বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

১৯৭৭ খ্রিষ্টাব্দে তিনি লেসোথোর বিশপের দায়িত্ব গ্রহণ করেন, একই সঙ্গে তিনি ‘সাউথ আফ্রিকান কাউন্সিল অব চার্চ’-এর জেনারেল সেক্রেটারি নিযুক্ত হন। সত্তরের দশক থেকে দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদী সরকারের নীতির কঠোর সমালোচক ছিলেন তিনি। নেলসন ম্যান্ডেলার মুক্তি ও আফ্রিকার কালো মানুষের মুক্তির সংগ্রামে ব্রতী হন। ১৯৮৪ সালে তাঁকে শান্তির জন্য নোবেল পুরস্কার প্রদান করা হয়। ১৯৮৫ সালে তিনি জোহানেসবার্গের বিশপ এবং পরবর্তী বছরে দক্ষিণ আফ্রিকার আর্চবিশপের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তিনি ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ আর্চবিশপ।

তাঁর সঙ্গে আমার শেষবার দেখা হয় ২০০০ সালে ‘ইউনাইটেড বাইবেল সোসাইটি’র বিশ্ব সম্মেলনে জোহানেসবার্গে। তখন তিনি বার্ধক্যে কিছুটা মন্থর কিন্তু কথনে কোনো পরিবর্তন ছিল না। সেই উজ্জ্বল হাসিতে উদ্ভাসিত মুখ।

আর্চবিশপ টুটু যে শুধু দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন, তা নয়! ফিলিস্তিনিদের ন্যায্য অধিকার, ইরাকে মার্কিন বাহিনীর জঘন্য হামলা এবং বিশ্বে যেখানে মানবতা লাঞ্ছিত হয়েছে, সেখানেই তাঁর কণ্ঠ সরব হয়েছে। তাঁকে বলা হতো ‘দক্ষিণ আফ্রিকার নৈতিকতার দিকনির্দেশক, বর্ণবাদী সরকারের বৈষম্যের পথের কাঁটা’। তিনি দক্ষিণ আফ্রিকার বিখ্যাত ‘ট্রুথ অ্যান্ড রিকনসিলিয়েশন’-এর প্রবক্তা ও প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁর একটি বিখ্যাত উক্তি, ‘মৃত্যুপথযাত্রী ব্যক্তির পৃথিবী ছেড়ে যাওয়ার সময়ও নির্বাচনের অধিকার রয়েছে।’

ব্যক্তিজীবনে তিনি চার সন্তানের জনক। ৯০ বছর বয়সে ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে বড়দিনের পরদিন গত ডিসেম্বর ২৬ ইহলোক ত্যাগ করেন। তিনি একজন লেখকও ছিলেন। চার্চে তাঁর উপদেশগুলোর কয়েকটি প্রকাশনাসহ তাঁর উল্লেখযোগ্য বই হচ্ছে ‘ক্রাইং ইন দ্য ওয়াইল্ডারনেস’ (১৯৮২) ও ‘হোপ অ্যান্ড সাফারিং’ (১৯৯৩)। তিনি অহিংস নীতিতে বিশ্বাসী ছিলেন। এমন সংগ্রামী ন্যায্যতার প্রতীককে ‘পৃথিবী একবার পায় তারে/ পায় নাকো আর’।

ড. ডেনিস দিলীপ দত্ত অবসরপ্রাপ্ত চার্চকর্মী

স্মরণ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন