প্রথম আলোর প্রতিবেদন জানাচ্ছে, রাজশাহী নগরের ১০টি ওয়ার্ডে পণ্য সরবরাহ করা হচ্ছে। কিন্তু সেখানে টিসিবির ডিলাররা পচা পেঁয়াজ বিক্রি করছেন বলে সুবিধাভোগীরা অভিযোগ করেছেন। পণ্য কিনতে আসা মানুষের পক্ষে পচা পেঁয়াজের গন্ধে সেখানে দাঁড়িয়ে থাকাই দায় হয়ে পড়েছে।

টিসিবির পণ্যের ৪৪৫ টাকার প্যাকেজে রয়েছে দুই কেজি পেঁয়াজ। পচা হওয়ায় কেউ সেই পেঁয়াজ নিতে চাইছেন না। এরপরও বাধ্যতামূলকভাবে তা নিতে হচ্ছে। এতে কার্ডধারীদের মধ্যে অসন্তোষ প্রকাশ পায়।

এক বিক্রয়কেন্দ্রের পরিবেশকের বক্তব্য, এ ব্যাপারে তাঁদের কিছু করার নেই। টিসিবি আগের দিন সোমবার রাতে তাঁদের মাল দিয়েছে। মঙ্গলবার সকাল থেকে তা-ই বিক্রি করছেন। এক দিনে তো এই পেঁয়াজ নষ্ট হয়নি। টিসিবির রাজশাহী অঞ্চলের কর্তৃপক্ষ জানাচ্ছে, ভারত থেকে পেঁয়াজগুলো আমদানি করার সময় দুই দেশেই বৃষ্টি ছিল। তাই ত্রিপল দিয়ে পাঁচ-সাত দিন ঢেকে রাখতে হয়েছিল। এতে পেঁয়াজগুলো ঘেমে গেছে। মোট পেঁয়াজের ভেতর থেকে নষ্ট আট টন তারা ফেলে দিয়েছে। এগুলো গ্রাহকদের দেওয়া হয়নি। বিষয়টি যদি তেমনই হয়ে থাকে, তাহলে এ পচা পেঁয়াজ এল কোত্থেকে? সাশ্রয়ী মূল্যে পণ্য বিক্রির নামে পচা পণ্য গছিয়ে দেওয়া কি খেটে খাওয়া ও কম আয়ের মানুষের সঙ্গে একপ্রকার প্রতারণা নয়? আমরা আশা করব, পচা, নষ্ট বা মেয়াদোত্তীর্ণ কোনো পণ্যই যাতে টিসিবি কার্যক্রমে না থাকে। শুধু রাজশাহী নয়, গোটা দেশে বিষয়টি নিশ্চিত করা হোক।

সম্পাদকীয় থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন