ঋণপূর্ববর্তী করণীয় (প্রায়র অ্যাকশনস)

গ্রহীতা সরকারকে আইএমএফ তাদের ঋণ অনুমোদনের বা তাদের পর্যালোচনা সমাপ্ত করার আগেই এসব করণীয় সম্পন্ন করতে হবে। এসব করণীয়র উদাহরণ হলো, মূল্য নিয়ন্ত্রণ প্রত্যাহার, রাজস্ব কাঠামোর সঙ্গে সংগতিপূর্ণ বাজেট প্রণয়ন ইত্যাদি।

সংখ্যাত্বক প্রতিপাদন মানদণ্ড (কোয়ান্টেটিভ পারফরম্যান্স ক্রাইটেরিয়া)

আইএমএফ তাদের সহায়তা কয়েক কিস্তিতে প্রদান করে থাকে। বিভিন্ন কিস্তিতে প্রতিশ্রুত অর্থ ছাড়ের আগে তারা ব্যষ্টিক অর্থনীতি–সম্পর্কিত ‘সংখ্যাত্বক প্রতিপাদন মানদণ্ড’ প্রতিপালিত হয়েছে কি না, তা নিশ্চিত করে থাকে। এর মধ্যে রয়েছে বাজেট ঘাটতির সর্বোচ্চ পরিমাণ, সরকারি ঋণ ও আন্তর্জাতিক রিজার্ভের সীমা নির্ধারণ ইত্যাদি।

দিকনির্দেশনামূলক লক্ষ্যমাত্রা (ইন্ডিকেটিভ টার্গেটস)

সংখ্যাত্বক প্রতিপাদন মানদণ্ড ছাড়াও আইএমএফ কিছু দিকনির্দেশনামূলক লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে থাকে। এর মধ্যে রয়েছে—কর জিডিপির অনুপাত, সামাজিক খাতে ব্যয়সীমা নির্ধারণ ইত্যাদি। অর্থনীতির অনিশ্চয়তা কেটে গেলে, দিকনির্দেশনামূলক লক্ষ্যমাত্রা পরিমার্জনা করে সংখ্যাত্বক প্রতিপাদন মানদণ্ডে রূপান্তর করা হয়।

কাঠামোগত সংস্কার

আইএমএফের ঋণ পাওয়ার জন্য প্রধান করণীয় হলো আর্থিক ব্যবস্থার কাঠামোগত সংস্কার। যার উদাহরণ হলো ব্যাংকিং খাতের সংস্কার, সরকারের আর্থিক ব্যবস্থার উন্নয়ন, সামাজিক সুরক্ষাব্যবস্থা তৈরি ইত্যাদি।

ডাক্তারের কাছে গেলেই অসুখ ভালো হবে, এমনটি নয়। ব্যক্তিগত অসুখের মতো রুগ্‌ণ অর্থনীতির ক্ষেত্রেও এটা সত্যি। ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র মেনে চলতে হবে, নির্ধারিত পথ্য খেতে হবে। তা ছাড়া অসুখ সঠিকভাবে চিহ্নিত হয়েছে কি না, ব্যবস্থাপত্র সঠিক কি না, তা–ও গুরুত্বপূর্ণ। মনে রাখতে হবে, আইএমএফের কর্মসূচি সর্বরোগের কোনো ওষুধ নয়।

আইএমএফের কর্মসূচির সীমাবদ্ধতা

অভিযোগ আছে, ১৯৯৭ সালে এশীয় অর্থনৈতিক সংকটের সময় আইএমএফ ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডকে বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময় হার সংহত করার জন্য সংকোচনশীল মুদ্রা ও রাজস্ব নীতি (উচ্চ সুদের হার ও বাজেট ঘাটতি হ্রাস) অনুসরণ করতে বলে। ফলে মন্দা দেখা দেয় ও বেকারত্ব বাড়ে। কেনিয়ায় নব্বইয়ের দশকে মূলধন প্রবাহের ওপর নিয়ন্ত্রণ উঠিয়ে নিতে বলে। ফলে দুর্নীতিপরায়ণ রাজনীতিবিদেরা দেশ থেকে অর্থ পাচার করতে সমর্থ হয়। আবার বিভিন্ন দেশে মুদ্রার অবমূল্যায়ন সুপারিশ বাস্তবায়ন করতে গিয়ে ব্যাপক মুদ্রাস্ফীতি ঘটে।

আশার কথা হলো, আইএমএফ সরকারের সঙ্গে আলোচনাক্রমে তাদের ঋণের শর্তাবলি নির্ধারণ করে থাকে। এ প্রসঙ্গে নব্বইয়ের দশকে আইএমএফের ‘সম্প্রসারিত কাঠামোগত সংস্কার সুবিধা (ইসাফ) ’ আলোচনায় দর-কষাকষির একটি অভিজ্ঞতা সহভাগ করতে চাই।

সে সময় আইএমএফের শর্ত ছিল, কর রাজস্বের অনুপাত প্রতিবছর শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ বাড়াতে হবে। আবার বিশ্বব্যাংক তাদের শিল্প খাত সংস্কার কর্মসূচির (আইসাক) আওতায় শর্ত দিয়েছিল সর্বোচ্চ শুল্কহার ৭৫ শতাংশ নির্ধারণ করার। আমি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে এ বিষয়ে প্রক্ষেপণ প্রস্তুত করতে গিয়ে দেখি, আইএমএফ ও বিশ্বব্যাংকের শর্তগুলো সাংঘর্ষিক। অর্থাৎ, সর্বোচ্চ শুল্কহার ৭৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হলে কর রাজস্বের অনুপাত প্রতিবছর শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ বাড়ানো সম্ভব নয়। কর রাজস্বের অনুপাত প্রতিবছর ০ দশমিক ৫ শতাংশ বাড়াতে হলে সর্বোচ্চ শুল্কহার ১০০ শতাংশ নির্ধারণ করতে হবে। বিষয়টি জানাতে তখনকার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান নুরুল হোসেইন খান ও আমি অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের দপ্তরে যাই। আমরা মুখ খোলার আগেই অর্থমন্ত্রী চেয়ারম্যানকে বললেন, ‘দেখো, সর্বোচ্চ শুল্কহার ৭৫ শতাংশ নির্ধারণ করা যাবে না। এটা ১০০ শতাংশ রাখতে হবে। না হলে দেশীয় শিল্পের ক্ষতি হবে। তোমরা এটা বিশ্বব্যাংককে জানিয়ে দাও।’ আমরা দুজনেই অবাক! আমি দীর্ঘ সময় কম্পিউটারে কাজ করে যে ফলাফল পেয়েছি, অর্থমন্ত্রী নিমেষেই সে সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন। একেই বোধ হয় বলে অর্থনৈতিক প্রজ্ঞা!

যাহোক, আমি অর্থমন্ত্রীকে আমার প্রক্ষেপণ দেখাই। তিনি প্রসন্ন হন এবং আমরা কী করব, তা জানতে চান। চেয়ারম্যান মহোদয় বললেন, আপনি অনুমতি দিলে আমরা আমাদের প্রক্ষেপণ নিয়ে আইএমএফ ও বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে আলোচনা করতে চাই। তিনি অনুমতি দেন। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আমি আইএমএফের দলনেতা মি. ব্রাউন ও বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধি চার্লস ড্রেপারের সঙ্গে আলোচনায় বসি। দুজনেই বৈঠকে তাঁদের শর্তে অনড় থাকেন এবং বলেন, তাঁরা আমার হিসাবগুলো নিরীক্ষা করবেন ও বিষয়টি নিয়ে পরস্পরের মধ্যে আলোচনা করবেন। আমি তাঁদের আমার প্রক্ষেপণের সফটকপি দিয়ে দিই। এক দিন পর আইএমএফের দলনেতা আমাকে জানান, বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে তাঁর আলোচনা হয়েছে। কর রাজস্বের অনুপাতের শর্ত ঠিক থাকবে, তবে সর্বোচ্চ শুল্কহার ১০০ শতাংশ নির্ধারণ করা যাবে। অর্থাৎ, আইএমএফ ও বিশ্বব্যাংক আমাদের অবস্থান মেনে নেয়।

মনে রাখতে হবে, শ্রীলঙ্কার বর্তমান দেউলিয়াত্বের পেছনে আইএমএফের সঙ্গে সংস্কার কর্মসূচি বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছাতে না পারাও একটি কারণ। আইএমএফের সঙ্গে আলোচনা কেবল ঋণের অর্থের জন্য নয়; বরং এটা বাজারকে নির্দেশনা দেবে যে আর্থিক সংকট উত্তরণে সরকার কতটা আন্তরিক।

শেষ কথা

আর্থিক সংকট দেশীয় ও বৈশ্বিক—দুই কারণেই হতে পারে। আমাদের সংকটের কারণ যুগপৎভাবে দেশীয় ও বৈশ্বিক। এক যুগ ধরে সংঘটিত অর্থনৈতিক অনাচারের তালিকাটি দীর্ঘ। অনেকে দোহাই দিচ্ছিলেন, উন্নয়ন করতে গেলে এমন এক-আধটু হবেই। এটা নিয়ে মাথা ঘামানোর প্রয়োজন নেই। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে যে অতীতের অপকর্ম থেকে রেহাই নেই, এর দায় নিতেই হবে (চিকেন্স হ্যাভ কাম হোম টু রুস্ট)। যদিও সবার জানা, তবু আবার মোটাদাগের কয়েকটি অপকর্মের উল্লেখ করছি—খেলাপি ঋণ ও মুদ্রা পাচার, উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যয় ও সময়ের মাত্রাতিরিক্ত বৃদ্ধি, উচ্চ সুদের ঋণে অবকাঠামো প্রকল্প বাস্তবায়ন, বিদ্যুৎ খাতে গোষ্ঠীপ্রীতি, আর্থিক নিষ্পেষণ, সঞ্চয়কারীদের শাস্তি প্রদান ও শেয়ারবাজার কারসাজি। এসবের কারণে আমাদের আর্থিক সংকট আজ হোক কাল হোক অবধারিত ছিল। রাশিয়া–ইউক্রেনের যুদ্ধ এ সংকটকে কেবল ত্বরান্বিত করেছে মাত্র। তাই নিজস্ব স্বার্থেই আমাদের অর্থনৈতিক ও আর্থিক খাতে সংস্কার করতে হবে। এমনকি আইএমএফের অর্থ না পাওয়া গেলেও।

আমি আশা করি, আইএমএফের সঙ্গে দর-কষাকষিতে নিয়োজিত সরকারি কর্মকর্তারা ‘অযথা দেশপ্রেমের খোলস’ ছেড়ে যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখবেন এবং জাতীয় স্বার্থে উপযুক্ত সংস্কার কর্মসূচি প্রণয়নে সক্ষম হবেন। মনে রাখতে হবে, শ্রীলঙ্কার বর্তমান দেউলিয়াত্বের পেছনে আইএমএফের সঙ্গে সংস্কার কর্মসূচি বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছাতে না পারাও একটি কারণ। আইএমএফের সঙ্গে আলোচনা কেবল ঋণের অর্থের জন্য নয়; বরং এটা বাজারকে নির্দেশনা দেবে যে আর্থিক সংকট উত্তরণে সরকার কতটা আন্তরিক।

মুহাম্মদ ফাওজুল কবির খান সাবেক সচিব ও অর্থনীতিবিদ

কলাম থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন