বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শীত মৌসুমে পাখিশিকারিদের এই অপতৎপরতা নতুন কিছু নয়। বাংলাদেশের বিল-হাওরের বড় অংশ প্রত্যন্ত এলাকায় অবস্থিত। সেখানে বন বিভাগ কিংবা আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নিয়মিত নজরদারি কম। এসব এলাকায় অনেক ক্ষেত্রেই সংঘবদ্ধ শিকারিরা পাখি নিধনে যুক্ত। আবার দারিদ্র্যের কারণে অনেকে পাখি শিকার করেন। এ ছাড়া পাখি যে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ অংশ, এ ধরনের সচেতনতা মানুষের মধ্যে নেই বললেই চলে। একশ্রেণির মানুষ চড়া দামে পাখি কেনায় বাজারে এর চাহিদাও রয়েছে।

পাখি শিকার দণ্ডনীয় অপরাধ। ১৯৭৪ সালে বন্য প্রাণী রক্ষা আইন ও ২০১২ সালে বন্য প্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইনে দণ্ডের বিধান রয়েছে। এতে বলা হয়েছে, পাখি নিধনের সর্বোচ্চ শাস্তি এক বছর জেল, এক লাখ টাকা দণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত। একই অপরাধ আবার করলে শাস্তি ও জরিমানা দ্বিগুণের বিধানও রয়েছে।

পরিযায়ী কিংবা দেশি প্রজাতির পাখি শিকার বন্ধে মাঝেমধ্যেই ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হয়। এতে বিচ্ছিন্নভাবে অনেকের সাজাও হয়। কিন্তু পাখি নিধন বন্ধ হয় না। এ ক্ষেত্রে শিকারিদের থামাতেই হবে। পাখি নিধন বন্ধে উপজেলা প্রশাসন, বন বিভাগ, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে সম্মিলিত উদ্যোগ নিতে হবে। শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এলাকার সচেতন লোকদের এ কাজে সম্পৃক্ত করতে হবে। পাখিশিকারি ও ক্রেতা উভয়ের বিরুদ্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগের সঙ্গে সঙ্গে বিকল্প কর্মসংস্থান সৃজন করতে হবে। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় পাখির নিরাপদ আবাস তৈরির বিকল্প নেই

সম্পাদকীয় থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন