই চলেছে। কমবেশি চেষ্টাও আছে অদৃশ্য ও অনানুষ্ঠানিক নিষেধাজ্ঞা ও নিয়ন্ত্রণ অমান্য করার, হুমকি-হয়রানির ভয় উপেক্ষার। কিন্তু তার প্রভাব ততটা জোরালো নয়।

রেসা ও মুরাতভ যৌথভাবে শান্তি পুরস্কার পেলেন। কারণ, তাঁরা সম্পাদক হিসেবে সব ধরনের নিয়ন্ত্রণের (সেন্সরের) বেড়া অব্যাহতভাবে অমান্য করে গেছেন। তাঁরা যে সাহসের স্বীকৃতি পেলেন, তা থেকে আমাদের সম্পাদকেরা ও বার্তাকক্ষগুলো কতটা অনুপ্রাণিত ও উজ্জীবিত হয়, সেটাই এখন দেখার অপেক্ষা।

কামাল আহমেদ সাংবাদিক

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন