বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বাম জোট আজকের দিনটিকে ‘কালো দিবস’ হিসেবে পালনের ঘোষণা দিয়েছে, যারা আগের দুই বছরেও একই ধরনের কর্মসূচি পালন করেছে। তাদের বক্তব্য ছিল, ‘২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর ক্ষমতাসীন দল পুলিশ ও প্রশাসনকে ব্যবহার করে দিনের ভোট রাতে করার মধ্য দিয়ে অবৈধভাবে পুনঃক্ষমতাসীন হয়েছে।’ একই অভিযোগ করে বিএনপি গত বছর দিনটি ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ হিসেবে পালন করলেও এবার সে রকম কোনো কর্মসূচির কথা শোনা যায়নি। খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে দেওয়ার দাবিতে তারা অবশ্য অন্য কিছু কর্মসূচি পালন করছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কল্যাণে জানা গেল, পিপলস অ্যাকশন কমিটি নামের একটি অরাজনৈতিক সংগঠন তাদের ভাষায় ‘ভোটের তৃতীয় শাহাদাতবার্ষিকী’ উপলক্ষে বুধবার বিকেলে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন নিয়ে নিশ্চয়ই আরও অনেকের অনেক কিছু করার আছে। বিশেষ করে বর্তমান হুদা কমিশন এবং পুলিশ ও প্রশাসনের। স্মরণ করা যেতে পারে, হুদা কমিশন তাদের দপ্তরে পিঠা উৎসব করেছিল। ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের যে কষ্ট করে যেতে হয়নি, কিন্তু ক্ষমতাসীন দলকে তাদের প্রত্যাশার চেয়েও বড় বিজয় তুলে দিতে পারার আনন্দেই ওই উৎসব হয়েছিল বলে তখন অভিযোগ উঠেছিল। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা কমিশন ভবনের জলাধারে মাছ ধরতে বসেছিলেন বলেও তখন খবর বেরিয়েছিল। ‘মৎস্য ধরিব খাইবো সুখে’ কমিশন এরপর যত নির্বাচন আয়োজন করেছে, সেগুলো কেমন ছিল, তার বিবরণ সমালোচকদের মুখ থেকে না শুনে বরং অন্যতম নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের সর্বসাম্প্রতিক মন্তব্য থেকে জেনে নেওয়া ভালো। কমিশনে একঘরে হয়ে থাকা মাহবুব তালুকদার বলেছেন, ‘নির্বাচন এখন আইসিইউতে এবং তার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় গণতন্ত্র এখন লাইফ সাপোর্টে।’ পুলিশেরও কথিত নির্বাচনী সাফল্যের বিরল উদ্‌যাপনের খবর পত্রিকান্তরে প্রকাশিত হয়েছিল, যাতে দেখা যায়, থানায় থানায় বিশেষ ভোজের আয়োজন করা হয়েছে।

স্মরণ করা যেতে পারে, হুদা কমিশন তাদের দপ্তরে পিঠা উৎসব করেছিল। ভোটকেন্দ্রে ভোটারদের যে কষ্ট করে যেতে হয়নি, কিন্তু ক্ষমতাসীন দলকে তাদের প্রত্যাশার চেয়েও বড় বিজয় তুলে দিতে পারার আনন্দেই ওই উৎসব হয়েছিল বলে তখন অভিযোগ উঠেছিল। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা কমিশন ভবনের জলাধারে মাছ ধরতে বসেছিলেন বলেও তখন খবর বেরিয়েছিল।

প্রশ্ন উঠতে পারে, এখন পুরোনো এসব কথা স্মরণ করার প্রয়োজন কী? কারণ হচ্ছে, এখন নতুন একটি কমিশন গঠনের প্রস্তুতি চলছে। পরপর দুটি কমিশন—কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ কমিশন এবং কে এম নূরুল হুদা কমিশন—নির্বাচনী ব্যবস্থার যে ভয়াবহ ক্ষতিসাধন করেছে, তা বিদ্যমান রাজনৈতিক পরিবেশে কাটিয়ে ওঠা আদৌ সম্ভব বলে মনে হয় না। বহুলনিন্দিত এম এ আজিজ কমিশন ভুয়া ভোটারের তালিকা করলেও রাজনৈতিক প্রতিরোধের মুখে নির্বাচন করতে না পারায় তার ক্ষতিটা ঠেকানো গেছে। কিন্তু রকিব কমিশন ও হুদা কমিশন ভোটারদের ভোটের অধিকার জলাঞ্জলি দিয়ে কমিশনের প্রতি জন–আস্থা ধ্বংস করেছে। শুধু সংসদীয় নির্বাচন নয়, এমনকি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকেও তাঁরা ‘জোর যার মুল্লুক তার’ নীতির ভিত্তিতে প্রার্থীদের অর্থ ও পেশিশক্তির ওপর ছেড়ে দিয়েছেন।

পরিসংখ্যান বলছে, দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে প্রাণঘাতী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের রেকর্ডটি হচ্ছে রকিব কমিশনের, যার অধীনে ২০১৬ সালে ১৪৬ জনের প্রাণহানি ঘটেছিল। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ প্রাণহানির রেকর্ডটি সাবেক স্বৈরশাসক জেনারেল এরশাদের আমলে ১৯৮৮ সালে, যখন মৃত্যু হয়েছিল ৮০ জনের। নির্বাচনী সহিংসতার নিরিখে বর্তমান কমিশনও খুব একটা পিছিয়ে নেই। এখন পর্যন্ত এই সংখ্যা ৭০। গণতান্ত্রিক পরিবেশে, অর্থাৎ কার্যকর বিরোধী দল থাকলে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে সমঝে চলতে হয় এবং প্রতিদ্বন্দ্বিতায় একধরনের ভারসাম্য থাকে। কিন্তু নির্বাচনী সহিংসতায় সামরিক শাসনামলের সঙ্গে যে মিল পাওয়া যাচ্ছে, তা গণতন্ত্রের ক্ষয়সাধনেরই সাক্ষ্য দেয়।

গত সপ্তাহে বিতর্কিত রকিব কমিশনের এক সদস্য একটি পত্রিকায় লিখেছেন, ভোটের সময় সহিংসতা বন্ধ বা নিয়ন্ত্রণে তাঁদের কোনো দায় নেই। তিনি দাবি করেছেন, সহিংসতার মতো ঘটনা ফৌজদারি অপরাধ এবং ফৌজদারি অপরাধ দমন, নিয়ন্ত্রণ ও তদন্ত—এগুলো সব পুলিশের কাজ। এগুলো বন্ধের কাজ কমিশনের নয়। ফৌজদারি অপরাধ নিয়ন্ত্রণ যে পুলিশের কাজ, সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু তিনি যে কথাটা বলেননি, তা হচ্ছে পুলিশের যে সদস্য বা কর্তাব্যক্তি বা ব্যক্তিরা দায়িত্ব পালনে অবহেলা করছেন, তাঁদের সরিয়ে দিয়ে সে জায়গায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অন্যদের নিয়োগ করা এবং অবহেলাকারীদের বিরুদ্ধে নানা ধরনের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার ক্ষমতা কমিশনের রয়েছে। নির্বাচনের প্রয়োজনে প্রজাতন্ত্রের যেকোনো প্রতিষ্ঠানের যেকোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীকে কাজে লাগানো এবং তাঁরা দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হলে তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তাঁরা পর্যাপ্তভাবে ক্ষমতায়িত। কিন্তু তারপরও তাঁরা দলীয় পক্ষপাতের কারণে চোখ বন্ধ রেখেছিলেন। আর সেই দায় অস্বীকারের কৌশল হচ্ছে কথিত আইনগত সীমাবদ্ধতার দাবি।

এখন নতুন কমিশন গঠনের লক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি যে সংলাপের আয়োজন করেছেন, সেই সংলাপ নিয়ে ইতিমধ্যেই নানা প্রশ্ন উঠেছে, এর সম্ভাব্য পরিণতি নিয়ে তৈরি হয়েছে সংশয়। সূচনাতেই সরকারের সাবেক অংশীদার জাতীয় পার্টি দলের মহাসচিবের স্ত্রীকে সাবেক আমলার কোটায় নির্বাচন কমিশনার নিয়োগের প্রস্তাব দিয়ে এসেছে। তথ্যটি ফাঁস হয়ে যাওয়ায় সেটি হয়তো আর হবে না। তবে ক্ষমতাসীন দলের আরেক সহযোগী, ন্যাপের নেতারা সংলাপ থেকে বেরিয়ে বলেছেন যে কথিত অনুসন্ধান (সার্চ) কমিটি নিয়ে কোনো আলোচনাই হয়নি। অন্য কয়টি সহযোগী দলের নেতারা কমিশন গঠনের জন্য আইন তৈরির দাবি জানিয়ে এসেছেন। ক্ষমতার ভাগীদার হওয়ায় গত ১৩ বছরে তাঁদের অবশ্য আইন করার কথা মনেই পড়েনি। মনে থাকলে অনেক আগেই তাঁরা অন্তত একটা বেসরকারি বিল উত্থাপন করতে পারতেন।

ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা রাশেদ খান মেনন তত্ত্বাবধায়ক সরকার আইন এক দিনে সম্ভব হয়েছিল উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতিকে বলেছেন যে নির্বাচন কমিশন গঠনের আইনও এক দিনেই করা সম্ভব। তিনি ভুল কিছু বলেননি। কমিটিতে পাঠানোর আনুষ্ঠানিকতা হিসাব না করলে সংসদে অনেক আইনই একইভাবে পাস হয়েছে। কিন্তু বৃহত্তর পরিসরে রাজনৈতিক সমঝোতা ছাড়া সরকারের মনোনীত বিরোধী দলের সম্মতি বা আপত্তিতে ক্ষমতাসীন দলের ইচ্ছার তেমন হেরফের হবে না। সুতরাং, বিরোধী রাজনৈতিক দল এবং নাগরিক গোষ্ঠীগুলোর উচিত হবে আগামী নির্বাচন কীভাবে গ্রহণযোগ্য উপায়ে আয়োজন করা সম্ভব, তা নিয়ে বৃহত্তর সংলাপ ও সমঝোতার ব্যবস্থা করতে রাষ্ট্রপতি ও সরকারকে রাজি করানো। না হলে আমরা বর্তমান কমিশনের চেয়ে উন্নত কিছু পাব—এমন ভ্রান্তিবিলাসে মগ্ন না হওয়াই ভালো।

কামাল আহমেদ সাংবাদিক

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন