বিজ্ঞাপন

নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন দুর্ভিক্ষ সম্পর্কে বলেছেন, যে দেশে গণমাধ্যম স্বাধীন, সে দেশে দুর্ভিক্ষ হয় না। তাঁর প্রবাদপ্রতিম এই বক্তব্য করোনা মহামারিসহ অন্যান্য দুর্যোগ সম্পর্কেও সমভাবে প্রযোজ্য। মানুষ সঠিক তথ্য পেলে দুর্যোগ মোকাবিলা সহজতর হয়। প্রশ্ন উঠবে সঠিক তথ্য কোনটি। ভারতে নরেন্দ্র মোদি সরকার করোনা নিয়ে ‘মিথ্যা ও ভুল তথ্য’ প্রকাশের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করতে সুপ্রিম কোর্টের কাছে আবেদন করেছিল। কিন্তু আদালত তা নাকচ করে দিয়েছেন। বাংলাদেশে এ রকম কোনো আবেদন না জানানো হলেও সরকারের নীতিনির্ধারকেরা বিভিন্ন সময় ‘ভুল’ তথ্য নিয়ে শোরগোল তুলে থাকেন।

করোনা মহামারি মোকাবিলায় সরকার লকডাউন, জন চলাচলে বিধিনিষেধ, ক্ষতিগ্রস্ত খাতের জন্য প্রণোদনা ও হতদরিদ্র মানুষের জন্য যে আর্থিক প্রণোদনা ও সহায়তা ঘোষণা করেছে, কোনো গণমাধ্যম তার বিরোধিতা করেছে বলে আমাদের জানা নেই। কিন্তু সরকারের এই সঠিক সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে গিয়ে যে বেঠিক কাজ হয়, অনিয়ম-দুর্নীতি হয়, সেসব তুলে ধরা নিশ্চয়ই ভুল তথ্য ছড়ানো নয়। বরং সাহেদ-সাবরিনা কেলেঙ্কারিসহ স্বাস্থ্য খাতের বিভিন্ন অনিয়ম গণমাধ্যমে প্রকাশ পাওয়ায় সরকার ত্বরিত ব্যবস্থা নিতে পেরেছে। একইভাবে করোনাকালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন, লোক নিয়োগ ও যন্ত্রপাতি কেনায় যেসব অনিয়ম হয়েছে, তা গণমাধ্যমে আসায় দুর্নীতিবাজদের আঁতে ঘা লাগলেও দেশ ও জনগণ উপকৃত হয়েছে। তাই গণমাধ্যমের অনুসন্ধান ও সত্য প্রকাশকে ভিন্ন চোখে দেখার কোনো সুযোগ আছে বলে মনে করি না।

স্বাধীন গণমাধ্যমের ভূমিকা অস্বীকারের ফল যে কত মারাত্মক হতে পারে, যুক্তরাষ্ট্রে ট্রাম্প প্রশাসনের একগুঁয়েমি তার প্রমাণ। ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট থাকাকালে করোনা মহামারি নিয়ে গণমাধ্যমের তথ্য ও বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ উপেক্ষা করে দেশটিতে ভয়াবহ বিপর্যয় ডেকে এনেছিলেন। বিপরীতে জো বাইডেন প্রশাসন গণমাধ্যমের তথ্য ও বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ আমলে নেওয়ায় দ্রুত পরিস্থিতির অনেক উন্নতি হয়েছে।

সরকারের মন্ত্রীরা প্রায়ই বলে থাকেন, তাঁরা সরকারকে গণমাধ্যমের মুখোমুখি করতে চান না। সহযোগিতা চান। আমরা চাই কাজেও এর প্রতিফলন ঘটুক।

সম্পাদকীয় থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন