বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নদী নিয়ে উচ্চ আদালত এর আগেও বহুবার নির্দেশনা দিয়েছেন। ২০১৯ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি এক মামলার রায়ে দেশের সব নদ-নদী রক্ষায় সরকারকে উদ্যোগ নিতে বলেছিলেন হাইকোর্ট। তুরাগ নদকে ‘জীবন্ত সত্তা’ উল্লেখ করে আদালত জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনকে দেশের সব নদ-নদীর অভিভাবক হিসেবে অভিহিত করেছিলেন। সেই সঙ্গে নদীদূষণ ও দখলমুক্ত করতে ১৭টি নির্দেশনাও দিয়েছিলেন। কিন্তু নদী কমিশন কি অভিভাবকের দায়িত্ব পালন করেছেন? ক্ষমতাধর অনেক ব্যক্তি নদী কমিশনের কর্তৃত্বকেই চ্যালেঞ্জ করছেন। সে ক্ষেত্রে সরকারের দৃঢ় ভূমিকা ছাড়া নদী কমিশনের পক্ষেও অর্পিত দায়িত্ব পালন করা সম্ভব নয়।

নদী রক্ষায় হাইকোর্টের ওই রায়ে নদী সংরক্ষণ ও দূষণ নিয়ে একটি আলাদা অধ্যায় পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিবকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। দেশের প্রতিটি কলকারখানার শ্রমিকদের মধ্যে নদীবিষয়ক সচেতনতা তৈরির কথাও বলা হয়েছিল। প্রায় তিন বছর আগে উচ্চ আদালত এ রায় দিলেও নদী রক্ষায় সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ও বিভাগ কী পদক্ষেপ নিয়েছে? নিলে নদীর সংখ্যা জানতে নতুন করে রিট করার প্রয়োজন হতো না। যেখানে নদীর সংখ্যা কত সে বিষয়ে সরকারের কাছে সঠিক তথ্য নেই, সেখানে তারা নদী রক্ষায় পদক্ষেপ নেবে কীভাবে? দখলদারদের দৌরাত্ম্যে অনেক নদী-খাল ও জলাশয় ভরাট হয়ে গেছে। নদীর সংখ্যা সঠিক না হওয়ায় দখলদারের সংখ্যাও সঠিকভাবে চিহ্নিত করা সম্ভব নয়। ঢাকার চারপাশের নদীগুলো যথাক্রমে বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, বালু ও শীতলক্ষ্যা রক্ষায় উচ্চ আদালত থেকে একাধিকবার নির্দেশনা দেওয়ার পরও পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি।

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে উপকূলের নদীগুলোর পানি অতিরিক্ত লবণাক্ত হয়ে পড়েছে। এ প্রেক্ষাপটে পানির চাহিদা মেটাতে নদীগুলো রক্ষা করতেই হবে। নদীকে হত্যা করে কোনো উন্নয়ন প্রকল্প নয়। বরং নদীকে রক্ষা করলেই দেশের উন্নয়ন টেকসই হবে, মানুষের জীবনধারা নির্বিঘ্ন হবে। উচ্চ আদালত তুরাগকে জীবন্ত সত্তা হিসেবে ঘোষণা দিলেও সব নদীকে জীবন্ত সত্তা হিসেবে গণ্য করে তাদের রক্ষায় কার্যকর ও টেকসই পদক্ষেপ নিতে হবে। প্রশ্ন হলো হাইকোর্টের নির্দেশনার পর সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও প্রতিষ্ঠানের ঘুম ভাঙবে কি?

সম্পাদকীয় থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন