প্রথম আলোর প্রতিবেদন জানায়, ২০০৯ সালে সোয়া কোটির বেশি অর্থের একটি প্রকল্পে ৪৩টি প্রশিক্ষণ ব্যাচে ৮৬০ জন তাঁতিকে প্রশিক্ষণ ও ঋণ দিয়ে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করা হয়। সেই প্রকল্পের অধীনে পণ্য প্রদর্শন ও বিক্রয়ের জন্য একটি দোতলা ভবন নির্মাণ করা হয়। কিন্তু প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায় চালু না হওয়ায় সেই বিক্রয়কেন্দ্রটি ৯ বছর ধরে বন্ধ হয়ে আছে। পড়ে থাকতে থাকতে ভবনটি অনেকটা পরিত্যক্ত হয়ে গেছে। ভবনের পলেস্তারা খসে গেছে। দরজা-জানালা, আসবাব নষ্ট গেছে। সীমানাপ্রাচীরও ভেঙে গেছে।

তাঁতিপাড়ার ঐতিহ্য অনেক আগে থেকেই আমরা হারাতে বসেছি। এরপরও এটি একটি বিশাল ঘটনা যে গঙ্গাচড়ার গজঘণ্টা হাবু তাঁতিপাড়ার বেনারসিপল্লির প্রায় আট হাজার পরিবার এখনো সেই শিল্প ধরে রেখেছেন। তাঁতিদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে তাঁদের কারখানাগুলোতে বেনারসি শাড়িসহ অন্যান্য পণ্য তৈরি হচ্ছে।

ঢাকা, রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ব্যবসায়ীরা এখানকার পণ্য কিনে নিয়ে যান। কিন্তু বিসিকের বিক্রয়কেন্দ্রটি বন্ধ থাকায় উৎপাদিত পণ্য প্রদর্শন ও বিপণনে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে তাঁতিদের। তাঁদের উৎসাহেও ভাটা পড়ছে। একসময় এই পল্লিতে ছয় শতাধিক তাঁত থাকলেও তা কমে এখন কমে ১০০টিতে দাঁড়িয়েছে। প্রকল্প বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পল্লিতে দক্ষ কারিগরের সংকটও দেখা দিয়েছে।

রংপুর বিসিক অফিসের বক্তব্য, নতুন করে প্রকল্প চালু ও ভবনটি ব্যবহারের উপযোগী করতে মন্ত্রণালয়ে কাগজপত্র পাঠানো হয়েছে। কিন্তু এখনো কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। আমরা আশা করব, শিল্প মন্ত্রণালয় বিষয়টি গুরুত্ব দেবে। পণ্য প্রদর্শন ও বিক্রয়কেন্দ্রটি চালু করার কার্যকর উদ্যোগ নেওয়া হোক। তাঁতশিল্পের ঐতিহ্য ধরে রাখতে সেটি আরও বেশি প্রয়োজন।

সম্পাদকীয় থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন