দৈনিক প্রথম আলোতে ৪ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত সংবাদ অনুযায়ী, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তর সরকারের ‘উন্নয়ন কর্মকাণ্ড’ প্রচারে ৪৯২টি উপজেলায় একটি করে এলইডি ডিসপ্লে বসাতে চায়, যাতে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৩২ কোটি টাকা। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ইতিমধ্যে দেশজুড়ে প্রচার করে তথ্য মন্ত্রণালয় খরচ করেছে ১০৭ কোটি টাকা, একইভাবে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয় সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড প্রদর্শন করছে, যে প্রকল্প শেষ হবে ২০২৩ সালের জুনে, যাতে খরচ হবে ২১ কোটি টাকা। এই ২৬০ কোটির পুরোটাই জনগণের করের টাকা।

ক্ষমতাসীন দলের প্রথম পরিচয় তারা একটা রাজনৈতিক দল। প্রশ্ন হচ্ছে, একটা রাজনৈতিক দল তার নিজস্ব প্রচার-প্রচারণার জন্য কেন জনগণের টাকা খরচ করবে? আর তা ছাড়া উন্নয়নের সাক্ষী তো উন্নয়ন নিজেই, তা কেন জনগণকে তার পকেটের টাকা খরচ করে শুনতে হবে? এ রকম প্রকল্প যখন অনুমোদনের জন্য আসে, সরকারি দলের কারোরই মাথায় কি এই প্রশ্ন আসে না, কেন আমরা জনগণের টাকা নিজেদের কাজে ব্যবহার করব? নাকি ভগবান দশ চক্রে ভূত হয়ে গেছেন?

কর্মচারী ভুলে গেছেন গরু এবং গরুর দুধের মালিক কে। তাঁর নিজেকে ভালো কর্মী হিসেবে পাড়া-প্রতিবেশীদের কাছে তুলে ধরতে হবে, প্রয়োজনে মালিককে দেউলিয়া করে হলেও। কর্মচারী দেখাতে চান, মালিককে তিনি থোড়াই ভয় পান, থোড়াই গ্রাহ্য করেন।

যদি ধরেও নিই অর্থনীতির অবস্থা খুব খারাপ নয়, অন্তত এটা আমাদের মিতব্যয়ী হওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছে। সরকার ব্যয় সংকোচনের অনেক পরিকল্পনা করলেও বাস্তব চিত্র যেন উল্টো। দেখা যাচ্ছে, সরকারি আমলা তাঁর অবসরের কয়েক দিন আগে বিদেশ সফর দিয়ে আসছেন, বৃক্ষমেলায় অংশ নিতে বিদেশ যাচ্ছেন দল ধরে, দলীয় বিজ্ঞাপনের জন্য ব্যয় হচ্ছে কোটি কোটি টাকা। অবস্থাদৃষ্টে এটা বলা ভুল হবে না, সরকার জনগণের টাকাকে তাদের নিজ দলের টাকা ভাবতে শুরু করেছে, এই ব্যয়ের উৎসের যৌক্তিকতা নিয়ে তাদের ভাবার সময় নেই।

কর্মচারী ভুলে গেছেন গরু এবং গরুর দুধের মালিক কে। তাঁর নিজেকে ভালো কর্মী হিসেবে পাড়া-প্রতিবেশীদের কাছে তুলে ধরতে হবে, প্রয়োজনে মালিককে দেউলিয়া করে হলেও। কর্মচারী দেখাতে চান, মালিককে তিনি থোড়াই ভয় পান, থোড়াই গ্রাহ্য করেন।

  • যোবায়ের মাহমুদ উন্নয়নকর্মী
    [email protected]

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন